×

শেষের পাতা

বহির্বিশ্বে বিমানসহ দেশীয় এয়ারলাইন্সের রুট বাড়ছে

Icon

প্রকাশ: ১১ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

হরলাল রায় সাগর : দেশীয় সরকারি-বেসরকারি এয়ারলাইন্সগুলোর পরিসর বাড়ছে বহির্বিশ্বে। চলতি বছরেই বেশ কয়েকটি রুটে ডানা মেলতে চায় এয়ারলাইন্সগুলোর ফ্লাইট। রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স এবং বেসরকারি সংস্থা ইউএস-বাংলা, নভোএয়ার ও এয়ার অ্যাস্ট্রা বিভিন্ন দেশের ১৮টি রুটে বিমান পরিচালনা করার প্রস্তুতি নিচ্ছে। করোনা মহামারির পর যাত্রী বেড়ে যাওয়া এবং কূটনৈতিক সম্পর্কের উন্নয়ন ঘটায় এয়ারলাইন্সগুলো সক্ষমতা অনুযায়ী যোগাযোগ ব্যবস্থার প্রসার ঘটাতে উদ্যোগী হয়েছে। পাশাপাশি রাষ্ট্রায়ত্ব সংস্থাটিতে বোয়িং বিমানের সঙ্গে এয়ারবাস সংযোজনেরও পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। বর্তমানে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বহরে ২১টি উড়োজাহাজ রয়েছে। বিশ্বের ৭০টি দেশের সঙ্গে বিমান চালনা চুক্তি থাকলেও ১৬টি দেশে উড়োজাহাজ চলাচল করছে। পশ্চিমা দেশে বিমান যোগাযোগ ভালো অবস্থানে রয়েছে। এখন নজর দেয়া হচ্ছে পূর্বের দেশে। এজন্য ইতালির রোম ও জাপানের নারিতায় এরই মধ্যে উড়োজাহাজ চালানো শুরু করেছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। এখন সিডনি, বালি, ব্রুনেই, উজবেকিস্তান ও ফিলিপাইনে ফ্লাইট পরিচালনা করার প্রস্তুতি চলছে। উজবেকিস্তানের সঙ্গে পুনরায় সরাসরি বিমান চলাচলের জন্য গত ৬ মে মন্ত্রিসভায় চুক্তির খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হয়েছে। ১৯৯৩ সালে দেশটির সঙ্গে বিমান চলাচল শুরু হলে ২০০৫ সালে বন্ধ হয়ে যায়। এছাড়া আগামীতে নিউইয়র্ক, মালে, কুনমিংসহ ব্যবসায়িকভাবে সম্ভাবনাময় রুটে ফ্লাইট শুরু করার পরিকল্পনা রয়েছে বিমানের। এজন্য ২০৩৪ সালের মধ্যে আরো অন্তত ২৫টি উড়োজাহাজ কেনার সিদ্ধান্ত রয়েছে কর্তৃপক্ষের। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শফিউল আজিম বলেন, পশ্চিমা দেশগুলোয় বিমান ভালো অবস্থানে রয়েছে। এখন পূর্বদিকেও নজর দেয়া হয়েছে। আমাদের দূরবর্তী পরিকল্পনায় রয়েছে সিডনি, বালি, ব্রুনেই ও ফিলিপাইনে ফ্লাইট পরিচালনা করা। ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসের বহরে বর্তমানে আছে ২৪টি উড়োজাহাজ। সম্প্রতি ৪৩৬ আসনের দুটি এয়ারবাস ৩৩০-৩০০ যুক্ত হয়েছে। এ বছরের শেষ দিকে আরো অন্তত ৩টি উড়োজাহাজ বহরে যুক্ত করার লক্ষ্য রয়েছে। বহরের নতুন এয়ারবাস দুটি আবুধাবিতে ফ্লাইট শুরু করেছে। বর্তমানে অভ্যন্তরীণ সব রুট ছাড়াও বিদ্যমান দুবাই, শারজা, আবুধাবি, মাস্কাট, দোহা, কুয়ালালামপুর, মালে, সিঙ্গাপুর, ব্যাংকক, গুয়াংজু, চেন্নাই ও কলকাতা রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করছে। কোম্পানিটি এখন প্রস্তুতি নিচ্ছে জেদ্দা, রোম ও লন্ডন রুটে ফ্লাইট পরিচালনার। তবে সবার আগে সৌদি আরবের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর জেদ্দায় ফ্লাইট পরিচালনা করতে চায় সংস্থাটি। আগামী আগস্ট থেকে জেদ্দায় প্রবাসী ও শ্রমজীবী বাংলাদেশিদের উন্নত যাত্রীসেবা প্রদানের লক্ষ্যে ফ্লাইট শুরু করতে যাচ্ছে। সপ্তাহে প্রতিদিন ৪৩৬ আসনের বৃহদাকার এয়ারবাস ৩৩০-৩০০ এয়ারক্রাফট দিয়ে ঢাকা-জেদ্দা রুটে ফ্লাইট শুরু করার পরিকল্পনা নিয়েছে। এছাড়া আগামী বছরের ফেব্রুয়ারিতে রোম এবং অক্টোবর নাগাদ লন্ডন রুটে ফ্লাইট চালু করার প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছেন ইউএস-বাংলার মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) মো. কামরুল ইসলাম। এয়ারলাইন্স কোম্পানি নভোএয়ারের বহরে এটিআর ৭২-৫০০ মডেলের উড়োজাহাজ আছে ৭টি। ৯টি গন্তব্যে ফ্লাইট পরিচালনা করা হচ্ছে। নিজেদের বহরে এ৩২১ মডেলের একাধিক উড়োজাহাজ যুক্ত করার প্রক্রিয়ায় রয়েছে সংস্থাটির। উড়োজাহাজগুলো যুক্ত হলে পর্যায়ক্রমে ব্যাংকক, কুয়ালালামপুর, দুবাইসহ ৬টি আঞ্চলিক গন্তব্যে ফ্লাইট চালু করতে চায় এয়ারলাইনসটি। দেশের নবীনতম উড়োজাহাজ পরিবহন সংস্থা এয়ার অ্যাস্ট্রার (অ্যাস্ট্রা এয়ারওয়েজ) উড়োজাহাজ আন্তর্জাতিক রুটে ডানা মেলতে চায় এ বছরেই। আগামী অক্টোবর নাগাদ ভারতের কলকাতা এবং নেপালের কাঠমান্ডু ও পোখারায় ফ্লাইট চালু করার প্রস্তুতি নিচ্ছে। ফ্রিকোয়েন্সি বরাদ্দ চেয়ে গত মার্চে বেবিচকে আবেদন করেছে সংস্থাটি। বর্তমানে অভ্যন্তরীণ রুটে পরিচালনা করা এ কোম্পানির বহরে ৩টি উড়োজাহাজ রয়েছে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App