×

খবর

চট্টগ্রাম পৌঁছাতে পারে ১৩ বা ১৪ মে

২৩ নাবিক নিয়ে দেশের পথে জাহাজ আবদুল্লাহ

Icon

প্রকাশ: ০৪ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

চট্টগ্রাম অফিস : সোমালিয়ার জলদস্যুদের কবল থেকে মুক্তি পাওয়া বাংলাদেশি জাহাজ ‘এমভি আবদুল্লাহ’ ২৩ নাবিককে নিয়ে দেশের পথে রয়েছে। জ¦ালানি ফুরিয়ে যাওয়ায় গতকাল শুক্রবার সকালে সংযুক্ত আরব আমিরাতের ফুজাইরা বন্দরে থামে জাহাজটি। সেখান থেকে জ¦ালানি নেয়ার পর ‘এমভি আবদুল্লাহ’ আবার দেশের উদ্দেশে যাত্রা করে। আগামী ১৩ অথবা ১৪ মে জাহাজটি চট্টগ্রাম বন্দরে পৌঁছাতে পারে বলে জানিয়েছেন জাহাজের মালিকপক্ষ কেএসআরএমের মিডিয়া উপদেষ্টা মিজানুল ইসলাম। গতকাল জাহাজটি চট্টগ্রামের উদ্দেশে রওয়ানা দেয়ার পর জাহাজের প্রধান কর্মকর্তা মো. আতিক উল্লাহ খান সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে একটি নাতিদীর্ঘ স্ট্যাটাস দিয়েছেন। সেখানে আতিক উল্লাহ খান লিখেছেন, ‘হ্যালো কাছের মানুষজন, আল্লাহর রহমতে, অবশেষে চট্টগ্রামের উদ্দেশে যাত্রা করেছি এমভি আবদুল্লাহসহ আমরা ২৩ নাবিক। সব ঠিক থাকলে ইনশাআল্লাহ আগামী ১৩-১৪ মে চট্টগ্রাম পৌঁছাব। জিম্মি হওয়ার পর শুধু এই দিনটার জন্য অপেক্ষা করতাম, আর এই দিনের কথা ভেবেই মনকে শান্ত রাখার চেষ্টা করতাম। ইনশাআল্লাহ আর কিছুদিন পরেই আসছে সেই কাক্সিক্ষত মুহূর্ত।’ দেশে স্বজনদের কাছে ফেরার আবেগ, উত্তেজনা আর উচ্ছ¡াস কোনো শব্দ দিয়েই প্রকাশ করতে পারছেন না বলে জানান আতিক উল্লাহ খান। তিনি লেখেন, ‘সত্যিই, আমি এই এক্সাইটমেন্ট কখনো ভাষায় প্রকাশ করতে পারব না। প্রিয় মুখগুলো আবার দেখব, তাদের সঙ্গে আবার কথা বলব, সুখ-দুঃখের অনুভূতি ভাগাভাগি করব।’ জাহাজের মালিকপক্ষ কবির স্টিল রি-রোলিং মিলস (কেএসআরএম) মিডিয়া উপদেষ্টা মিজানুল ইসলাম ভোরের কাগজকে বলেন, গত সোমবার মধ্যরাতে এমভি আবদুল্লাহ মিনা সাকার বন্দর ত্যাগ করে দেশের উদ্দেশে যাত্র শুরু করে। জ¦ালানি ফুরিয়ে যাওয়ায় আরব আমিরাতের ফুজাইরা বন্দরে জাহাজটি আবারো নোঙর করে। আজ (শুক্রবার) সকালে ফুজাইরা বন্দর থেকে জ¦ালানি নিয়ে জাহাজটি চট্টগ্রামের উদ্দেশে রওনা হয়েছে। আগামী ১৩ অথবা ১৪ মে জাহাজটি চট্টগ্রাম বন্দরে পৌঁছাতে পারে। প্রসঙ্গত, গত ১২ মার্চ সোমালিয়ান জলদস্যুরা বাংলাদেশ সময় দুপুর দেড়টার দিকে ভারত মহাসাগরে ‘এমভি আবদুল্লাহের নিয়ন্ত্রণ নেয় এবং ২৩ নাবিককে জিম্মি করে। মোজাম্বিক থেকে কয়লা নিয়ে সংযুক্ত আরব আমিরাতের আল হারামিয়া বন্দরে যাওয়ার পথে জাহাজটি জলদস্যুর কবলে পড়ে। ৩৩ দিনের মাথায় মুক্তিপণ পরিশোধের পর ১৩ এপ্রিল বাংলাদেশ সময় রাত ৩টা ৮ মিনিটে জিম্মি জাহাজ এমভি আবদুল্লাহ থেকে নেমে যায় সোমালিয়ার জলদস্যুরা। এরপরই জাহাজটি সংযুক্ত আরব আমিরাতের আল হারামিয়া বন্দরের উদ্দেশে রওনা দেয়। ২২ এপ্রিল সেটি আল হারামিয়া বন্দরের জেটিতে ভেড়ে। পরে সেখানে পণ্য খালাস শেষে ২৭ এপ্রিল দেশটির মিনা সাকার বন্দরে যায় জাহাজটি। দস্যুমুক্ত হওয়ার পর নিরাপদ এলাকায় না পৌঁছা পর্যন্ত ইউরোপীয় ইউনিয়নের দুটি যুদ্ধজাহাজ এমভি আবদুল্লাহকে পাহারা দিয়ে জলদস্যুদের নিয়ন্ত্রিত উপকূল থেকে সোমালিয়ার সীমানা পার করে দেয়।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App