×
Icon এইমাত্র
কমপ্লিট শাটডাউন কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে কোটা আন্দোলনকারীরা বাংলাদেশ টেলিভিশনের মূল ভবনে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। বিটিভির সম্প্রচার বন্ধ। কোটা সংস্কার আন্দোলনে সারা দেশে এখন পর্যন্ত ১৯ জন নিহত কোটা ইস্যুতে আপিল বিভাগে শুনানি রবিবার: চেম্বার আদালতের আদেশ ছাত্রলীগের ওয়েবসাইট হ্যাক ‘লাশ-রক্ত মাড়িয়ে’ সংলাপে বসতে রাজি নন আন্দোলনকারীরা

খবর

তালাকের জেরে হত্যা

প্রায় এক মাস পর ঘাতক দম্পতি গ্রেপ্তার

Icon

প্রকাশ: ০৯ জুলাই ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

চট্টগ্রাম অফিস : অটোরিকশা চালক মঞ্জুর আলম বছর দেড়েক আগে বিয়ে করেন সাফিয়া আক্তার মনিকে (২৬)। দুজনেরই এটি ছিল দ্বিতীয় বিয়ে। বিয়ের পর পারিবারিক কলহের জেরে মনিকে তালাক দেন মঞ্জুর। কিন্তু তালাকের বিষয়টি মেনে নিতে পারছিলেন না মনি। হয়ে ওঠেন প্রতিশোধ পরায়ণ। তাই আইউব খান (৩০) নামে এক যুবককে বিয়ে করেন মনি। দুজন মিলে পরিকল্পনা করেন মঞ্জুরকে খুন করার।

গত ১০ জুন মঞ্জুরের খোঁজ পাচ্ছিল না তার পরিবার। পরবর্তী সময়ে পুলিশ একটি অজ্ঞাত লাশ উদ্ধার করলে সেটি মঞ্জুরের বলে শনাক্ত করে প্রথম স্ত্রী। জানা যায়, তালাক দেয়ার জের ধরে মঞ্জুরকে খুন করেন মনি ও তার স্বামী মো. আইউব খান। খুনের শিকার মঞ্জুর ফেনী সদর থানার লেমুয়া মাস্টারপাড়া এলাকার বাসিন্দা।

মঞ্জুর হত্যার ঘটনায় গত ১২ জুন তিনজনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরো ৩-৪ জনকে আসামি করে ফেনী সদর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন নিহত মঞ্জুরের প্রথম স্ত্রী। প্রায় এক মাস পর গত রবিবার রাতে চট্টগ্রাম নগরের আকবরশাহ থানার বিশ্ব কলোনি এলাকা থেকে দম্পতি মনি ও আইউবকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।

র‌্যাব-৭ র সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) মো. শরীফ-উল-আলম জানান, স্বামী আইউব খানকে সঙ্গে নিয়ে মঞ্জুরকে হত্যা করেন মনি।

তারা দেশীয় ধারালো অস্ত্র দিয়ে মঞ্জুরের শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম করেন এবং মুখমণ্ডল থেঁতলে দাঁত উপড়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে লাশ অজ্ঞাত স্থানে ফেলে পালিয়ে যান। আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার জন্য তাদের ফেনী সদর মডেল থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App