×
Icon এইমাত্র
কমপ্লিট শাটডাউন কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে কোটা আন্দোলনকারীরা বাংলাদেশ টেলিভিশনের মূল ভবনে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। বিটিভির সম্প্রচার বন্ধ। কোটা সংস্কার আন্দোলনে সারা দেশে এখন পর্যন্ত ১৯ জন নিহত কোটা ইস্যুতে আপিল বিভাগে শুনানি রবিবার: চেম্বার আদালতের আদেশ ছাত্রলীগের ওয়েবসাইট হ্যাক ‘লাশ-রক্ত মাড়িয়ে’ সংলাপে বসতে রাজি নন আন্দোলনকারীরা

খবর

মির্জা ফখরুল

শিগগির আন্দোলন বেগবান হবে, তবে হঠকারিতা নয়

Icon

প্রকাশ: ১৩ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ প্রতিবেদক : জাতীয় নির্বাচনের পর থেকে ‘সরকার পতনের’ আন্দোলনে ভাটা পড়লেও আবার একজোট হয়ে রাজপথে নামার ঘোষণা দিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। যুগপৎ আন্দোলনের নেতাদের উদ্দেশ করে তিনি বলেছেন, দ্রুতই সেই আন্দোলন ‘বেগবান’ হবে বলেও ‘হঠকারিতার প্রয়োজন নেই’।

গতকাল বুধবার বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির প্রতিষ্ঠার দুই দশক পূর্তি উপলক্ষে সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির কার্যালয়ে আয়োজিত অনুষ্ঠানে মির্জা ফখরুল এসব কথা বলেন। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, আমাদের ইতোমধ্যে অনেক অর্জন হয়েছে। সবচেয়ে বড় অর্জন হলো, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলোর একেকজনের একেক চিন্তা আছে, কেউ বাম চিন্তার, কেউ ডান চিন্তার, আবার কেউ ‘অতি বাম’ চিন্তার। সবগুলোকে মিলিয়ে আমরা আন্দোলনে একমত হয়েছি।

ফখরুল বলেন, অত্যন্ত আনন্দের সঙ্গে আমি বলি, কোনো রাজনৈতিক দলই এই সরকারের পক্ষে থাকেনি, তাদের সমর্থন করেনি। এটা আন্দোলনের একটা বড় সাফল্য। কেউ নির্বাচনে যায়নি, একমাত্র এই জাতীয় পার্টি ছাড়া। নির্বাচন শেষে নতুন সরকার আসার পর রাজপথে সেভাবে বিএনপির কর্মসূচি না থাকলেও আন্দোলন ‘শেষ হয়ে যায়নি’ জানিয়ে ফখরুল বলেন, আন্দোলন আমাদের এখনো চলছে, সেই আন্দোলন নিঃসন্দেহে আরও বেগবান হবে খুব শিগগিরই।

জনগণ এই সরকারকে ‘চায় না’ দাবি করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, এটা আমাদের বিশ্বাস করতে হবে। জনগণের ‘না চাওয়ার’ যে ইচ্ছা, আমরা সেটাকে কী করে ইতিবাচক কাজে নিয়ে গিয়ে তাদের (সরকার) পরাজিত করতে পারি, সেই কাজটি আমাদের করতে হবে। আন্দোলন নিয়ে সতর্কভাবে আগানোর তাগিদও দেন ফখরুল। বলেন, হঠকারিতা করার প্রয়োজন নেই, স্থান নেই। আমরা সবাই আলোচনা করে, সবাই একমত হয়ে এই সরকার সরাতে পারি, কীভাবে আমরা গণতন্ত্রকে পুনরুদ্ধার করতে পারি, ভোটের অধিকার ফিরিয়ে আনতে পারি, মানুষের অধিকার ফিরিয়ে আনতে পারি সেই লক্ষ্যে আমরা সংগ্রাম করছি, আমাদের সংগ্রাম করতে হবে।

যারা যুগপৎ আন্দোলনে আছেন, তাদের বক্তব্য দেয়ার সময় সতর্ক থাকারও তাগিদ দিয়েছেন এই বিএনপি নেতা। তিনি বলেন, ঐক্য দৃঢ় করার জন্য আপনারা এখানে যারা আছেন, সবাই কাজ করছেন। আমি একটাই অনুরোধ করব, আপনারা এমন কোনো কথা বলবেন না যাতে এই ঐক্যে কখনো বিভক্তি সৃষ্টি হয়, ঐক্য বিনষ্ট হয়। গণতন্ত্র মঞ্চের নেতা মাহমুদুর রহমান মান্না, জোনায়েদ সাকির বক্তব্য তুলে ধরে ফখরুল বলেন, কৌশল বদলাতে পারে কিন্তু আমাদের ঐক্য এক। আমাদের লক্ষ্য একটাই এই সরকারকে সরাতে হবে।

বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হকের সভাপতিত্বে কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আকবর খানের সঞ্চালনায় মতবিনিময়ে জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) মোস্তফা জামাল হায়দার, নাগরিক ঐক্যের মাহমুদুর রহমান মান্না, গণসংহতি আন্দোলনের জোনায়েদ সাকি, গণফোরামের সুব্রত চৌধুরী, রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলনের হাসনাত কাইয়ুম, জেএসডির শহিদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন, এবি পার্টির এএফএম সোলায়মান চৌধুরী, জাতীয় মুক্তি কাউন্সিলের ফয়জুল হাকিম, ইসলামী আন্দোলনের আশরাফ আলী আখন্দ, জাতীয় দলের সৈয়দ এহসানুল হুদা, বিএলডিপির শাহাদাত হোসেন সেলিম প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App