×

খবর

১৯শ টন ত্রাণ নিয়ে গাজার পথে তুর্কি জাহাজ

Icon

প্রকাশ: ১০ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ ডেস্ক : ফিলিস্তিনিদের জন্য মানবিক সহায়তা বহনকারী একটি জাহাজ গত বুধবার তুর্কি থেকে গাজা উপকূলের দিকে রওনা হয়েছে বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা। তুরস্ক ও কাতারের যৌথ অর্থায়নে এই ত্রাণ সহায়তা পাঠানো হলো। তুরস্কের দুর্যোগ ও জরুরি ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ (এএফএডি) এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, গত বুধবার তুর্কি-কাতার গাজা গুডনেস জাহাজটি খাদ্য, ওষুধ, স্বাস্থ্য এবং আশ্রয়ের সরঞ্জামসহ মোট ১ হাজার ৯০৮ টন মানবিক সহায়তা নিয়ে দেশটির মারসিন আন্তর্জাতিক বন্দর থেকে ছেড়ে গেছে। বিবৃতিতে আরো বলা হয়, তুরস্ক এখন পর্যন্ত ১৩টি বিমান এবং ১০টি জাহাজের মাধ্যমে মোট ৫২ হাজার ১৬ টন বিভিন্ন মানবিক সহায়তাসামগ্রী গাজায় পৌঁছে দিয়েছে। তুরস্কের উপস্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মুনির কারালোগøু বলেছেন, ‘গাজায় সামরিক অভিযান চালিয়ে ইসরায়েল মানবতা ও গণহত্যার বিরুদ্ধে অপরাধ করেছে। আমরা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব একটি স্থায়ী যুদ্ধবিরতি অর্জনের আশা করি। আমাদের গাজান ভাইদের তাদের নিজেদের ভূমি এবং নিজ শহরে শান্তিতে বসবাস করতে দিন।’ তিনি আরো বলেন, তুরস্ক ফিলিস্তিনিদের পাশে দাঁড়ানো অব্যাহত রাখবে। কাতারের আন্তর্জাতিক সহযোগিতার প্রতিমন্ত্রী লোলওয়াহ রশিদ আল খাতের বলেছেন, ‘সাহায্য প্রদান করা একটি মানবিক দায়িত্ব। কিন্তু তারা (ইসরায়েলি বাহিনী) রাফাহ সীমান্ত গেট দখল করেছে। তারা মানবিক ত্রাণ বিতরণে বাধা দিচ্ছে। মানুষ হত্যা এবং দেশান্তর করতে বাধ্য করার কথা না বললেই নয়। এই অঞ্চলে একটি নজিরবিহীন নাটক চলছে।’ ত্রাণ সরবরাহের জন্য তুরস্কের প্রশংসা করে তিনি আরো বলেন, ‘আমরা তুরস্কের সঙ্গে এমন অনেক বিষয়ে সহযোগিতা করি- যা সারা বিশ্বের লাখ লাখ মানুষের উপকার করতে পারে। কাতার এবং তুরস্কে মধ্যে উন্নয়নশীল কৌশলগত সম্পর্ক যে স্তরে পৌঁছেছে তার জন্য আমরা অত্যন্ত গর্বিত।’ প্রসঙ্গত, প্রায় সাতমাস ধরে ইসরায়েলি বর্বরোচিত হামলায় গাজার হাসপাতাল, স্কুল, শরণার্থী শিবির, মসজিদ, গির্জাসহ হাজার হাজার ভবন ক্ষতিগ্রস্ত বা ধ্বংস হয়ে গেছে- যা গত ৭৫ বছরে ফিলিস্তিনিদের জন্য সবচেয়ে মারাত্মক সংঘর্ষ হিসেবে চিহ্নিত করেছে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App