×

খবর

জামালপুরে চুরি হওয়া ধর্মমন্ত্রীর আইফোন মালয়েশিয়ায় উদ্ধার

Icon

প্রকাশ: ০৬ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ প্রতিবেদক : জামালপুরে একটি জানাজায় অংশ নিতে গিয়ে ধর্মমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খানের মোবাইল ফোন চুরি হয়। ওই ঘটনায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) দায়ের হওয়ার পর তদন্তে নেমে চোরকে শনাক্ত করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম বিভাগ (উত্তর)। তদন্তের একপর্যায়ে বেরিয়ে আসে কয়েক হাত ঘুরে আইফোনটি চলে গেছে মালয়েশিয়ায়। পরে আইফোন চুরি করা যুবকসহ চোর চক্রের ৯ সদস্যকে গ্রেপ্তার করে ডিবি জানতে পারে, সারাদেশে তাদের ছোট ছোট ৮০টি গ্রুপ রয়েছে। যারা রাজনৈতিক সভা-সমাবেশ, সরকারি-বেসরকারি অনুষ্ঠান, বিভিন্ন হাটবাজার, জানাজাসহ জনসমাবেশস্থল টার্গেট করে চুরি করে থাকে। মন্ত্রীর আইফোন চুরি হওয়ার প্রায় দেড় মাস পর মালয়েশিয়া থেকে ফোনসেটটি ফেরতও এনেছে ডিবি। গতকাল বুধবার দুপুরে রাজধানীর মিন্টো রোডে ডিবি কার্যালয়ের এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (ডিবি) মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ। ফোন চুরির ক্ষেত্রে জিডি না করে সরাসরি চুরির মামলা করার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

ধর্মমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খানের মোবাইল ফোন উদ্ধার বিষয়ে ডিবিপ্রধান বলেন, গত ৩০ এপ্রিল জামালপুরে ইসলামপুরের মোশাররফগঞ্জে এক জানাজায় অংশ নিতে গিয়ে মন্ত্রীর পকেট থেকে মোবাইল ফোনটি চুরি হয়। ওই ঘটনায় মন্ত্রীর সহকারী একটি জিডি করেন। এরপর থেকে মোবাইল ফোনটি উদ্ধারে কাজ শুরু করে ডিবির সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম বিভাগ। দীর্ঘ তদন্ত শেষে মালয়েশিয়া থেকে মন্ত্রীর আইফোনটি উদ্ধার করা হয়। ওই ঘটনায় মোবাইল ফোন চোর চক্রের হোতাসহ ৯ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

ঢাকায় কাজ করা চক্রটি কখনো পকেট মারে, কখনো ছোঁ মেরে মোবাইল নিয়ে যায়, আবার কখনো ছিনতাই করে। আর ঢাকার বাইরে চক্রের সদস্যরা বড় কোনো জনসমাবেশকে টার্গেট করে চুরি করে। চক্রের কোনো সদস্য চুরি করতে গিয়ে ধরা পড়লে অন্য সদস্যরা ভুক্তভোগীকে ঘিরে রেখে তাদের সদস্যদের পালাতে সাহায্য করে। ঢাকাসহ সারাদেশে এই চক্রের ৮০টি গ্রুপ রয়েছে। এসব গ্রুপের নেতৃত্ব দেয় জাকির হোসেন। তাকেসহ চক্রের ৯ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তার অন্যরা হলেন- মাসুদ শরীফ, মো. জিয়াউল মোল্লা জিয়া, রাজিব খান মুন্না, আল আমিন মিয়া, আনোয়ার হোসেন ওরফে সোহেল, রাসেল, খোকন আলী ও বিল্লাল হোসেন। এ সময় তাদের কাছ থেকে অনেক চোরাই মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়।

ডিবিপ্রধান আরো বলেন, ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে চুরি বা ছিনতাই করে আনা ফোনগুলো জাকিরের কাছে জমা দিত চক্রের সদস্যরা। জাকির দামি মোবাইলগুলো বিদেশে থাকা চক্রের সদস্যদের কাছে পাঠিয়ে দেয়। বিশেষ করে মালয়েশিয়া, ভারত ও দুবাই। বিদেশে পাঠানোর জন্য প্রথমে চট্টগ্রামের রিয়াজউদ্দিন মার্কেটে থাকা চক্রের সদস্যদের কাছে পাঠাত। পরে সেখান থেকে কুরিয়ারের মাধ্যমে বিভিন্ন দেশে পাচার করে দিত।

যেভাবে হাতবদল হয় মন্ত্রীর আইফোন : জামালপুরে জানাজায় অংশ নেয়ার পর ধর্মমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খানের পকেট থেকে মুন্না নামে চক্রের এক সদস্য মোবাইল ফোনটি চুরি করে। এরপর সেটি আসে রাসেলের কাছে। রাসেল ৫০ হাজার টাকায় বিক্রি করে বোরহানের কাছে। এরপর সেই মোবাইল কামরুজ্জামান হিরু নামে একজনের কাছে দেয় বোরহান। হিরু মোবাইলটি মালয়েশিয়ায় পাঠিয়ে দেয়। তাদের গ্রেপ্তারের পর চক্রের সদস্যরা মালয়েশিয়া থেকে মোবাইল ফোনটি ঢাকায় পাঠায়। ডিবিপ্রধান বলেন, মোবাইল ফোন চোর চক্রের সদস্যরা আমলা বা সরকারি কর্মকর্তা এবং রাজনৈতিক ব্যক্তিদের টার্গেট করত। এ চক্রটি অন্তত ১০ হাজার মোবাইল ফোন চুরি করেছে বলে জানালেন এই পুলিশ কর্মকর্তা।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App