×

খবর

ঝুঁকিতে বয়স্ক ও শিশুরা

সিলেটে বেড়েছে ডায়রিয়াসহ নানা রোগের প্রকোপ

Icon

প্রকাশ: ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

খালেদ আহমদ, সিলেট থেকে : বৈশাখের শুরু থেকেই সিলেটে তীব্র গরম অনুভূত হচ্ছে। মাঝে মধ্যে বৃষ্টি হলেও বাড়ছে গরমের তীব্রতা। আর প্রচণ্ড গরমের কারণে মানুষ ডায়রিয়া, জ্বর-কাশি, নিউমোনিয়া, শ্বাসকষ্ট, পানিশূন্যতা, হিটস্ট্রোকসহ নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। সব থেকে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে বয়স্ক ও শিশুরা। সিলেটের বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল ঘুরে দেখা গেছে, হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের অধিকাংশই শিশু ও বয়স্ক। এমন পরিস্থিতিতে প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে বের না হওয়ার পাশাপাশি প্রচুর পরিমাণ বিশুদ্ধ পানি ও তরল খাবার খাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা। জানা গেছে, গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা দ্বিগুণ হয়েছে। একই সঙ্গে বহির্বিভাগে দৈনিক রোগীর সংখ্যা ৬ হাজার ছাড়িয়েছে। এর অধিকাংশই ডায়রিয়া, জ¦র-সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত। ঈদের আগের দিন হাসপাতালটিতে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ছিল ১ হাজার ৫০০ জনের মতো। গতকাল সোমবার ভর্তি রোগীর সংখ্যা ২ হাজার ৩০০ ছাড়িয়েছে। এই সংখ্যা ক্রমশ বাড়ছে। এত বেশি সংখ্যক রোগীকে চিকিৎসা দিতে গিয়ে রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছেন হাসপাতালের চিকিৎসক-নার্সসহ সংশ্লিষ্টরা। সিলেটের স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, গতকাল সোমবার বিকাল পর্যন্ত তার আগের ২৪ ঘণ্টায় সিলেট বিভাগে শুধু ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১৫০ জন। গত ৭ দিনে সিলেটে এ রোগে আক্রান্ত হয়েছেন ১ হাজার ৭২ জন। চলতি এপ্রিল মাসের ২০ দিনে আক্রান্ত হয়েছেন ২ হাজার ৩১০ জন। গড়ে দৈনিক ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন ১১৬ জন। সংশ্লিষ্ট সূত্রে আরো জানা গেছে, গত ১৫ এপ্রিল থেকে ২১ এপ্রিল পর্যন্ত শুধু শ্বাসকষ্টজনিত রোগে আক্রান্ত হয়েছেন ৩৬৬ জন এবং এই সময়ে অন্যান্য রোগে আক্রান্ত হয়েছেন ৬৮৫ জন। চলতি এপ্রিল মাসে শ্বাসকষ্টজনিত রোগে আক্রান্ত হয়েছেন ৮৯৯ জন ও অন্যান্য রোগে আক্রান্ত হয়েছেন ১ হাজার ৭৫৭ জন। সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. সৌমিত্র চক্রবর্তী বলেন, ঈদের পর থেকে হাসপাতালে রোগীর চাপ ক্রমশ বাড়ছে। যেখানে সাধারণত ১ হাজার ৩০০ থেকে ১ হাজার ৫০০ রোগী ভর্তি থাকেন, সেই জায়গায় ভর্তি রোগীর সংখ্যা ২ হাজার ৩০০ ছাড়িয়েছে। এই সংখ্যাটা বাড়ছে। ভর্তির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে আউটডোরের রোগীর সংখ্যাও । বহির্বিভাগে যেখানে দৈনিক ৩ হাজার থেকে ৩ হাজার ৫০০ রোগী দেখা হতো, সেখানে এই সংখ্যা ৬ হাজার ছাড়িয়েছে। তবে সিলেটে ডায়রিয়াসহ নানা রোগে আক্রান্তের হার বাড়লেও রোগীর সংখ্যা স্বাভাবিক বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ। স্বাস্থ্য সচেতনতা বৃদ্ধি ও সর্বোচ্চ সতর্ক থাকতে জনসাধারণের প্রতি আহ্বান জানিয়ে স্বাস্থ্য বিভাগ জানায়, আতঙ্কিত না হয়ে গরম থেকে নিজেকে বিশেষ করে বয়স্ক, শিশু ও অসুস্থদের প্রতি বিশেষ নজর দিতে হবে। এ ব্যাপারে সিলেটের ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. জন্মেজয় শংকর দত্ত বলেন, এই সময়টাতে ডায়রিয়ার প্রকোপ কিছুটা বাড়ে। তবে সারা দেশের তুলনায় সিলেটে গরম কিছুটা কম থাকায় হিটস্ট্রোকের রোগী এখনো বাড়েনি। ডায়রিয়া, শ্বাসকষ্টসহ অন্যান্য রোগীর সংখ্যা বাড়লেও গত বছরের তুলনায় বাড়েনি। এই সময়ে স্বাস্থ্য সচেতনতার ওপর জোর দেয়ার জন্য জনসাধারণের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App