×
Icon এইমাত্র
কমপ্লিট শাটডাউন কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে কোটা আন্দোলনকারীরা বাংলাদেশ টেলিভিশনের মূল ভবনে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। বিটিভির সম্প্রচার বন্ধ। কোটা সংস্কার আন্দোলনে সারা দেশে এখন পর্যন্ত ১৯ জন নিহত কোটা ইস্যুতে আপিল বিভাগে শুনানি রবিবার: চেম্বার আদালতের আদেশ ছাত্রলীগের ওয়েবসাইট হ্যাক ‘লাশ-রক্ত মাড়িয়ে’ সংলাপে বসতে রাজি নন আন্দোলনকারীরা

শেষের পাতা

ভারতে ছিনতাই হওয়া মোবাইল চট্টগ্রামে উদ্ধার

Icon

প্রকাশ: ০৯ জুলাই ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

চট্টগ্রাম অফিস : পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কলকাতা মহানগরীর বাসিন্দা দীপান্বিতা সরকারের আইফোন ১৪ প্লাস মোবাইলটি ছিনতাই হয়ে যায় বেশ কদিন আগে। পরে সেখানকার মহেশতলা থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন তিনি। মোবাইল ফোন হারানোর পর তার অপর একটি ফোনে আসা ই-মেইলের মাধ্যমে দীপান্বিতা জানতে পারেন, তার হারানো মোবাইলটি সচল রয়েছে বাংলাদেশের চট্টগ্রাম নগরীতে। এরপর তিনি যোগাযোগ করেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে। সঙ্গে মোবাইল ফোন হারিয়ে যাওয়ার জিডি ও মোবাইলটি চালু করার লোকেশন পাঠান। ম্যাসেজ পেয়ে সিএমপির জনসংযোগ শাখা থেকে মোবাইলটি উদ্ধারে সর্বোচ্চ সহায়তা দেয়ার আশ্বাস দেয়া হয়। এরপর সেই মোবাইল ফোন উদ্ধারে অভিযানে নামে নগর গোয়েন্দা পুলিশ। নগরের কোতোয়ালি থানাধীন নিউমার্কেট এলাকার জলসা মার্কেট থেকে মোবাইল ফোনটি উদ্ধার করে আইনি প্রক্রিয়া মেনে গত রবিবার ফিরিয়ে দেয়া হয় কলকাতার ওই বাসিন্দাকে।

সিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি) কাজী মো. তারেক আজিজ জানান, হারানো মোবাইল উদ্ধার করতে দায়িত্ব দেয়া হয় নগর ডিবির বন্দর ও পশ্চিম জোনকে। জোনের উপপরিদর্শক (এসআই) মো. রবিউল ইসলাম ঘটনাটির তদন্ত শুরু করেন। মোবাইলটিতে কোনো সিম প্রবেশ না করালেও নানা কৌশলে কাজ করে গোয়েন্দা বিভাগের দলটি চার ব্যক্তিকে শনাক্ত করে। যারা ভারত থেকে চোরাইপথে মোবাইল ফোন চট্টগ্রামে এনে নগরের রিয়াজউদ্দিন বাজারের তামাকুমন্ডি লেনে বিভিন্ন খুচরা দোকানদারদের কাছে পৌঁছে দেয় এবং নিজেরাও বিক্রি করে। এই পুলিশ কর্মকর্তা জানান, আভিযানিক দল সিন্ডিকেটের হোতাকে টার্গেট করে অভিযান পরিকল্পনা করতে থাকলে বিষয়টি বুঝতে পেরে একজন ব্যবসায়ী মারফত চোরাই মোবাইলটি ডিবির উপপরিদর্শক রবিউল ইসলামের কাছে পৌঁছে দিয়ে পালিয়ে যায়। এই সিন্ডিকেট ভারতের সব চোরাই মোবাইল চট্টগ্রামে পাঠায় এবং বাংলাদেশের চোরাই দামি মোবাইল ভারতে ও ভুটানে পাঠিয়ে থাকে। সিন্ডিকেট সদস্যদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব্যাহত আছে। উদ্ধারের পর মোবাইলটি যথাযথ প্রক্রিয়ায় মালিকের কাছে পৌঁছে দেয়া হয়েছে।

মোবাইল ফোনটি ফিরে পেয়ে সিএমপির প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে ভারতীয় নাগরিক দীপান্বিতা সরকার বলেন, ‘আমার মোবাইল ফোন ছিনতাইয়ের ঘটনায় জিডি করি এবং ট্র্যাক করে দেখি ফোনটি বাংলাদেশের চট্টগ্রামে চলে গেছে। পরে আমি চট্টগ্রামের পুলিশের কয়েকটি স্টেশনে যোগাযোগ করি। এর মধ্যে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের ফেসবুকে মেসেজ দিয়ে আমি রেসপন্স পাই। যেটা আমার কাছে একদমই অনাকাক্সিক্ষত ছিল। পরে তাদের ঘটনা খুলে বলি।’ তিনি বলেন, আমি চট্টগ্রাম পুলিশের সহায়তায় মোবাইলটি হাতে পেয়েছি। আমি কৃতজ্ঞ চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের কাছে। চট্টগ্রামের নাগরিকদের পুলিশের ওপর ভরসা রাখার আহ্বান জানিয়ে দীপান্বিতা বলেন, ‘আমি সবার কাছে বলতে চাই, চট্টগ্রাম পুলিশের ওপর আপনারা বিশ্বাস রাখুন। আমি বিনা খরচেই ফোনটা হাতে পেয়েছি।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App