×

খবর

নদীতে পানি বাড়ায় সিলেট অঞ্চলে ‘স্বল্পমেয়াদি বন্যা’ দেখা দিতে পারে

ফের ভ্যাপসা গরম শুরু উত্তরে বন্যার পূর্বাভাস

Icon

প্রকাশ: ৩০ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

ফের ভ্যাপসা গরম শুরু উত্তরে বন্যার পূর্বাভাস

কাগজ প্রতিবেদক : ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাব কেটে যাওয়ার পর ফের বাড়তে শুরু করেছে গরম। তাপমাত্রা তেমন একটা না বাড়লেও ভ্যাপসা গরমে অতিষ্ঠ হয়ে ওঠছে জনজীবন। গতকাল বুধবার এমন গরম অনুভব করেছে মানুষ।

এপ্রিলের শুরু থেকে তীব্র গরমের অনুভূতির সঙ্গে এখনকার অনুভূতির পার্থক্যও আছে। রোদ না থাকলেও ঘেমে ভিজে যাচ্ছে শরীর। গতকাল ঢাকা মহানগরীতে তেমন রোদের তাপ না থাকলেও ছিল প্রচণ্ড ভ্যাপসা গরম। এদিকে আবাহওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, আগামী সপ্তাহে দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু টেকনাফ উপকূল পর্যন্ত চলে আসতে পারে। নদীতে পানি বাড়ায় সিলেট অঞ্চলে ‘স্বল্পমেয়াদি বন্যা’ দেখা দিতে পারে।

গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় আবহাওয়ার ৭২ ঘণ্টার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। গতকাল বুধবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল রাজশাহীতে, ৩৬ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। রাজধানীতে তাপমাত্রা ছিল ৩৪ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস, বাতাসের আদ্রতা ৭৪ শতাংশ। তবে রংপুর, রাজশাহী ও খুলনা বিভাগে তাপমাত্রা ছিল বেশি। খুলনায় তাপমাত্রা ছিল ৩৪ দশমিক ৬, যশোরে ৩৫ দশমিক ৬, চুয়াডাঙ্গায় ৩৫ দশমিক ৫, ঈশ্বরদীতে ৩৫ দশমিক ৮, রংপুরে ৩৫ দশমিক ২, দিনাজপুর, ডিমলা ও সৈয়দপুরে ৩৬, ময়মনসিংহে ৩৩ দশমিক ৩, সিলেটে ২৮ দশমিক ১, চট্টগ্রামে ৩৩ দশমিক ৬ এবং বরিশালে ৩৪ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বেশি বৃষ্টিতে বাতাসে আর্দ্রতা বেড়েছে। বুধবার মেঘ কেটে যাওয়ায় সূর্যকিরণ সরাসরি পড়ছে, তাতে তাপমাত্রাও বাড়ছে। এমন গরমের সময় আর্দ্রতা বাড়ায় অস্বস্তিকর অনুভূতিও বেড়েছে। শরীর ঘেমে যাচ্ছে অল্পতেই।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, সিলেট ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত স্থল নিম্নচাপটি পূর্ব দিকে অগ্রসর ও দুর্বল হয়ে আসাম ও তৎসংলগ্ন এলাকায় লঘুচাপ আকারে অবস্থান করছে। এটি গুরুত্বহীন হয়ে পড়েছে।

লঘুুচাপের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ থেকে উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। ঘূর্ণিঝড় রেমাল গত রবিবার রাতে উপকূলে আঘাত হানার পর দুর্বল হয়ে স্থল নিম্নচাপে পরিণত হয়। এরপর এটি খুলনা থেকে মানিকগঞ্জ-টাঙ্গাইল-ময়মনসিংহ হয়ে সিলেট দিয়ে সীমান্ত অতিক্রম করে ভারতের মেঘালয়ে প্রবেশ করে।

সিলেটে গতকাল সর্বোচ্চ বৃষ্টি হয়েছে ৬২ মিলিমিটার। এছাড়া অন্যান্য ৬টি এলাকায় সামান্য বৃষ্টিপাত হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিভাগের দুয়েক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া দেশের অন্যত্র অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে।

নিম্নাঞ্চলে বন্যার আভাস : বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রে থেকে আগামী কয়েক দিনে নদনদীতে পানি বৃদ্ধি এবং অঞ্চল ভেদে বন্যার সতর্কতা দেয়া হয়েছে। কেন্দ্রের কর্তব্যরত কর্মকর্তা সজল কুমার রায় বলেন, দেশের উত্তরাঞ্চল ও উত্তর-পূর্বাঞ্চলের কিছু স্থানে এবং এর সংলগ্ন উজানে মাঝারি থেকে ভারি বৃষ্টিপাত হতে পারে। ফলে এ সময়ে উত্তরাঞ্চলের প্রধান নদীগুলোর পানি ধীরগতিতে এবং উত্তর-পূর্বাঞ্চলের প্রধান নদীগুলোর পানি সময় বিশেষে দ্রুত বাড়তে পারে। এই সময়ে উত্তর-পূর্বাঞ্চলের সুরমা, কুশিয়ারা, মনু, সারিগোয়াইন নদীগুলোর পানি কোথাও কোথাও বিপৎসীমা অতিক্রম করে আশপাশের নিম্নাঞ্চলে ‘স্বল্পমেয়াদি বন্যা’ পরিস্থিতি তৈরি করতে পারে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App