×
Icon এইমাত্র
কমপ্লিট শাটডাউন কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে কোটা আন্দোলনকারীরা বাংলাদেশ টেলিভিশনের মূল ভবনে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। বিটিভির সম্প্রচার বন্ধ। কোটা সংস্কার আন্দোলনে সারা দেশে এখন পর্যন্ত ১৯ জন নিহত কোটা ইস্যুতে আপিল বিভাগে শুনানি রবিবার: চেম্বার আদালতের আদেশ ছাত্রলীগের ওয়েবসাইট হ্যাক ‘লাশ-রক্ত মাড়িয়ে’ সংলাপে বসতে রাজি নন আন্দোলনকারীরা

শেষের পাতা

ঢাকা উত্তর সিটি

‘স্মার্ট স্কুল বাস’ সার্ভিস চালু

Icon

প্রকাশ: ০৪ জুলাই ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

‘স্মার্ট স্কুল বাস’ সার্ভিস চালু

কাগজ প্রতিবেদক : ঝক্কি-ঝামেলা এড়িয়ে শিক্ষার্থীদের আরামে স্কুলে যেতে নিরাপদ পরিবহন ব্যবস্থা চালু হয়েছে নগরে। ‘স্মার্ট স্কুলবাস’ নামে বিশেষ পরিবহন চালু করেছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। মেয়র আতিকুল ইসলামের নির্বাচনী ইশতেহারের স্থান পেয়েছিল এই স্মার্ট বাস সার্ভিস। শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করেই আধুনিক, নিরাপদ এবং অ্যাপসভিত্তিক এ ‘স্মার্ট স্কুলবাস’ চালুর ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ডিএনসিসি।

গতকাল বুধবার দুপুরে রাজধানীর বনানী বিদ্যানিকেতন স্কুল অ্যান্ড কলেজে ডিএনসিসি স্মার্ট স্কুলবাস সার্ভিসটি উদ্বোধন করেন মেয়র আতিকুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী।

এ সময় মেয়র আতিক বলেন, প্রায়ই দেখা যায় আট থেকে ১০ জন শিক্ষার্থী ভ্যানে করে স্কুলে যাওয়া আসা করে। অনেক স্কুলে মাইক্রোবাসে করেও যাওয়া-আসা করতে দেখা যায়। এই ধরনের ভ্যান ও মাইক্রোবাসগুলো অনেকটা অনিরাপদ। ঝুঁকি নিয়ে আমাদের বাচ্চারা স্কুলে যায়। শিক্ষার্থীদের নিরাপদ যাতায়াতের জন্য ডিএনসিসি স্মার্ট স্কুলবাস সার্ভিস চালু করেছি। পরীক্ষামূলকভাবে বনানী বিদ্যানিকেতন স্কুল অ্যান্ড কলেজে তিনটি বাস দিয়ে এটি শুরু করেছি। পর্যায়ক্রমে অন্য স্কুলগুলোতেও এই স্কুলবাস সার্ভিস চালু করা হবে। এ বাস সার্ভিস শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত ও পরিবেশ রক্ষায় ভূমিকা রাখবে।

শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শিক্ষায় যে বিনিয়োগ করছেন, তার সঙ্গে সিটি করপোরেশন যোগ হলে তখন ভিন্নমাত্রা পায়। এই স্কুলবাস সার্ভিস চালু করে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন যুগান্তকারী অধ্যায় শুরু করেছে। আমরা অনুরোধ করব বাস সার্ভিসটি শুধু স্কুলভিত্তিক না করে, এলাকাভিত্তিক কোনো রুট পরিচালিত করা যায় কিনা। প্রত্যেকটি বিদ্যালয়ে বাস দেয়া কতটা সম্ভব হবে জানি না। তবে বাস শেয়ারিংটা যেন হয়, সেদিকে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে। আশপাশের স্কুলের শিক্ষার্থীরা বাস সার্ভিসের সুবিধা পেলে সিটি করপোরেশনের কষ্ট সার্থক হবে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শুধু সরকারি ও আধা সরকারি স্কুল নয়, বরং যে বিদ্যালয় বেশি নিজস্ব গাড়িতে চড়ে শিক্ষার্থীরা আসে সেই স্কুলগুলোকে মার্ক করতে হবে। গাড়ির বাস্তব ব্যবহার বোঝাতে হবে। গাড়ি যে কোনো ধরনের হতে হবে। পয়সা থাকলেই দামি গাড়িতে করে

বাচ্চাদের স্কুলে আনতে হবে- এমন মনোভাব থেকে অভিভাবকের বেরিয়ে আসতে হবে। স্কুলের পথ পায়ে হাঁটা হলে হেঁটেই স্কুল আসার অভ্যাস করাতে হবে বাচ্চাদের। সন্তানকে যেভাবে গড়া হবে তারা তেমনি বেড়ে উঠবে। তাই আমাদের সন্তানদের ভোগবাদী মানসিকতা থেকে দূরে রাখতে হবে।

