×

শেষের পাতা

বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের সঙ্গে কুশল বিনিময় অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী

অনেকেই দেশকে ভিন্ন পথে নিতে চায়

Icon

প্রকাশ: ২৬ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ প্রতিবেদক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশ বিশ্বে ধর্মীয় সম্প্রীতির একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। আমরা সব ধর্মের বিশ্বাসী মানুষদের নিয়ে দেশকে এগিয়ে নিতে চাই। আমরা চাই আমাদের দেশ এগিয়ে যাক। আমরা সব সময় সব ধর্মের মানুষকে নিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে চাই। অসাম্প্রদায়িক চেতনার বাংলাদেশ গড়ে তুলে সারা বিশ্বে আমরা একটা দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে পেরেছি। অনেকেই চেষ্টা করে দেশকে ভিন্ন পথে নিতে। কিন্তু সেটা করতে পারবে না। আমরা তা হতেও দেব না।

গতকাল শনিবার বিকালে গণভবনে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব বুদ্ধ পূর্ণিমা উপলক্ষে দেশের ধর্মীয় নেতা ও বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে কুশল বিনিময় অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন ধর্মমন্ত্রী ফরিদুল হল খান, পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা, ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. এ হামিদ জমাদ্দার, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, একুশে পদক বিজয়ী অধ্যাপক ড. জিনবোধি ভিক্ষু, ভদন্ত শিলভদ্রা ভিক্ষু ও বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ভাইস চেয়ারম্যান সুপ্ত ভূষণ বড়ুয়া প্রমুখ।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশকে আমরা গড়ে তুলতে চাই। এখানে জাতি-ধর্ম-বর্ণ বলে কোনো কথা নেই। আমরা মানুষের জন্য কাজ করি। মানুষের সার্বিক ও আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে কাজ করি। এখানে অনেকেই আবার চেষ্টা করে বাংলাদেশকে ভিন্ন পথে নিতে। কিন্তু সেটা করতে পারবে না। বাংলাদেশের মানুষের মনমানসিকতা খুব উদার। সবাই এক সঙ্গে চলতেই আমরা পছন্দ করি। সেভাবেই চলব। তিনি বলেন, প্রতিটি ধর্মেরই মূল কথা মানব কল্যাণ, জগতের সব প্রাণী সুখী হোক। আমাদেরও সেই কথা। সবাই সুখে থাকবেন সুন্দর জীবন যাপন করবেন।

নেপালের লুম্বিনি ডেভেলপমেন্ট ট্রাস্টের সঙ্গে সরকারের চুক্তির কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তারা বাংলাদেশের পক্ষে সেখানে একটি বৌদ্ধ মন্দির নির্মাণ করবেন। কারণ আমরা ভগবান গৌতম বুদ্ধের জন্মস্থানে বাংলাদেশের একটি প্রতীক রাখতে চাই।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতাকে ১৫ আগস্ট সপরিবারে হত্যার পর বাংলাদেশকে একটি ধর্মীয় রাষ্ট্র হিসেবে ঘোষণার চেষ্টা হয়েছিল। খুনিরা ঘোষণাও দিয়েছিল, কিন্তু সফল হয়নি। বাংলাদেশের মানুষ তা মেনে নেয়নি। কারণ, বাংলাদেশকে জাতির পিতা অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক দেশ হিসেবে গড়তে চেয়েছিলেন। আর আমাদের মুক্তিযুদ্ধে সব ধর্ম-বর্ণের মানুষ কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে যুদ্ধ করেছে।

বিএনপি নববর্ষ ও পহেলা বৈশাখের অনুষ্ঠান বন্ধ করে দিয়েছিল উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নতুন শতাব্দীতে আমরা যখন পদার্পণ করব বলে একটি কর্মসূচি নিয়ে জাতীয় কমিটি করেছিলাম, খালেদা জিয়া তখন ক্ষমতায়। আমাদের অনুষ্ঠান করতে দেবে না। বাংলা নববর্ষ উদযাপন করা না কি হিন্দুয়ানি? অদ্ভুত অদ্ভুত কথা শুনতে হতো। সেই অনুষ্ঠানে বাধা দিল। কিন্তু দেশের মানুষ সেই বাধা মানল না। দেশের মানুষ যেটা ন্যায়সঙ্গত হয়, সেটাই করে। এক প্রকার জোর করেই আমরা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ঢুকলাম। তখন সেখানে উপস্থিত ছিল হাজার হাজার মানুষ। আমরা দিবসটি উদযাপন করলাম। এখন কিন্তু পহেলা বৈশাখ, নববর্ষ আমরা পালন করি। এই উৎসব কিন্তু জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবাই মিলে পালন করি। প্রত্যেক ধর্মীয় উৎসবে সব ধর্মের মানুষ এই দেশে অংশ নেয়। পৃথিবীর আর কোনো রাষ্ট্রে এটি আছে বলে আমার জানা নেই।

জাতির পিতা সংবিধানে ধর্ম নিরপেক্ষতার নিশ্চয়তা দিয়েছিলেন উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, প্রকৃতপক্ষে যার যার ধর্ম সে পালন করবে। এটাই ধর্ম নিরপেক্ষতা। ধর্মনিরপেক্ষতার ব্যাখ্যাও বিকৃত করে দেয়ার চেষ্টা হয়েছিল। ধর্মনিরপেক্ষতা মানে ধর্মহীনতা নয়। কেউ কেউ এটার অপব্যাখ্যা দেয়ার চেষ্টা করেছিল। এটা আমরা স্পষ্ট করেছি। জাতির পিতা আজ আমাদের মাঝে নেই, কিন্তু তিনি যে অসাম্প্রদায়িক চেতনা নিয়ে বাংলাদেশ গড়ে তুলেছিলেন সেই চেতনায় বাংলাদেশকে উন্নত-সমৃদ্ধ এবং ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত করে গড়ে তোলাই আমার একমাত্র লক্ষ্য। এ সময় বৌদ্ধ ধর্মসহ দেশের সব ধর্মীয় সম্প্রদায়ের কল্যাণে তার সরকারের নেয়া নানা পদক্ষেপের উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App