×

খবর

দুদক কমিশনার

বেনজীর দুদকে না এলেই ধরে নেব তার বক্তব্য নেই

Icon

প্রকাশ: ০৫ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ প্রতিবেদক : পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ আগামী ৬ জুন যদি দুদকে না আসেন, তাহলে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) ধরে নেবে তার কোনো বক্তব্য নেই। তবে তিনি যদি সময় চেয়ে আবেদন করেন সেক্ষেত্রে অনুসন্ধান কর্মকর্তা তাকে ১৫ দিন সময় দিতে পারবে। গতকাল মঙ্গলবার দুদকের প্রধান কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন দুদক কমিশনার জহরুল হক।

পুলিশের সাবেক এই শীর্ষ কর্মকর্তা সপরিবারে দেশত্যাগ করেছে কিনা, জানতে চাইলে দুদক কমিশনার বলেন, বেনজীর দেশে আছে নাকি বিদেশে গেছেন, এ সংক্রান্ত কোনো সুনির্দিষ্ট তথ্য আমাদের কাছে নেই। বেনজীরকে তলবের বিষয়ে জানতে চাইলে জহুরুল হক বলেন, দুদক কাউকে নোটিস করলে তিনি আসতে বাধ্য কিনা, সেটা আইনে সুস্পষ্ট বলা নেই। তবে না এলে ধরে নিতে হবে তার কোনো বক্তব্য নেই। তবে তার সুযোগ আছে সময় চাওয়ার। সময় চাইলে দুদক ১৫ দিন সময় দিতে পারবে। এই এখতিয়ার কমিশনের রয়েছে।

সময় দেয়ার পরও যদি তিনি দুদকে না আসেন তাহলে ধরে নিতে হবে তার কোনো বক্তব্য নেই। তখন নথিপত্র দেখে যদি অভিযোগ প্রমাণিত হয় হবে, না হলে নয়। অনুসন্ধানের স্বার্থে যা যা করণীয় সবই করা হচ্ছে উল্লেখ করে জহুরুল হক বলেন, অভিযুক্ত ব্যক্তির অনুপস্থিতিতেও বিচার হবে, এতে কোনো বাধা নেই।

গত ৩১ মার্চ ‘বেনজীরের ঘরে আলাদীনের চেরাগ’ এবং ৩ এপ্রিল ‘বনের জমিতে বেনজীরের রিসোর্ট’ শিরোনামে একটি দৈনিক পত্রিকায় প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এতে সাবেক আইজিপি বেনজীর আহমেদ ও তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ উঠে আসে। অভিযোগ যাচাই-বাছাই শেষে অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নেয় দুদক। অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে ইতোমধ্যে বেনজীর আহমেদকে ৬ জুন এবং তার স্ত্রী জীশান মীর্জা ও দুই মেয়েকে ৯ জুন জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করা হয়। যদিও একাধিক নির্ভরযোগ্য সূত্র নিশ্চিত করে বলছে- বেনজীর গত ৪ মে সপরিবারে দেশত্যাগ করেন। দেশত্যাগের আগে তিনি এবং তার পরিবারের সদস্যদের নামে ৩৩টি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে শত কোটি টাকা উত্তোলন করেছেন বলে প্রমাণ পেয়েছে দুদক।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App