×

শেষের পাতা

ঘাতক স্বামী মিজানুর রহমান সুমন গ্রেপ্তার

সংসার চালাতে বেশি টাকা চাওয়ায় দ্বিতীয় স্ত্রীকে হত্যা

Icon

প্রকাশ: ২৩ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

সংসার চালাতে বেশি টাকা চাওয়ায় দ্বিতীয় স্ত্রীকে হত্যা

কাগজ প্রতিবেদক : সংসার চালানোর জন্য দ্বিতীয় স্ত্রী বিলকিস বেগম (২৬) হঠাৎ করেই বেশি টাকা চাওয়া শুরু করে বলে দাবি তার স্বামী মিজানুর রহমান সুমনের (২৮)। এ থেকেই দুজনের সম্পর্কে শুরু হয় তিক্ততা। একপর্যায়ে পেশায় ট্যাক্সিচালক স্বামী বিলকিসকে হত্যার পরিকল্পনা করেন। এজন্য বেশ কয়েকদিন ধরেই সুযোগ খুঁজছিলেন সুমন। এরই ধারাবাহিকতায় গত রবিবার ঘুরতে বেরিয়ে পরিকল্পিতভাবে রাজধানীর পূর্বাচলে নিয়ে বিলকিসকে পুড়িয়ে হত্যা করেন তিনি। গত মঙ্গলবার গাজীপুরের বাসন এলাকায় অভিযান চালিয়ে সুমনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

স্ত্রীকে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় ঘাতক স্বামীকে গ্রেপ্তারের বিষয়ে অয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান র?্যাব-১ এর কমান্ডিং অফিসার (সিও) লে. কর্নেল মোস্তাক আহমেদ। গতকাল বুধবার দুপুরে র?্যাব-১ এর উত্তরার কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

কর্নেল মোস্তাক আহমেদ বলেন, সুমন পেশায় ট্যাক্সিচালক। তার গ্রামের বাড়ি কুমিল্লার মুরাদনগরে। তবে কয়েক বছর ধরে প্রথম স্ত্রী শিমু, দেড় বছরের মেয়ে ও মাসহ রাজধানীর তুরাগ থানার রানাভোলায় একটি ভাড়া বাসায় থাকতেন তিনি। এ অবস্থায় দুবছর আগে কাউকে না জানিয়ে বিলকিস বেগমকে বিয়ে করে রানাভোলার প্রায় দুই কিলোমিটার দূরে নয়াপাড়া নামক স্থানে অন্য একটি ভাড়া বাসায় রাখেন। সুমনকে স্বল্প আয়ে দুটি সংসার চালাতে হতো। গত ৩-৪ মাস ধরে বিলকিস সুমনের কাছে একটু বেশি টাকা দাবি করলে তাদের মধ্যে তিক্ততা শুরু হয়। একপর্যায়ে দ্বিতীয় স্ত্রীকে হত্যার পরিকল্পনা করেন তিনি। সেই পরিকল্পনার অংশ হিসেবে সুমন মাঝে মধ্যে বিলকিসকে নিয়ে পূর্বাচল এলাকায় ঘুরতে যেতেন ও খুনের সুযোগ খুঁজতেন।

র‌্যাব কর্মকর্তা বলেন, সুমন গত রবিবার দুপুরের পর নিজের ট্যাক্সিতে করে বিলকিসকে নিয়ে পূর্বাচল এলাকায় ঘুরতে যান। তারা পথে চা পান করেন। এর ফাঁকে সুমন জায়গা ও সুযোগ খুঁজতে থাকেন। বিকাল ৪টার পর বিলকিসকে নিয়ে পূর্বাচলের ২৪ নম্বর সেক্টরের একটি জঙ্গলে যান তিনি। জায়গাটা নিরিবিলি দেখে তিনি সেখানে গাড়ি থামান। বিলকিস গাড়িতে বসে থাকে আর সুমন বেরিয়ে পাইপ দিয়ে গাড়ি থেকে পেট্রোল বের করে একটি বোতলে ঢোকায়। গাড়িটির ইঞ্জিন তখনো চালু অবস্থায় ছিল। কিছুক্ষণ পর বিলকিস গাড়ি থেকে বের হন। তখন সুমন বিলকিসের গায়ে পেট্রোল ছিটিয়ে দিয়াশলাই দিয়ে আগুন জ্বালিয়ে গাড়িতে করে পালিয়ে যান। এ সময় দগ্ধ বিলকিস চিৎকার করতে থাকেন। বিলকিসের চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে আসেন ও

তাকে উদ্ধার করে প্রথমে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান। অবস্থার অবনতি হলে সেখান থেকে শেখ হাসিনা বার্ন ইনস্টিটিউটে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পরদিন গত সোমবার সকাল ৯টার দিকে বিলকিস মারা যান। ঘটনার পর সুমন আত্মগোপনে চলে যান। পরে সুমনকে ধরতে র‌্যাব-১ এর একটি দল ছায়াতদন্ত শুরু করে গোয়েন্দা নজরদারির মাধ্যমে গ্রেপ্তারে সক্ষম হয়।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App