সভাপতির বক্তব্যে ডিএনসিসি মেয়র জানান, সন্তানরাই বাবা-মায়ের সব থেকে মূল্যবান সম্পদ। তাদের নিরাপত্তার বিষয়টি অতি গুরুত্বপূর্ণ। স্মার্ট স্কুলবাসগুলোয় সিসি ক্যামেরাসহ আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার করে বাচ্চাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হচ্ছে। অ্যাপসের মাধ্যমে ট্র্যাকিং ব্যবস্থাও থাকবে। একটি হটলাইন নম্বরের মাধ্যমে অভিভাবকরা সার্বক্ষণিক যোগাযোগ করতে পারবেন। প্রতিটি বাসে নিবেদিত ট্রিপ ম্যানেজার থাকবে। পরীক্ষামূলক চালু করেছি। প্রয়োজন অনুযায়ী যে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মেয়র বলেন, প্রাথমিকভাবে ডিএনসিসির স্মার্ট স্কুলবাস সার্ভিসে বনানী বিদ্যানিকেতন স্কুলের ৪৬০ জন শিক্ষার্থী ইতোমধ্যে পাওয়া গেছে। স্কুলটির কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে আগামী জানুয়ারিতে তিন হাজার শিক্ষার্থী স্কুলবাস সার্ভিসের আওতায় আসবে। এজন্য ২০টি বাস প্রয়োজন হবে। যেখানে অনেকগুলো যানবাহনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা যাওয়া আসা করত সেখানে ২০টি বাসের মাধ্যমে সার্ভিসটি দেয়া সম্ভব হবে। এর ফলে, যানজট নিরসনের পাশাপাশি কার্বন নিঃসরণ কম হবে, পরিবেশদূষণ কমবে। অন্য স্কুলগুলোকেও আমন্ত্রণ জানাব এই বাস সার্ভিসের সুবিধার আওতায় আসার। আমারা নলেজ শেয়ারিং প্রোগ্রামে লন্ডনে গিয়েছিলাম, সেখানে দেখে এসেছি কীভাবে এই সার্ভিসটি চলছে। আমরাও প্রক্রিয়াটিও সেভাবে করতে চাই। এ জন্য অভিভাবকদের সহায়তা চাই। কোনো সমস্যা সামনে এলে সেটাও সমাধান করা হবে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য শবনম জাহান শিলা, হাছিনা বারী চৌধুরী ও খালেদা বাহার বিউটি, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশনের চেয়ারম্যান মো. তাজুল ইসলাম এবং ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার হাবিবুর রহমান। আরো উপস্থিত ছিলেন ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মীর খায়রুল আলম, প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগে. জে. মো. মঈন উদ্দিন, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগে. জে. ইমরুল কায়েস চৌধুরী, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা ক্যাপ্টেন মোহাম্মদ ফিদা হাসান, ডিএনসিসির ১৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও বনানী বিদ্যানিকেতন স্কুল অ্যান্ড কলেজের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি মোহাম্মদ মফিজুর রহমানসহ অন্যান্য কাউন্সিলর এবং ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

জবা, গোলাপ ও টগর- এই তিনটি ফুলের নামে ৩ রুটে চলবে এ স্কুলবাস। রুট-১ চলবে কুড়িল বিশ্বরোড (পুলিশ বক্সের কাছে) কুড়িল চৌরাস্তা বসুন্ধরা গেট নদ্দা কোকাকোলা নতুনবাজার (ভাটারা থানাসংলগ্ন) নতুনবাজার (যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসের পূর্ব পাশের ঢাকা চাকা বাসস্ট্যান্ড) থেকে বনানী বিদ্যা নিকেতনে। রুট ২ চলবে ১০০ ফিট রাস্তায় বসুন্ধরা গেট (২নং ব্রিজসংলগ্ন) ফ্যামিলি বাজার ছোলমাইদ/সাঈদনগর নতুনবাজার বাঁশতলা শাহজাদপুর নতুনবাজার (যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসের পূর্ব পাশের ঢাকা চাকা বাসস্ট্যান্ড) থেকে বনানী বিদ্যানিকেতন। রুট চলবে সুবাস্তু/উত্তর বাড্ডা (থানা রোড) হোসেন মার্কেট লিংকরোড গুদারাঘাট গুলশান-০১ টিভি গেট, ওয়ারলেস গেট, আমতলী (জলখাবার) থেকে বনানী বিদ্যানিকেতন। এরই মধ্যে ডিএনসিসি স্মার্ট স্কুলবাস সার্ভিস চালুর জন্য ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন ৩৯টি স্থানে নিজস্ব ব্যয়ে স্কুলবাস স্টপেজ নির্মাণ করেছে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App