×

শেষের পাতা

কমলাপুর আইসিডিতে শুল্ক ফাঁকি

কন্টেইনারের পণ্য চুরির মামলা ঝুলছে রিভিশনে

Icon

প্রকাশ: ১৮ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ প্রতিবেদক : শুল্ক না দিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে কমলাপুর আইসিডি থেকে কন্টেইনারের মালামাল চুরির অভিযোগে ৯ আসামির বিরুদ্ধে মামলা ঝুলে আছে রিভিশনে। ২০১৮ সালে ওই চুরির ঘটনার পর ৬ বছরেও মামলার সাক্ষ্য শুরু হয়নি। মামলার বিচারকাজ ঢাকার ১৩ নম্বর অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতে আটকে আছে। সংশ্লিষ্ট আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০২৩ সালের ১৫ অক্টোবর আসামিদের বিরুদ্ধে মামলার চার্জ গঠন করেন আদালত। ওই চার্জ গঠনের বিরুদ্ধে রিভিশন মামলা দায়ের করেন আসামি মোয়াজ্জেম হোসেন। এজাহারে নাম না থাকা ও সুনির্দিষ্ট অভিযোগ না থাকা সত্ত্বেও হয়রানি করার জন্য চার্জশিটে তার নাম উল্লেখ করা হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি। আদালতে মামলার রিভিশন শুনানির জন্য আগামী ২৮ মে দিন ধার্য রয়েছে। আসামির আইনজীবী মোতিনুর রহমান সিদ্দিকী ভোরের কাগজকে বলেন, মোয়াজ্জেমের নাম এজাহারে ছিল না। তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে চার্জশিটে নাম উল্লেখ করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে চার্জগঠন প্রশ্নে আমরা আদালতে রিভিশন দাখিল করেছি। মামলাটি তদন্ত করে ২০২২ সালের ১৫ এপ্রিল ৯ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করে সিআইডি। চার্জশিটভুক্ত আসামিরা হলেন সাইদুর রহমান চৌধুরী, কাজী সাইফুল ইসলাম, ইয়াসিন মিয়া, আমিনুল ইসলাম, মো. শরীফ, উচ্চমান বহিঃসহকারী মোহাম্মদ আখতার ও জাহাঙ্গীর আলম, এএসআই মোয়াজ্জেম হোসেন ও সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা মামুন হোসাইন। মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, শুল্ক ও বন্দর চার্জ পরিশোধ না করেই ২০১৮ সালের ২৭ ডিসেম্বর রাতে কমলাপুর আইসিডির সাইফ পাওয়ার টেক লিমিটেডের পার্কিং এলাকায় আমদানিকারক মেসার্স জান্নাত এন্টারপ্রাইজের ১০৩৮ প্যাকেজ এসর্টেড গুডস পণ্যবাহী চার কন্টেইনারের মালামাল উল্লেখিত আসামিদের যোগসাজশে ১০টি কাভার্ডভ্যানে করে চুরি হয়। এ অভিযোগে কমলাপুরের আইসিডির নিরাপত্তা পরিদর্শক সৈয়দ হোসাইন আহাম্মদ বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App