×

শেষের পাতা

ঢামেকের গাইনি বিভাগ থেকে ফের নবজাতক চুরি

Icon

প্রকাশ: ০৫ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ প্রতিবেদক : ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের গাইনি বিভাগ থেকে এক নবজাতক চুরির অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে হাসপাতালের ২১২ নম্বর ওয়ার্ডে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় নিখোঁজ শিশুর বাবা শাহবাগ থানায় একটি মামলা করেছেন।

ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্প ইনচার্জ ইন্সপেক্টর মো. বাচ্চু মিয়া ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এক নারী ২১২ নম্বর লেবার ওয়ার্ডে গতকাল সকালে সিজারিয়ান অপারেশনে দুটি জমজ মেয়ে সন্তান জন্ম দেন। জন্মের পর নবজাতকরা তাদের দাদি ও বাবার কোলে ছিল। তিনি জানান, একপর্যায়ে সবুজ রঙের বোরখা পড়া এক নারী স্বজনদের সঙ্গে সখ্যতা গড়ে তোলে। এক সময় বাবার কোল থাকা নবজাতককে কোলে নিয়ে হাসপাতাল থেকে বেরিয়ে যায়। নবজাতককে উদ্ধারে হাসপাতালের সিসি ক্যামেরা পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। সিসিটিভি ফুটেজে দেখা গেছে, কমলা রঙের ওড়না ও কালো বোরখা পরা এক নারী নবজাতক কোলে নিয়ে হাসপাতালের ওয়ার্ড থেকে বের হচ্ছেন। মাঝে থেমে কথাও বলছেন সেখানে নিরাপত্তায় থাকা আনসার সদস্যদের সঙ্গে। ঠাণ্ডা মাথায় সবাইকে বুঝ দিয়ে বেরিয়ে যান একাধিক গেট পার হয়ে।

স্বজনরা জানান, শরিফুল ও সুখী আক্তার দম্পতি ধামরাই উপজেলার কালামপুর এলাকায় থাকেন। তার পরিবার গত সোমবার সুখীকে ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি করে। গতকাল মঙ্গলবার সকালে সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে জমজ মেয়ে সন্তান জন্ম দেন সুখী। মেজবা নামে ৮ বছর বয়সি তাদের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। নবজাতকের দাদি হাসিনা বেগম জানান, সবুজ রঙের বোরখা পরা একটি মহিলা ২১২ ওয়ার্ডে প্রবেশ পথের বারান্দায় এসে তার সঙ্গে গল্প জুড়ে দেয়। একপর্যায়ে তাদের বাবার কোলে থাকা সন্তানকে নিয়ে পালিয়ে যায়। বাবা শরিফুল ইসলাম বলেন, আমার জমজ মেয়ের একজনের জ্বর আসে। তখন পাশে থাকা এক নারী বলেন, আমার কাছে বাচ্চাটি দিয়ে ওষুধ নিয়ে আসেন। পরে আমি নাপা নিয়ে আবার ওয়ার্ডে ফিরে আসি। আমার মাকে জিজ্ঞেস করি, বাচ্চা কোথায়? পরে দেখি যে নারীর কাছে আমি বাচ্চা দিয়েছিলাম সেই নারী আর সেখানে নেই। পরে বিষয়টি আনসার সদস্যদের ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে জানাই।

এ বিষয়ে ঢামেক হাসপাতালে পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. আসাদুজ্জামান জানান, হাসপাতালের লেবার ওয়ার্ড থেকে ভূমিষ্ঠ হওয়া এক নবজাতককে তার স্বজনরা খুঁজে পাচ্ছে না। আমরাও হাসপাতালে সিসিটিভির ফুটেজ দেখার পাশাপাশি পুলিশ প্রশাসন ও অন্য সবাই এই বিষয়ে কাজ করছে। ঘটনার বিস্তারিত পরে জানানো যাবে। এই ঘটনায় নিখোঁজ শিশুর বাবা শাহবাগ থানায় একটি মামলা করেছে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App