×

শেষের পাতা

ভারি বৃষ্টিপাত

সিলেট নগরীতে ফের জলজটের ভোগান্তি

Icon

প্রকাশ: ১১ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

সিলেট অফিস : ভারি বৃষ্টিতে সিলেট নগরের বেশ কিছু এলাকায় ফের জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে। ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়েন ওই এলাকার বাসিন্দারা। এ নিয়ে ৮ দিনের ব্যবধানে তিনবার ডুবল সিলেট নগরীর অর্ধশতাধিক এলাকা।

সিলেটের আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা যায়, গতকাল সোমবার সকাল ৬টা থেকে ৯টা পর্যন্ত সিলেটে ১৩৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়। এর আগে গত রবিবার সকাল ৬টা থেকে সোমবার সকাল ৬টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় ৪৪ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়। আর শনিবার রাত ৯টা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত ২২০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়। এর আগে গত ২ জুন রাত ও ৮ জুন রাতের কয়েক ঘণ্টার বৃষ্টিতে সিলেট নগরজুড়ে তীব্র জলাবদ্ধতা দেখা দেয়।

গতকাল সোমবার সরজমিন দেখা গেছে, নগরের উপশহর, সোবহানীঘাট, দরগা মহল্লা, পায়রা, তেরো রতন, মাছিমপুর, তালতলা ও শেখপাড়া এলাকায় বৃষ্টির পানি জমেছে। এসব এলাকার কোথাও কোথাও হাঁটুসমান পানি জমেছে। সকালের টানা বৃষ্টিতে সৃষ্ট জলাবদ্ধতায় বাসিন্দাদের ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে।

সিলেটের পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) সূত্রে জানা যায়, সোমবার বিকাল ৩টার দিকে কুশিয়ারা নদীর ফেঞ্চুগঞ্জ পয়েন্টে বিপৎসীমার থেকে ৫৬ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হয়। যেখানে বিপৎসীমা ধরা হয় ৯ দশমিক ৪৫ মিটার। আর বাকি পয়েন্টে বিপৎসীমার নিচ দিয়ে পানি প্রবাহিত হয়। সুরমা নদীর সিলেট পয়েন্টে বিপৎসীমার নিচ দিয়ে পানি প্রবাহিত হলেও গত রবিবার বিকাল ৩টা থেকে ৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হয়।

সিলেট উপশহর এলাকার বাসিন্দা আনোয়ার চৌধুরী বলেন, সামান্য বৃষ্টি হলেই উপশহর এলাকার বিভিন্ন ব্লক পানিতে তলিয়ে যায়। সোমবার সকালের বৃষ্টিতেও উপশহরের বিভিন্ন রাস্তা তলিয়ে গেছে। কিছু বাসায়ও পানি ঢুকেছে। এতে মানুষের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

সিলেট সিটি করপোরেশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা সাজলু লস্কর বলেন, এটাকে ঠিক জলাবদ্ধতা বলা যাবে না। প্রচুর বৃষ্টি হওয়ায় বিভিন্ন এলাকায় পানি জমেছে। এছাড়া পাহাড়ি ঢল অব্যাহত থাকায় সুরমা নদীও টইটম্বুর। এতে নগরে প্রবাহিত ছড়া ও খাল দিয়ে পানি গিয়ে নদীতে মিশতে পারছে না। তাই বৃষ্টিতে নগরের নিচু এলাকা জলমগ্ন হয়ে পড়ছে।

তিনি আরো বলেন, জলাবদ্ধতার জন্য নগরের বাসিন্দাদের সচেতন হতে হবে। ড্রেনের যেদিক দিয়ে পানি যাবে, সেদিকে ময়লা-আবর্জনা ফেলে মুখ বন্ধ করে দেন নগরবাসী। যার কারণে পানি যেতে পারে না। এতে করে আটকে যায় পানি।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App