×

খবর

ভোরের কাগজে সংবাদ প্রকাশের ফল

বাকলিয়ার চরে বর্জ্য শোধনাগার বন্ধে আইনি নোটিস

Icon

প্রকাশ: ১২ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

চট্টগ্রাম অফিস : কর্ণফুলী নদীর মাঝখানের বাকলিয়ার চরে (দ্বীপে) বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন প্রকল্প বন্ধ করতে সরকারের ছয় সংস্থা/বিভাগ/কর্মকর্তাকে আইনি নোটিস দিয়েছে পরিবেশবাদী সংগঠন চট্টগ্রাম নদী ও খাল রক্ষা আন্দোলন। গতকাল মঙ্গলবার স্থানীয় সরকার বিভাগ; ভূমি মন্ত্রণালয়; পরিবেশ, বন ও জলবায়ুপরির্তন মন্ত্রণালয়ের সচিব, চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও জাতীয় নদী কমিশনের চেয়ারম্যানকে এই নোটিস পাঠান চট্টগ্রাম নদী ও খাল রক্ষা আন্দোলনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট আলী আজম।

নোটিসে উল্লেখ করা হয়, নদীর দ্বীপে বর্জ্য শোধনাগার হলে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের বর্জ্য কর্ণফুলী নদীকে হত্যা করবে। প্রকল্পটি চট্টগ্রাম জেলার অন্য যে কোনো সুবিধাজনক স্থানে সরিয়ে নেয়া হোক।

নোটিস পাওয়ার সাত দিনের মধ্যে প্রকল্প স্থাপন পরিকল্পনা বন্ধ করে বাকলিয়ার চরে কর্ণফুলী তীরের এখনো টিকে থাকা ও বিলুপ্ত প্রজাতির গাছের বাগান সৃষ্টির ঘোষণা না দিলে হাইকোর্টে রিট করা হবে বলে ঘোষণা দেয়া হয়।

এ বিষয়ে চট্টগ্রাম নদী ও খাল রক্ষা আন্দোলনের উপদেষ্টা ও সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আলী আজম বলেন, জনস্বার্থে সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে এই নোটিস দেয়া হয়েছে। নদীর মাঝখানের দ্বীপে বর্জ্য শোধনাগার প্রকল্প বাস্থবায়িত হলে নদীর স্বাভাবিক প্রবাহ নষ্ট এবং ভয়াবহ দূষণের শিকার হবে কর্ণফুলী। তিনি বলেন, প্রকল্পটি অন্যত্র সরিয়ে নিতে একাধিক সংগঠন দীর্ঘ তিন মাস ধরে সামাজিক আন্দোলন করছে। স্থানীয় সরকার বিভাগ অথবা সিটি করপোরেশন কেউ তা আমলে না নিয়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া এগিয়ে নিচ্ছে। যে কারণে কর্ণফুলী নদীকে রক্ষা করতেই আমরা আইনি পদক্ষেপ গ্রহণ করছি।

উল্লেখ্য, কর্ণফুলী নদীকে বাকলিয়ার চর নামক বর্ণিল উদ্ভিদ ও জীব বৈচিত্র্যপূর্ণ দ্বীপটিতে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মাধ্যমে নগরীর ময়লা আবর্জনা ডাম্পিং করে সেই বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের একটি প্রকল্প বাস্তবায়নে উদ্যোগ নেয় স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়।

গত ১৯ মার্চ ভোরের কাগজে ‘কর্ণফুলীর চরে বর্জ্য শোধনাগার’ শীর্ষক একটি সচিত্র সংবাদ প্রকাশিত হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ নদী রক্ষা কমিশন গত ১ এপ্রিল সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরে কর্ণফুলী নদী রক্ষার জন্য একটি নোটিস পাঠায়। এর পর পরই বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে এ ব্যাপারে বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। বিভিন্ন পরিবেশ ও সামাজিক সংগঠন, চট্টগ্রামের নদী রক্ষা কমিটিসহ বিভিন্নœ সংগঠন এ ব্যাপারে সোচ্চার হয়ে ওঠে। এই আন্দোলনে সক্রিয় ভূমিকা পালনকারী পরিবেশ সংগঠক ও সাংবাদিক আলীউর রহমান ভোরের কাগজকে বলেন, আমরা নিয়মতান্ত্রিক ও আইনগত সব প্রক্রিয়া চালিয়ে যাবে কর্ণফুলী নদী রক্ষায়।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App