×

খবর

আকাশপথে যুক্ত হচ্ছে ফ্লাই ঢাকা

Icon

প্রকাশ: ২৭ এপ্রিল ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

হরলাল রায় সাগর : স্মার্ট বাংলাদেশে স্মার্ট এয়ারলাইন্স গড়ার প্রত্যয় নিয়ে আকাশপথে যুক্ত হচ্ছে ফ্লাই ঢাকা। আকাশপথে যোগাযোগসেবায় যুক্ত হওয়ার দিনক্ষণ গুনছে নতুন এ বিমান সংস্থাটি। এক্ষেত্রে সাশ্রয়ীমূল্যে নিরাপদ ও আরামদায়ক ভ্রমণের নিশ্চয়তাকে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক) থেকে এয়ার অপারেটর সার্টিফিকেট পেলেই বাংলার আকাশে ডানা মেলবে সংস্থাটি। লক্ষ্য রয়েছে, আগামী নভেম্বরেই অভ্যন্তরীণ পথে বিমান ওড়ানোর। অভ্যন্তরীণ গন্তব্যের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক রুটেও মজুবত ভিত গড়ার পরিকল্পনা রয়েছে ফ্লাই ঢাকার। দাপ্তরিক কাজের পাশাপাশি দ্রুতগতিতে চলছে বিমান সংগ্রহ ও অবকাঠামোগতসহ প্রয়োজনীয় কার্যক্রম। বিমানচালনা (এভিয়েশন) জগতে ফ্লাই ঢাকা এয়ারলাইন্স এক যুগান্তকারী মাইলফলক হিসেবে বিবেচিত হবে বলে বিশ্বাস করেন সংস্থাটির কর্মকর্তারা। ফ্লাই ঢাকা চালু হলে এটি হবে দেশের ১২তম এয়ারলাইন্স। সেক্ষেত্রে পরিচালিত বেসরকারি এয়ারলাইন্সের সংখ্যা হবে ৪টি। অবশ্য দেশীয় আরো ৮টি বেসরকারি এয়ারলাইন্সের কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। জাতীয় পার্টির সিনিয়ার কো-চেয়ারম্যান আনিসুল ইসলাম মাহমুদের মালিকাধীন এ কোম্পানির নাম ফ্লাই ঢাকা এয়ারলাইন্স লিমিটেড। তিনি বাংলাদেশ ফ্লাইং ক্লাবের সাবেক সভাপতি। ফ্লাই ঢাকার মানবসম্পদ বিভাগের প্রধান আমিনুল ইসলাম বলেন, ফ্লাই ঢাকা এয়ারলাইন্স ২০২১ সালের ৪ মে যৌথমূলধন কোম্পানি ও ফার্মসমূহের পরিদপ্তরে নিবন্ধিত হয়। পরে আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয় ওই বছরেরই ১ জুলাই। সংস্থাটি বিমান পরিচালনা করতে অনাপত্তিপত্র (এনওসি-নো অবজেকশন সার্টিফিকেট) চেয়ে একই বছরে বাংলাদেশ বেসামরিক চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) কাছে আবেদন করে। গত মার্চে মেলে এনওসি। এরপর এয়ার অপারেটর সার্টিফিকেটের (এওসি) জন্য করা হয় আবেদন। এখন এ সনদ পাওয়ার অপেক্ষায় রয়েছে সংস্থাটি। এ সনদ হলো অভ্যন্তরীণ রুটে বিমান চলাচলের অনুমোদন। বর্তমানে এওসি প্রক্রিয়া চূড়ান্তকরণের অপেক্ষায় রয়েছে। এওসি পেলেই আগামী নভেম্বরে অভ্যন্তরীণ রুটে বিমানের শুভ সূচনা করতে চায় সংস্থাটি। যে কোনো এয়ারলাইন্সকেই ফ্লাইট চালুর পর প্রথম এক বছর অভ্যন্তরীণ রুটে চলাচল করতে হয়। এরপর আন্তর্জাতিক রুটে ফ্লাইট চালানোর অনুমতি মেলে। ফ্লাই ঢাকার সংশ্লিষ্টরা জানান, অভ্যন্তরীণ রুটে ফ্রান্সভিত্তিক বিমান নির্মাতা কোম্পানি এটিআরের ‘এটিআর ৭২-৬০০’ মডেলের বিমান দিয়ে ফ্লাইট পরিচালনার পরিকল্পনা রয়েছে তাদের। পরবর্তী সময়ে বহির্বিশ্বে ফ্লাইট পরিচালনার জন্য বহরে এয়ারবাস বা বোয়িং এয়ারক্রাফট সংযোজন করার পরিকল্পনা রয়েছে। দেশে বেসরকারি ৮টি এয়ারলাইন্স কোম্পানি বন্ধের বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে অভ্যন্তরীণ গন্তব্যের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক রুটেও মজবুত ভিত্তির ওপর দাঁড়ানোর পরিকল্পনা রয়েছে ফ্লাই ঢাকার। ফ্লাই ঢাকা এয়ারলাইন্সের জনসংযোগ বিভাগ জানিয়েছে, বীর মুক্তিযোদ্ধা লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অব.) মোল্লা ফজলে আকবর সংস্থাটির প্রধান নির্বাহী (সিইও) কর্মকর্তা। তার নেতৃত্বে দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে ফ্লাই ঢাকা এয়ারলাইন্সের সেবার শুভ সূচনা করার কার্যক্রম। পাশাপাশি পাইলট ও কেবিন ক্রুদের প্রশিক্ষণ দেয়ার প্রস্তুতি চলছে। চলছে লোকবল নিয়োগের প্রক্রিয়াও। ফ্লাই ঢাকার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা লে. জেনারেল (অব.) মোল্লা ফজলে আকবর বলেন, স্মার্ট বাংলাদেশের রূপকার প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশকে বিশ্বের একটি অন্যতম প্রধান এভিয়েশন হাব করার যে লক্ষ্য স্থির করেছেন, সেই লক্ষ্য অর্জন এবং বাংলাদেশ এভিয়েশন ইন্ডাস্ট্রিকে সমৃদ্ধ করার জন্য নিরলস কাজ করে যাবে ফ্লাই ঢাকা এয়ারলাইন্স। সাধারণ মানুষের পাশে থেকেই এবং সাধারণ মানুষের জন্য একটি স্মার্ট এয়ারলাইন্স গড়তে চাই আমরা। শুধু অভ্যন্তরীণ বাজার নয়, বরং বিশ্ব বাজারেও শক্ত ভিত গড়তে চায় ফ্লাই ঢাকা এয়ারলাইন্স। সেই লক্ষ্যকে সামনে রেখে এশিয়ার একটি জায়ান্ট এয়ায়লাইন্সের সঙ্গে এরই মধ্যে সমঝোতার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। ‘কানেক্টিং ড্রিমস, ইউনিটিং ডেসটিনেশনস’- এই স্বপ্নকে সামনে রেখে নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন ফ্লাই ঢাকা এয়ারলাইন্সের কর্মীরা। সব ঠিক থাকলে এ বছরের শেষ দিকে আকাশ পথে সেবা দিতে ফ্লাই ঢাকা যুক্ত হতে চায় বলে আশা করেন তিনি। ফ্লাই ঢাকার ফ্লাইট অপারেশন বিভাগের প্রধান ক্যাপ্টেন আবদুল্লাহ বলেন, যাত্রীদের নিরাপত্তার বিষয়টিকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে শিগগিরই পাইলটদের প্রশিক্ষণ শুরু করা হবে। প্রশিক্ষণের প্রতিটি ধাপে পাইলটদের দক্ষতা নিরূপণের স্বার্থে প্রয়োজনীয় সব পদক্ষেপ নেয়া হবে। যাত্রীদের নিরাপত্তা ও স্বাচ্ছন্দে ভ্রমণসেবা নিশ্চিতসহ পরিচ্ছন্নতা, আবহাওয়া সংক্রান্ত তথ্য, খাবার-দাবারের সরঞ্জাম পৌঁছানো, জরুরি ইকুইপমেন্ট, ফার্স্ট এইডের মতো বিষয়গুলো কেবিন ক্রুদের নিশ্চিত করতে হয়। সেদিকেও এয়ারলাইন্সটি লক্ষ্য রাখছে জানিয়ে হেড অব কেবিন সেফটি ও সার্ভিস খালেদুর রহমান বলেন, কেবিন সেফটি এবং সার্ভিস যে কোনো এয়ারলাইন্সের একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ ডিপার্টমেন্ট। সেই বিষয়কে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে ফ্লাই ঢাকা এয়ারলাইন্স একঝাঁক তরুণ এবং অভিজ্ঞ কেবিন ক্রু নিয়োগ দিয়েছে। তাদের বিভাগীয় প্রশিক্ষণ দেয়ার প্রক্রিয়া চলছে। ফ্লাই ঢাকা বিমানযাত্রীদের নিরাপত্তা এবং সেবায় উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে চায়।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App