×
Icon এইমাত্র
কমপ্লিট শাটডাউন কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে কোটা আন্দোলনকারীরা বাংলাদেশ টেলিভিশনের মূল ভবনে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। বিটিভির সম্প্রচার বন্ধ। কোটা সংস্কার আন্দোলনে সারা দেশে এখন পর্যন্ত ১৯ জন নিহত কোটা ইস্যুতে আপিল বিভাগে শুনানি রবিবার: চেম্বার আদালতের আদেশ ছাত্রলীগের ওয়েবসাইট হ্যাক ‘লাশ-রক্ত মাড়িয়ে’ সংলাপে বসতে রাজি নন আন্দোলনকারীরা

খবর

বিআরটিএর এডি গোলাম হায়দার

ছয় মাস কর্মস্থলে অনুপস্থিত থেকেও পদোন্নতির তদবির

Icon

প্রকাশ: ০৫ জুলাই ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ প্রতিবেদক : বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) সহকারী পরিচালক (ইঞ্জি.) গোলাম হায়দার সরকার উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে যান। দাখিলকৃত অফার লেটার অনুযায়ী সময়সীমা শেষ হওয়ার আগেই ফের সময় বাড়ানোর আবেদন করেন। এতে আরো ৬ মাস সময়সীমা বাড়িয়ে দেয় কর্তৃপক্ষ। ওই ৬ মাস শেষে আরো ২ বছরের ছুটি বাড়ানোর আবেদন করেন তিনি। পরবর্তী সময়ে কর্তৃপক্ষ এক আদেশে স্পষ্টভাবে জানিয়ে দেয়, মুচলেকা (বন্ড) অনুযায়ী তার প্রেষণের আদেশ ১ বছর বৃদ্ধির আবেদন মঞ্জুর করার কোনো সুযোগ নেই। তাছাড়া মঞ্জুরকৃত ছুটি শেষে দেশে ফিরে কর্মস্থলে যোগদানের জন্য পুনরায় তাকে নির্দেশ দিয়ে চিঠি পাঠানো হয়। কিন্তু সেই আদেশ অমান্য করে যথাসময়ে কর্মস্থলে যোগ দেননি এই কর্মকর্তা। উল্টো বিদেশে অবস্থান করেই পদোন্নতি নিতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন তিনি।

বিআরটিএর তথ্যানুযায়ী, ২০২১ সালের ২ জুন বিআরটিএর ২২৭ নম্বর স্মারকের আদেশ মূলে যুক্তরাষ্ট্রের ‘লামার ইউরিভার্সিটি’তে উচ্চশিক্ষার্থে অধ্যয়ণরত ছিলেন সংস্থাটির সহকারী পরিচালক (ইঞ্জি.) গোলাম হায়দার। দাখিলকৃত অফার লেটারে সময়সীমা ছিল ২০২৩ সালের ২০ মে পর্যন্ত। তবে এই কর্মকর্তা আরো ৬ মাসের ছুটির আবেদন করলে প্রশিক্ষণ ও উচ্চশিক্ষা নীতিমালা ২০২৩ এর ২৫ (ক) (র) অনুযায়ী, প্রেষণে ২০২৩ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় বাড়িয়ে দেয় কর্তৃপক্ষ। এরপর ২০২৩ সালের ১৩ ডিসেম্বর পিএইচডি করার জন্য আরো ২ বছরের ছুটি বাড়ানোর আবেদন করেন এই কর্মকর্তা। বিদেশে অবস্থানরত অবস্থায় অন্যকোনো কোর্সে ভর্তির আবেদন ও ছুটি মঞ্জুরের কোনো সুযোগ না থাকায় ওই বছরের ১৯ ডিসেম্বর ২৫৯৬ নম্বর স্মারকে তাকে ছুটি শেষে কর্মস্থলে যোগদানের জন্য নির্দেশনা দেয় কর্তৃপক্ষ। পরবর্তী সময়ে তিনি ২৪ ডিসেম্বর প্রশিক্ষণ ও উচ্চশিক্ষা নীতিমালা-২০২৩ এর পরিপন্থি আরো ১ বছর সময় বাড়ানোর জন্য আবেদন করেন। এরপর বিআরটিএ কর্তৃপক্ষ ২৬৪৯ নম্বর স্মারকের এক আদেশে তাকে স্পষ্টভাবে জানিয়ে দেয়, ২০২১ সালের ২৩ মে তারিখে মঞ্জুরকৃত ছুটি শেষে দেশে ফিরে কর্মস্থলে যোগদান করতে হবে।

তবে এমন আদেশের পরও কর্মস্থলে যোগ দেননি গোলাম হায়দার। আদেশ অমান্য করে ৫ মাস ১৯ দিন ধরে বিদেশে অবস্থান করা এই কর্মকর্তা দেশে ফিরেই পদোন্নতি নিতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন। গত ১৯ জুন তিনি বিআরটিএতে যোগদানের জন্য পত্র জমা দিলেও সংস্থাটির সদ্য বিদায়ী চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মজুমদার তা মঞ্জুর করেনি। এরপর ৩০ জুন বিআরটিএর নতুন চেয়ারম্যান যোগদান করলে পুনরায় তৎপর হয়ে উঠেন গোলাম হায়দার। অভিযোগ উঠেছে, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা গোলাম হায়দারের প্রতিবেশী হওয়ায় এবার মন্ত্রণালয় থেকে জোর তদবির চালানোর প্রচেষ্টা করছেন তিনি। ফলে গোলাম হায়দার সরকারকে যোগদান, উপপরিচালক পদে পদোন্নতি এবং সিনিয়রিটি দেয়ার জন্য অনিয়মের আশ্রয় নেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

তবে এডি গোলাম হায়দার সরকারের দাবি, তিনি সবকিছু সরকারি আইন-কানুন মেনেই করেছেন। কোনো আইনে তিনি এমনটা করতে পারেন? এ প্রশ্নের জবাব না দিয়ে গোলাম হায়দার বলেন, এটি তার একান্ত ব্যক্তিগত বিষয়। তিনি পারিবারিক কাজে ব্যস্ত আছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিআরটিএর সদ্য বিদায়ী চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মজুমদার বলেন, ছুটি শেষেও যখন কর্মস্থলে যোগদান করেনি, তখনই আইন অনুযায়ী বিষয়টি মন্ত্রণালয়কে অবগত করে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশনা চাওয়া হয়। মন্ত্রণালয় কোনো ধরনের নির্দেশনা না দেয়ায় তার যোগদানপত্রটি মঞ্জুর করা হয়নি। যেহেতু সে আইন ও কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা অমান্য করেছে, সেহেতু তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়ার পরে যোগদান করতে পারবে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App