×

খবর

হাতিবান্ধা সীমান্তে কৃষক গুলিবিদ্ধ

বিএসএফের সঙ্গে পাল্টাপাল্টি ধাওয়া গ্রামবাসীর

Icon

প্রকাশ: ০৯ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

শেখ জাহাঙ্গীর আলম শাহীন, লালমনিরহাট : জেলার হাতীবান্ধা উপজেলার সিঙ্গিমারী বর্ডারে গত শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৪টায় সীমান্তে কৃষিকাজ করার সময় ভারতীয় বিএসএফ বাংলাদেশের ভেতরে ঢুকে পরপর কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়ে। এ সময় জমিতে কৃষি কাজরত কৃষক আলতাফ হোসেন (৫৫) গুলিবিদ্ধ হন। বিএসএফর সঙ্গে নিরস্ত্র গ্রামবাসীর ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়া হয়। এই ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়ায় বেশ কয়েকজন গ্রামবাসী আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় সীমান্ত গ্রামটিতে উত্তেজনা বিরাজ করছে। গতকাল শনিবার গ্রামটিতে গিয়ে দেখা যায় মামলার ভয়ে পুরুষ শূন্য হয়ে পড়েছে গ্রামটি।

সীমান্তের গ্রামবাসী ও বিজিবি সূত্রে জানা যায়, রংপুর ৬১ বিজিবির অধীনে থাকা তিস্তা ব্যাটালিয়ন-২ সিংগীমারি বিওপির আওতাধীন পকেট পাড়া নামক স্থানের সীমান্ত পিলার নম্বর- ৮৯২/৮ ও ৯ এস সংলগ্ন পিলারের মাঝামাঝি এলাকায় শুক্রবার বিকালে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী (বিএসএফ) বাংলাদেশে অবৈধভাবে অনুপ্রবেশ করে। প্রত্যক্ষদর্শী গ্রামবাসী সোলাইমান আলী বলেন, বিএসএফ সদস্যরা অস্ত্র উঁচিয়ে মারমুখী হয়ে বাংলাদেশের গ্রামে প্রবেশ করে। তখন নিরীহ নিরস্ত্র গ্রামবাসীরা জোটবদ্ধ হয়ে তাদের বাধা দেয়। তিনি বলেন, এমন একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। সত্য-মিথ্যা সেখানে প্রমাণ হয়ে যাবে।

গ্রামবাসীদের মধ্যে কেউ একজন ভিডিওটা করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়েছে। আতঙ্ক ছড়াতে বিএসএফ নিরীহ গ্রামবাসীর ধানের খড়ে আগুন পর্যন্ত দিয়েছে। সীমান্ত গ্রামে অবৈধ অনুপ্রবেশকারীরা ভারতের নগর সিংগীমারী ১৫৭ বিএসএফ ব্যাটালিয়ন ক্যাম্পের টহলরত সদস্য। তারা সম্ভবত মদ্যপ ছিল। মাতালের মতো আচরণ করেছে। গ্রামে ঢুকেই তারা পরপর কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়ে।

বিজিবির একটি সূত্র বলেছে, ৩ রাউন্ড রাবার বুলেট ফায়ার করেছে। এ সময় বাংলাদেশি নাগরিক সিঙ্গিমারী গ্রামের মৃত বাদশা শেখের ছেলে কৃষক মো. আলতাফ হোসেন (৫৫) বিএসএফের ছোড়া গুলিতে গুলিবিদ্ধ হন। তাৎক্ষণিকভাবে তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সিঙ্গিমারী গ্রামের গৃহবধূ রহিমা (৪৫) বলেন, হঠাৎ চিৎকার চেঁচামেচি শুনে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখি, বিএসএফ সদস্যরা গ্রামে ঢুকে যাকে পাচ্ছে তাকেই পেটাছে। আত্মরক্ষায় গ্রামবাসীরা জোটবেঁধে বিএসএফকে ধাওয়া করে।

প্রায় ঘণ্টাব্যাপী গ্রামবাসীদের সঙ্গে বিএসএফের ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়া হয়। এ সময় তিস্তা ব্যাটালিয়ন দুইয়ের অধীনে থাকা সিঙ্গিমারী বিজিবি ক্যাম্পে খবর দিলেও তারা সঙ্গে সঙ্গে এগিয়ে আসেননি। এ সময় বিএসএফর ছুড়া গুলি ও লাঠির আঘাতে বেশ কয়েক জন গ্রামবাসী গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হন। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর গ্রেপ্তার এড়াতে ভয়ে তারা নামপ্রকাশ করছে না।

সিঙ্গিমারী বিজিবি ক্যাম্প সূত্রে জানা গেছে, সীমান্তে নিরীহ কৃষক গুলিবিদ্ধ হওয়া ও উত্তেজনার ঘটনায় তাৎক্ষণিক বিজিবি-বিএসএফ পতাকা বৈঠক করে প্রতিবাদ জানানো হয়। পতাকা বৈঠকে নিরীহ কৃষক গুলিবিদ্ধ হওয়ায় বিএসএফ দুঃখ প্রকাশ করে। সেসঙ্গে তারা দাবি করেন, তাদের ওপর চোরাকারবারিরা একত্রিত হয়ে হামলা করেছে।

৬১ বিজিবির বিওপি তিস্তা ব্যাটালিয়ন-২ এর সিঙ্গিমারী বিওপি ক্যাম্প কমান্ডার বাদী হয়ে শুক্রবার রাতেই হাতীবান্ধা থানায় ভারতে অবৈধ অনুপ্রবেশের দায়ে পাঁচজন চোরাকারবারির নামে মামলা দায়ের করেছে। পতাকা বৈঠকে উপস্থিত সিঙ্গিমারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মনোয়ার হোসেন বলেন, বিএসএফ দাবি করে তাদের ওপর চোরাকারবারিরা হামলা করেছে। আতœরক্ষায় তারা রবার বুলেট ছুড়তে বাধ্য হয়েছে। কৃষক গুলিবিদ্ধ হওয়ায় দুঃখ প্রকাশ করেছে। এ ঘটনায় ভারতে অনুপ্রবশের দায়ে পাঁচজনকে আসামি করে হাতীবান্ধা থানায় সিঙ্গিমারী তিস্তা বিজিবির-২ এর বিওপি ক্যাম্পের কমান্ডার নায়েক সুবেদার মোহাম্মদ শফিজুল বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন। মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হাতীবান্ধা থানর ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম। তিস্তা ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক ও সেকেন্ড ইন কমান্ড দুজনের কেউ ফোন দিলে ফোন রিসিভ করেননি। সিঙ্গিমারী বিওপি কমান্ডা ফোন রিসিভ করে সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে ব্যস্ত আছি বলে ফোন রেখে দেন।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App