×

শেষের পাতা

ঝড় ও বজ্রপাতে চার জেলায় ৭ জনের মৃত্যু

Icon

প্রকাশ: ০৭ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ ডেস্ক : কালবৈশাখী ও বজ্রপাতে চার জেলায় সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল সোমবার সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত বৃষ্টির সঙ্গে বজ্রপাতে শরীয়তপুরের দুই উপজেলায় তিনজন, সিলেটের কানাইঘাটে একজন ও নেত্রকোণার আটপাড়ায় একজনের মৃত্যু হয়। এছাড়া গত রবিবার দিবাগত রাতে ঢাকার ধামরাইয়ে কালবৈশাখীতে ঘরের দেয়াল ধসে পড়ে দুই নিরাপত্তাকর্মীর মৃত্যু হয়েছে। এ ব্যাপারে আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর- শরীয়তপুর : জেলার জাজিরা ও ভেদরগঞ্জ উপজেলায় বজ্রপাতে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার দুপুরে বৃষ্টির সময় বজ্রপাতে তাদের মৃত্যু হয়। তারা হলেন- জাজিরা উপজেলার পূর্ব নাওডোবা ইউনিয়নের পাইনপাড়া এলাকার আমেনা বেগম (৩৫) ও কুন্ডেরচরের বাবুরচরের হান্নান (৩৬) এবং ভেদরগঞ্জ উপজেলার চরসেনসাস ইউনিয়নের বেড়াচাক্কি গ্রামের কুলসুম বেগম (৩২)। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বৃষ্টির মধ্যে মায়ের খোঁজ করতে গিয়েছিলেন আমেনা বেগম। ফসলি মাঠের মধ্য দিয়ে হাঁটতে হাঁটতে মাকে খুঁজছিলেন তিনি। এ সময় হঠাৎ বজ্রপাতের আঘাতে মারা যান আমেনা বেগম। পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ শরীফুল আলম বলেন, বজ্রপাতে এক নারীর মৃত্যুর খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তারা এসে প্রতিবেদন দিলে বিস্তারিত বলা যাবে। চরসেনসাস ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বি এম আনোয়ার হোসেন সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। সিলেট : কানাইঘাটে মাঠে গরু চরাতে গিয়ে বজ্রপাতে মাহতাব উদ্দিন মাতাই (৪৫) নামে এক ওমান প্রবাসীর মৃত্যু হয়েছে। সোমবার সকালে উপজেলার দীঘিরপার ৩ নম্বর পূর্ব ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে। মাহতাব উদ্দিন মাতাই উপজেলার দর্পনগর পশ্চিম করচটি গ্রামের রফিকুল হকের ছেলে। তিনি ওমান প্রবাসী ছিলেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কানাইঘাট থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর হোসেন সরদার। তিনি বলেন, সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মাহতাব উদ্দিন সুরমা নদী তীরবর্তী মাঠে গরু চরাতে যান। এ সময় বজ্রপাত হলে তিনি ঘটনাস্থলেই মারা যান। তার মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। আটপাড়া (নেত্রকোণা) : আটপাড়ায় হাওরে ধান কাটার সময় বজ্রপাতে দিন ইসলাম (৩৫) নামের এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার সকালে সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার স্বরমুশিয়া হাওরে বজ্রপাতে মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। নিহত কৃষক দিন ইসলাম উপজেলার স্বরমুশিয়া গ্রামের আব্দুল হেকিমের ছেলে। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে আটপাড়া থানার ওসি মোহাম্মদ তাওহিদুর রহমান জানান, ওই কৃষক নিজের জমির ধান কাটতে গেলে আকস্মিক বজ্রপাতে তিনি আহত হন। পরে অন্যরা উদ্ধার করে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। দুপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এম সাজ্জাদুল হাসান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। ধামরাই (ঢাকা) : ঢাকার ধামরাইয়ে কালবৈশাখীর আঘাতে ঘরের দেয়াল ধসে পড়ে দুই নিরাপত্তাকর্মীর মৃত্যু হয়েছে। এ সময় আরো দুই নিরাপত্তাকর্মী আহত হন। সোমবার বিকালে ধামরাই থানার উপপরিদর্শক (এসআই) পাভেল মোল্লা বিষয়টি নিশ্চিত করেন। এর আগে রবিবার দিবাগত রাত ১১টার দিকে ধামরাইয়ের কুল্লা ইউনিয়নের বরাকৈর এলাকার এসএস এগ্রো কমপ্লেক্সে এ ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন- ধামরাইয়ের কুল্লা ইউনিয়নের বরাকৈর এলাকার এসএস এগ্রো কমপ্লেক্সের নিরাপত্তাকর্মী নওগাঁ জেলার মান্দা থানার কুরু গ্রামের ফকির উদ্দিন সরকারের ছেলে আনিসুর রহমান (৫০) ও গাইবান্ধার পলাশবাড়ী এলাকার মৃত মতিয়ার রহমানের ছেলে শাহারুল আলম (৪৫)। আহতরা হলেন- আল-মামুন (২২) ও হামিদ আলী (৫৫)। এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ইনচার্জ ইউসুফ আলী বলেন, রাত ১টার পরে ধামরাই থেকে চারজনকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। তাদের মধ্যে দুইজন পথেই মারা গিয়েছিল। আরো দুইজন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এসএস অ্যাগ্রো কমপ্লেক্স লিমিটেডের হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা কৃষ্ণ চন্দ্র বলেন, তারা একটি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে এখানে নিরাপত্তারক্ষীর কাজ করতেন। রাতে ঝড়বৃষ্টি হলে টিনের চালা ও দেয়াল পড়ে তারা আহত হন। তারমধ্যে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। অন্য দুইজন চিকিৎসা নিচ্ছেন।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App