×

খবর

মধুখালীতে দুজনকে পিটিয়ে হত্যা

মানববন্ধনের পর বিক্ষুব্ধ জনতার মহাসড়ক অবরোধ, পুলিশের গুলি

Icon

প্রকাশ: ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

অঞ্জন সাহা রানা, মধুখালী (ফরিদপুর) থেকে : মধুখালী উপজেলার ডুমাইন ইউনিয়নের পঞ্চপল্লীতে কালিমন্দিরে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় গণপিটুনিতে দুজন নিহত হওয়ার প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছে। ‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রতি রক্ষা’ ব্যানারে গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৯টায় মধুখালী রেলগেট এলাকায় এই কর্মসূচি পালন করা হয়। দশ থেকে পনেরো মিনিটের মানববন্ধন কর্মসূচি শান্তিপূর্ণ থাকলেও পরবর্তী সময় তা বিক্ষোভ মিছিল ও সহিংস ঘটনায় পরিণত হয়। মিছিলটি ঘটনাস্থল উপজেলার ডুমাইন ইউনিয়নের পঞ্চপল্লী গ্রামের উদ্দেশে রওনা দিলে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। মিছিল নিয়ে পাঁচ শতাধিক বিক্ষুব্ধ জনতা ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক হয়ে পৌরসভার মালেকা চক্ষু হাসপাতাল এলাকায় পৌঁছালে পুলিশ তাদের বাধা দেয়। এ সময় অবরোধকারীরা বিভক্ত হয়ে মহাসড়কের নওপাড়া রাস্তার মোড়, আড়কান্দি সেতু, বাগাট এবং ঘোপঘাট ক্লাব এলাকায় সংগঠিত হয়ে যান চলাচলে বাধা দেয়। এ সময় ঘোপঘাট এলাকায় উত্তেজিত অবরোধকারীরা কর্বব্যরত পুলিশের ওপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ করলে পুলিশও রাবার বুলেট ছুড়ে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়ার চেষ্টা চালায়। এ সময় চারজন আহত হন। আহতদের মধুখালী সদর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয় এবং অন্য একজনের অবস্থা খারাপ হলে তাকে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। এ সময় অবরোধকারীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে। এতে কয়েকজন পুলিশ সদস্য আঘাতপ্রাপ্ত হন। অবরোধের ফলে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে প্রায় ৪ ঘণ্টা যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে এবং প্রায় পনেরো কিলোমিটার যানজটের সৃষ্টি হয়। যান চলাচল স্বাভাবিক করতে এবং অবরোধকারীদের মহাসড়ক থেকে সরিয়ে দিতে মালেকা চক্ষু হাসপাতাল এলাকায় পুলিশ কয়েক রাউন্ড গুলি চালায়। এ সময় ঘণ্টার পর ঘণ্টা আটকে থাকা যানবাহনের যাত্রীরা সীমাহীন দুর্ভোগে পড়েন। দুপুর ১২টার দিকে ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক মো. কামরুল আহসান তালুকদার তাদের সমস্ত দাবি মেনে নিয়ে দ্রুত ঘটনা নিষ্পত্তির আশ্বাস দিলেও অবরোধকারীরা তাদের অবস্থানে অনড় থাকেন। এ সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মামনুন আহমেদ অনিকসহ প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একাধিক কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। দুপুরের পর অবস্থার আরও অবনতি হওয়ায় মধুখালীতে অতিরিক্ত পুলিশ ও র‌্যাব সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। ঘটনার বিষয়ে জানতে সহকারী পুলিশ সুপার (মধুখালী সার্কেল), ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, মধুখালী থানা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সঙ্গে একাধিকবার মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাদের বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। যান চলাচল স্বাভাবিক থাকলেও এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ইমদাদ হোসাইন জানান, মধুখালী সদর থেকে কামারখালী পর্যন্ত বিক্ষোভকারীরা সড়কটি অবরোধ করে রাখার চেষ্টা করে। পুলিশ কোথাও কোথাও বুঝিয়ে-শুনিয়ে, আবার কোথাও কাঁদানে গ্যাস ও ফাঁকা গুলি ছুড়ে তাদের ছত্রভঙ্গ করার চেষ্টা করে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App