×
Icon ব্রেকিং
বরগুনায় সেতু ভেঙে বিয়ের মাইক্রোবাস খালে, নিহত ৮

শেষের পাতা

কোটা পুনর্বহালের প্রতিবাদ ঢাবি শিক্ষার্থীদের

Icon

প্রকাশ: ০৬ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

ঢাবি প্রতিনিধি : সরকারি চাকরিতে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণিতে মুক্তিযোদ্ধাসহ ৩০ শতাংশ কোটা পুনর্বহাল-সংক্রান্ত হাইকোর্টের দেয়া রায়কে প্রত্যাখ্যান করে এর প্রতিবাদে বিক্ষোভ শুরু করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) শিক্ষার্থীরা। গতকাল বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় ঢাবির কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে জড়ো হন শিক্ষার্থীরা। এ সময় শিক্ষার্থীরা ‘কোটা পদ্ধতি মানি না’, ‘হাইকোর্টের রায় মানি না’, ‘কোটা বাতিল করো, করতে হবে’ প্রভৃতি সেøাগান দেন।

এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ের ডাকসু, কলাভবন হয়ে রাজু ভাস্কর্যে একটি বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে যান আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। এ সময় তারা কোটা বাতিলের দাবি জানান। রাজু ভাস্কর্যে কিছুক্ষণ অবস্থান শেষে শিক্ষার্থীরা আবার মিছিল নিয়ে কলাভবন হয়ে গ্রন্থাগারের সামনে যান। সেখানে তারা পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করেন। এ সময় সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী নাহিদ হাসান কোটা পুনর্বহালের ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন, আমরা ২০১৮ সালে কোটা ব্যবস্থার বিরুদ্ধে আন্দোলন করেছি। আমরা তখন রক্ত দিয়েছি। তার পরিপ্রেক্ষিতে সরকার এ কোটা পদ্ধতি বাতিল করেছিল। কিন্তু আবারো আজ হাইকোর্ট সেই কোটা পুনর্বহাল করেছে, আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। আমরা হাইকোর্টের এ রায়কে প্রত্যাখ্যান করছি।

তিনি আরো বলেন, একটা দেশে কখনোই ৫৬ শতাংশ কোটা থাকতে পারে না। এটা সেই দেশের মেধাবীদের সঙ্গে তামাশা করার মতো। আমরা আমাদের সঙ্গে এ তামাশা মেনে নেব না। আমরা রাজপথে এসেছি, আজকের এটা তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া। আমরা আবারো কালকে আসব। যদি এ রায় বহাল থাকে তাহলে আমরা রাজপথে আবারো নামতে বাধ্য হব। আমরা আমাদের দাবি আদায় না করে ঘরে ফিরে যাব না। কর্মসূচি ঘোষণা করে নাহিদ হাসান বলেন, আগামীকাল (বৃহস্পতিবার) বিকাল ৫টায় কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার থেকে বের হয়ে রাজু ভাস্কর্যে আবারো একটি সমাবেশ করা হবে। আমরা সরকারের কাছে দাবি জানাব, এ রায় যেন বহাল না থাকে। শিক্ষার্থীরা এ রকম বৈষম্য মানবে না।

সরকারি চাকরিতে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির মুক্তিযোদ্ধাসহ ৩০ শতাংশ কোটা বাতিলকে অবৈধ ঘোষণা করায় এর ফলে সরকারি চাকরিতে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির চাক?রি?তে মুক্তিযোদ্ধাদের ৩০ শতাংশ কোটা পুনর্বহাল করেন হাইকোর্ট। গত বুধবার দুপুরে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ডেপুর্টি অ্যাটর্নি জেনারেল শেখ মোহাম্মদ সাইফুজ্জামান জামান সাংবা?দিক?দের এ তথ?্য নি?শ্চিত ক?রে?ন।

এর আগে ২০১৮ সালের ৪ অক্টোবর জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সরকারি দপ্তর, স্বায়ত্তশাসিত বা আধা-স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন করপোরেশনে চাকরিতে সরাসরি নিয়োগের ক্ষেত্রে সরকারের বিদ্যমান কোটা পদ্ধতি সংশোধন করে পরিপত্র জারি করে। ১৯৯৭ সালের ১৭ মার্চের স্মারক সংশোধন করে জারি করা পরিপত্রের ভাষ্যমতে, ৯ম গ্রেড (পূর্বতন ১ম শ্রেণি) এবং ১০ম-১৩তম গ্রেডের (পূর্বতন ২য় শ্রেণি) পদে সরাসরি নিয়োগের ক্ষেত্রে মেধার ভিত্তিতে নিয়োগ দেয়া হবে এবং ৯ম গ্রেড (পূর্বতন ১ম শ্রেণি) এবং ১০ম-১৩তম গ্রেডের (পূর্বতন ২য় শ্রেণি) পদে সরাসরি নিয়োগের ক্ষেত্রে বিদ্যমান কোটা পদ্ধতি বাতিল করা হলো।

ওই পরিপত্রের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ২০২১ সালে রিট করেন চাকরিপ্রত্যাশী ও মুক্তিযোদ্ধার সন্তান অহিদুল ইসলামসহ সাতজন। রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে ২০২১ সালের ৬ ডিসেম্বর হাইকোর্ট রুল দেন। রুলে ওই পরিপত্র কেন আইনগত কর্তৃত্ববহির্ভূত ঘোষণা করা হবে না, সে বিষয়ে জানতে চাওয়া হয়। চূড়ান্ত শুনানি শেষে রুল অ্যাবসলিউট (যথাযথ) ঘোষণা করে রায় দেয়া হয়।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App