×
Icon এইমাত্র
কমপ্লিট শাটডাউন কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে কোটা আন্দোলনকারীরা বাংলাদেশ টেলিভিশনের মূল ভবনে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। বিটিভির সম্প্রচার বন্ধ। কোটা সংস্কার আন্দোলনে সারা দেশে এখন পর্যন্ত ১৯ জন নিহত কোটা ইস্যুতে আপিল বিভাগে শুনানি রবিবার: চেম্বার আদালতের আদেশ ছাত্রলীগের ওয়েবসাইট হ্যাক ‘লাশ-রক্ত মাড়িয়ে’ সংলাপে বসতে রাজি নন আন্দোলনকারীরা

খবর

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল

মাদ্রাসা শিক্ষার্থীরা স্মার্ট দেশ গড়তে ভূমিকা রাখবে

Icon

প্রকাশ: ০৩ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

ঢাবি প্রতিনিধি : নতুন প্রজন্ম বিশেষ করে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীরা ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত-স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে ভূমিকা রাখবে বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। গতকাল শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) মিলনায়তনে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের নিয়ে ছাত্রলীগ আয়োজিত ‘আমাদের বঙ্গবন্ধু’ শীর্ষক বক্তৃতা প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্ব ও পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। ছাত্রলীগ সভাপতি সাদ্দাম হোসেনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা ও সংস্কৃতিবিষয়ক উপদেষ্টা ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী।

কওমি মাদ্রাসা শিক্ষাব্যবস্থা সম্পর্কে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী কওমি মাদ্রাসার লক্ষাধিক শিক্ষার্থীকে প্রাতিষ্ঠানিক স্বীকৃতি দিয়েছেন। যার ফলে তিনি আলেম, হাফেজদের কাছে ‘কওমি জননী’ উপাধি পেয়েছেন। ইসলামেই অসাম্প্রদায়িক চেতনার কথা বলা হয়েছে। তাই আমরাও বাংলাদেশকে অসা¤প্রদায়িক চেতনায় রূপ দেয়ার চেষ্টা করছি।

তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু সবসময়ই অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র গঠনে কাজ করেছেন। তিনি সাধারণ শিক্ষার পাশাপাশি মাদ্রাসা শিক্ষার প্রসারে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন। কাকরাইল মসজিদের সম্প্রসারণের কাজ, হজ্জ্ব যাত্রীদের জন্য সরকারি অনুদান, বিশ্ব ইজতেমার সম্প্রসারণেও তিনি ছিলেন অগ্রগন্য। বৈদেশিক কূটনীতিক তৎপরতায় তিনি ছিলেন অনন্য। ১৯৬৬ সালেই বঙ্গবন্ধু স্বাধীন বাংলাদেশের রূপরেখা প্রণয়ন করেছিলেন। মাহাথির মোহাম্মদ যেমন মালেশিয়াকে পরিবর্তন করেছিলেন, তেমনি বঙ্গবন্ধুও সাড়ে ৩ বছর ক্ষমতায় বসে তা দেখিয়ে দিয়েছেন উল্লেখ করে মন্ত্রী আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু যদি আরো ৫ বছর ক্ষমতায় থাকতে পারতেন তবে বাংলাদেশ মালেশিয়ার চেয়েও দ্রুত উন্নত হতো।

১০০০ জনের প্রাথমিক পর্ব থেকে বাছাই হয়ে বিভিন্ন মাদ্রাসার ১০ জন শিক্ষার্থী বক্তৃতা প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্বে অংশ নেন। এতে প্রথম হয়েছেন তা’মীরুল মিল্লাত কামিল মাদ্রাসা টঙ্গীর শিক্ষার্থী হাসনাইন রেজা। দ্বিতীয় ও তৃতীয় হয়েছেন যথাক্রমে ডেমরার দারুননাজাত সিদ্দিকিয়া কামিল মাদ্রাসার শিক্ষার্থী ইয়াসিনুর রহমান জিহাদ এবং বগুড়ার ঠনঠনিয়া নুরুনআলা নুর কামিল মাদ্রাসার শিক্ষার্থী আব্দুল মোত্তালিব। পুরস্কার হিসেবে বই, মেডেল, ল্যাপটপসহ প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অর্জনকারীকে যথাক্রমে এক লক্ষ, পঞ্চাশ হাজার ও ত্রিশ হাজার টাকা প্রদান করা হয়।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App