×

শেষের পাতা

নেতাকর্মীদের কাদের

আন্দোলন নিয়ে সতর্ক থাকার নির্দেশ

Icon

প্রকাশ: ১০ জুলাই ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

 আন্দোলন নিয়ে  সতর্ক থাকার  নির্দেশ

কাগজ প্রতিবেদক : সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন ও পেনশন স্কিম নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের অরাজনৈতিক আন্দোলনে বিএনপির সমর্থনকে ‘দুরভিসন্ধি’ হিসেবে দেখছে আওয়ামী লীগ। এ আন্দোলনে উসকানি দিয়ে সারাদেশে যেন বিশৃঙ্খলা তৈরি করতে না পারে, সে ব্যাপারে দলীয় নেতাকর্মীদের সতর্ক পাহারায় থাকার নির্দেশনা দিয়েছেন দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, একটা ব্যাপারে আমাদের সতর্কতা, এটা অবশ্যই রিলেটেড বিষয়- অরাজনৈতিক আন্দোলন, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের আন্দোলন অরাজনৈতিক। এ অরাজনৈতিক আন্দোলনে বিএনপি ও তাদের সমমনাদের রাজনৈতিক সমর্থন নিয়ে আমাদের ভাবতে হবে। এই অশুভ মহলটি শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের উসকানি ও ইন্ধন দিয়ে যেন সারাদেশে বিশৃঙ্খলার আবহ না দিতে পারে, সেজন্য সারা বাংলাদেশে, রাজধানীতে সর্বত্র সাবধান ও সতর্ক থাকতে হবে। সেটা সবাইকে স্মরণ করিয়ে দিচ্ছি।

গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ, ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতীম সংগঠনের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে যৌথসভার সূচনা বক্তব্যে তিনি এ নির্দেশনা দেন। সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, দীপু মনি, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, এস এম কামাল হোসেন, অর্থ সম্পাদক ওয়াসিকা আয়শা খান, কৃষি সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, আন্তর্জাতিক সম্পাদক শাম্মী আহমেদ, দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক প্রকৌশলী আবদুস সবুর, উপদপ্তর সম্পাদক সায়েম খান প্রমুখ।

বিএনপির প্রতি ইঙ্গিত করে কাদের বলেন, তারা ২০১৮ সালে কোটাবিরোধী আন্দোলনের ওপর ভর করেছিল। এবারো তারা কোটা সংস্কার আন্দোলনের ওপর ভর করে সরকার হটানোর অভিসন্ধি-দুরভিসন্ধি বাস্তবায়ন করতে চায়। শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের দুটি আন্দোলন একই সময় চলায় সতর্কভাবে পর্যবেক্ষণ করার কথা উল্লেখ করে কাদের বলেন, আমরা শুনেছি, তারা উচ্চ আদালতের যে মামলা চলছে তাদের পক্ষ থেকে আইনজীবী নিয়োগ করেছেন এবং আদালতে যথাসময়ে হাজির হবে। এটাও যৌক্তিক সিদ্ধান্ত। তিনি বলেন, আমাদের অবস্থান অত্যন্ত পরিষ্কার। প্রধানমন্ত্রী ২০১৮ সালে একটা পরিপত্র জারি করে তখন কোটা বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এতদিন সরকারি কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। এর মধ্যে মুক্তিযোদ্ধার ৭ সন্তান মামলা করেন কোটার বিষয় নিয়ে। হাইকোর্ট একটা রায় দেয়, এই রায়ের বিরুদ্ধে সরকারপক্ষ থেকে আপিল করা হয়।’ পূর্ণাঙ্গ কোর্টে দ্রুত শুনানি হবে।

আন্দোলনকারীরা কোটা বাতিল নয়, সংস্কার চান মন্তব্য করে ওবায়দুল কাদের বলেন, তারা নিজেরাই যখন তাদের প্রতিনিধি আইনজীবী কোর্টে প্রতিনিধিত্ব করবে, তাদের কথা কোর্ট শুনবে, সরকার পক্ষের কথাও শুনবে। সব পক্ষের কথা শুনে দেশের সর্বোচ্চ আদালত আপিল বিভাগ বাস্তবসম্মত সিদ্ধান্ত নেবে, এটাই আমরা আশা করি। ওই পর্যন্ত সবাইকে ধৈর্যধারণ করার জন্য অনুরোধ করব।

তিনি আরো বলেন, আমরা যে যা-ই করি, জনদুর্ভোগের কারণ যেন সৃষ্টি না হয় সে ব্যাপারে আন্দোলনকারীদের সতর্ক মনোযোগ আকর্ষণ করছি। এ নিয়ে আমাদের কারো কোনো প্রকার উসকানিতে যাব না। আমাদের কেউ যেন উসকানিতে না যায়, সেজন্য সবাইকে সতর্ক ও স্মরণ করিয়ে দিচ্ছি।

শিক্ষকদের আন্দোলনের বিষয়ে কাদের বলেন, তাদের সঙ্গে আমাদের যোগাযোগ আছে। কিন্তু আনুষ্ঠানিক বৈঠক হয়নি। সেটা খুব বেশি জটিল সমস্যা নয়, সমাধানের অযোগ্য নয়। সেটাও সমাধান অচিরেই হয়ে যাবে।

প্রধানমন্ত্রী ভিক্ষার ঝুড়ি নিয়ে চীন গেছেন- বিএনপি নেতাদের এমন বক্তব্যের জবাবে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ভিক্ষার ঝুড়ি নিয়ে প্যারিস কনসোর্টিয়াম বৈঠকে বিএনপির অর্থমন্ত্রী সাইফুর রহমান বারবার ছুটে গেছেন। আমাদের কোনো অর্থমন্ত্রী প্যারিস কনসোর্টিয়াম বৈঠকে যাননি। বাজেটের আগেও যাননি। খালেদা জিয়াকে রাজনৈতিক কারণে জামিন দেয়া হচ্ছে না, বিএনপির এমন দাবির বিষয়ে কাদের বলেন, কারণটা আইনগত, রাজনৈতিক নয়। বিএনপি সব কিছুতে রাজনৈতিক গন্ধ পায়।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App