×

খবর

অস্বস্তিতে তৃণমূল কংগ্রেস

নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় চাকরি হারালেন ২৬ হাজার জন

Icon

প্রকাশ: ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ ডেস্ক : নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় একদিনে ২৫ হাজার ৭৫৩ জনের নিয়োগ বাতিলের ঘোষণা দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট। নির্বাচনকালীন সময়ে কলকাতা হাইকোর্টের এ রায় শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসকে ফেলেছে ব্যাপক অস্বস্তিতে। গোটা মামলাতেই অভিযুক্ত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার ও তৃণমূল কংগ্রেসের একাধিক নেতা ও মন্ত্রী। স্কুল সার্ভিস কমিশনের মাধ্যমে ২০১৬ সালে শিক্ষক এবং অশিক্ষক শিক্ষাকর্মী নিয়োগ প্রক্রিয়ায় দুর্নীতির অভিযোগ তুলে ৩৫০টি মামলা হয়েছিল। সেসব মামলা একত্র করে গতকাল সোমবার হাইকোর্টের বিচারপতি দেবাংশু বসাকের ডিভিশন বেঞ্চ এই রায় দেন। রায়ে কলকাতা হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ জানিয়েছে- অতিরিক্ত শূন্যপদ তৈরির মাধ্যমে যাদের চাকরি দেয়া হয়েছিল, ৪ সপ্তাহের মধ্যে সাত বছরের সম্পূর্ণ বেতন ১২ শতাংশ সুদসহ সরকারি কোষাগারে ফেরত দিতে হবে। স্বাধীনতা উত্তর এত বড় নিয়োগ দুর্নীতির অভিযোগ বাংলায় এমনকি গোটা ভারতেও বিরল। এই রায় শিক্ষাদপ্তর তথা স্কুল সার্ভিস কমিশনের ওপর বড় ধাক্কা বলেই মনে করা হচ্ছে। শুধু তা নয়, যে ২৫ হাজার ৭৫৩ জন চাকরি হারিয়েছেন, চার সপ্তাহের মধ্যে বেতনের টাকা ১২ শতাংশ সুদসহ ফেরত দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। জেলা স্কুল পর্যবেক্ষককে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে সেই টাকা আদায়ের। হাইকোর্ট জানিয়েছে, বেআইনিভাবে নিয়োগের বিনিময়ে টাকা নেয়া হয়েছে বা টাকার বিনিময়ে যারা চাকরি কিনেছেন, তারা প্রত্যেকেই অভিযুক্ত। বিচারপতি দেবাংশু বসাক জানিয়েছেন, যে ২৫ হাজার ৭৫৩ জনের নিয়োগ বাতিল করা হলো, সেই শূন্যপদে অবিলম্বে নতুন করে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করতে হবে স্কুল সার্ভিস কমিশনকে। সময় বেধে সেই নিয়োগ করতে হবে এবং সেই প্রক্রিয়া হতে হবে সম্পূর্ণ স্বচ্ছ। মামলার শুনানি চলাকালীন আদালতের পর্যবেক্ষণ ২০১৬ সালে এসএসসির নবম-দশম, একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণিতে শিক্ষক নিয়োগ এবং একই বছরে স্কুলে তৃতীয় এবং চতুর্থ শ্রেণির কর্মী নিয়োগে ৩০ লাখ আবেদনকারী চাকরি বিভাগে পরীক্ষা দিয়েছিলেন। ২২ হাজার পদে দুর্নীতির মাধ্যমে লাখো চাকরিপ্রার্থীর সঙ্গে প্রতারণা করা হয়েছে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App