×

খবর

সংসদে সরকারি দলের এমপিরা

বাজেট বিনিয়োগবান্ধব গণমুখী ও কল্যাণকর

Icon

প্রকাশ: ১২ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ প্রতিবেদক : ২০২৪-২৫ অর্থবছরের ৮ লাখ কোটি টাকার এ বৃহৎ বাজেটকে গণমুখী, কল্যাণকর, বিনিয়োগবান্ধব ও নারীবান্ধব বাজেট বলে অভিহিত করেছেন সরকারি দলের এমপিরা। তারা বলেছেন, এ বাজেট বাস্তবায়নের ফলে দেশ আরো উন্নয়নের দিকে ধাবিত হবে। দেশের অর্থনীতি, স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও অবকাঠামোগত প্রভূত উন্নয়ন ঘটবে। এ বাজেট জনবান্ধব। গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় তারা এমন মন্তব্য করেন।

জামালপুর-১ আসনের এমপি নূর মোহম্মদ বলেন, দেশে বর্তমানে শেয়ারবাজারের খারাপ অবস্থা, শুয়ে পড়েছে। এই খাতে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ রাখতে পারেন অর্থমন্ত্রী। তবে বাজেটে সামাজিক নিরাপত্তা খাতে ১০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত ইতিবাচক।

তিনি বলেন, ঘাটতি বাজেট পূরণে সরকার ব্যাংক খাত থেকে ঋণ নিলে বেসরকারি খাত ঝুঁকিতে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। প্রস্তাবিত বাজেটে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেয়া নিয়ে সবচেয়ে বেশি সমালোচনা হচ্ছে। অতীতেও এমন সুযোগ দেয়া হয়েছে। কোনো ইতিবাচক ফলাফল দেখিনি। ফ্লাট ক্রয়ে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেয়া হয়েছে। দেখা যাক আবাসন খাত চাঙা হয় কিনা।

তিনি আরো বলেন, আমাদের দল ও সরকারের দুর্নীতির বিরুদ্ধে অবস্থান জিরো টলারেন্স। কিন্তু দুর্নীতি এখন সবচেয়ে বেশি উচ্চারিত। এমন সব ব্যক্তির নাম আসছে যা সামগ্রিকভাবে আমাদের জন্য বিব্রতকর। বাংলাদেশের কিছু মানুষ দ্রুত ধনী হয়ে যাচ্ছে। কিছু রাজনীতিক, সরকারি কর্মকর্তা বিপুল পরিমাণ অপ্রদর্শিত অর্থের মালিক হয়ে গেছে। প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেছেন। যে কোনো মূল্যে বাংলাদেশ থেকে দুর্নীতি উচ্ছেদ করতে চাই।

এমপি এস এম কামাল হোসেন বলেন, এবারের বাজেট দেশের আরো উন্নয়নে সহায়ক হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী আছেন বলে আজ পদ্মা সেতু হয়েছে। টানেল হয়েছে।

এমপি নাইমুন জামান ভূঁইয়া উত্তরবঙ্গের জন্য কৃষি ও পর্যটন খাতে আরো বেশি অর্থ বরাদ্দ দেয়ার আহ্বান জানান। বেগম হাবিবুন নাহার তার বক্তব্যে বলেন, খুলনা, সাতক্ষীরা বাগেরহাটসহ দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে ঝড়ের তাণ্ডবে বিরাট ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ঘর-বাড়ি নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। মাছের ঘের ভেসে গেছে। এসব ক্ষতিগ্রস্ত মানুষকে সহায়তা দেয়ার আহ্বান জানান তিনি।

রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলী বলেন, যারা ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে টাকা দিচ্ছে না। পাচার করে দিচ্ছে। তাদের তালিকা করে টাকা আদায়ের ব্যবস্থা করা উচিত। অর্থমন্ত্রীর এ দিকে দৃষ্টি দেয়া দরকার। মূল্যস্ফীতি কমিয়ে বাজেট বাস্তবায়ন করতে হবে। যারা ট্যাক্স দেয় না তাদের ট্যাক্সের আওতায় এনে বাজেট বাস্তবায়ন করা দরকার।

মো. তহিদুজ্জামান বলেন, বাজেট ঘোষণার পরে জনগণ খুশি হয়েছে। এ বাজেটের ফলে দেশের উন্নয়ন ঘটবে বলে মনে করি। বিরোধী দল ও টকশোতে কেউ কেউ মনে করেন এ বাজেট উচ্চাভিলাষী। এটা বাস্তবায়নযোগ্য নয়। এটা ঠিক নয়। কালো টাকা সাদা করার বিষয়ে তিনি বলেন, বিএনপির অর্থমন্ত্রী সাইফুর রহমান কিন্তু বাজেটে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দিয়েছিলেন। কিন্তু আজ তারা সমালোচনা করছে।

ময়মনসিংহ-৩ আসনের সংসদ সদস্য নিলুফার আনজুম বলেন, নারীদের প্রজনন স্বাস্থ্য রক্ষায় স্যানিটারি ন্যাপকিনের মতো পণ্যে ভর্তুকি দেয়া প্রয়োজন। বাজেটে আরো নারীবান্ধব কর্মসূচি বাস্তবায়নের দাবি জানান তিনি।

বাজেটের ওপর আরো বক্তব্য রাখেন এমপি আবুল কালাম আজাদ, মাঈনুল হোসাইন নিখিল, আশরাফুন্নেসা, মাহবুবুর রহমান, মোস্তাফা আলম, নিলুফার আনজুম, এইচ এম ইব্রাহীম, স্বতন্ত্র সদস্য হামিদুল হক খন্দকার ও নাদিয়া বিনতে আমিন প্রমুখ।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App