×

শেষের পাতা

বরিশালে ইউপি সদস্য গ্রেপ্তার

নির্বাচনের খবর সংগ্রহকালে ভোরের কাগজ সাংবাদিকসহ ৩ জনের ওপর হামলা

Icon

প্রকাশ: ০৩ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

এম কে রানা, বরিশাল থেকে : সদর উপজেলা নির্বাচনের খবর সংগ্রহে গিয়ে আনারস প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের হামলার শিকার হয়েছেন ভোরের কাগজের ফটো সাংবাদিকসহ একাধিক সংবাদকর্মী। গুরুতর আহত তিন সাংবাদিক বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। গত বুধবার রাতের এ ঘটনায় গতকাল বৃহস্পতিবার আহত সাংবাদিক মো. বেল্লাল হোসেন বাদী হয়ে ১২ জন নামধারীসহ অজ্ঞাত ২০-২৫ জনকে আসামি করে বরিশাল মেট্রোপলিটন কোতোয়ালি মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। এদিকে মামলা দায়েরের পরপরই (মেম্বার) সুজন হাওলাদারকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সুজন হাওলাদার সদর উপজেলার জাগুয়া ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ও আনারস প্রতীকের প্রার্থীর কর্মী। বিষয়টি নিশ্চিত করে কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ টি এম আরচিলু হক জানিয়েছেন, এ ঘটনায় জড়িত বাকি আসামিদেরও আইনের আওতায় আনার চেষ্টা চলছে। মামলার অভিযুক্ত আসামিরা হলেন- জাগুয়া ইউনিয়নের সাবেক ইউপি সদস্য জামাল সর্দার, বর্তমান ইউপি সদস্য সুজন হাওলাদার, তাদের অনুসারী শাহকামাল, আসাদুল, কবির হাওলাদার, মিরাজ ফকির, জালাল ফকির, রমিজ হাওলাদার, সুমন হাওলাদার, সাইদুল সিকদার, লিটন মল্লিকসহ ১২ জন নামধারী এবং অজ্ঞাত আরো ২০-২৫ জন। মামলার এজাহারে বাদী উল্লেখ করেছেন, বরিশাল সদর উপজেলা নির্বাচনের প্রচারণা চলাকালীন জাগুয়া ইউনিয়নের চন্ডিপুর গ্রামে আনারস ও মোটরসাইকেল প্রতীকের কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে মারামারি হয়েছে, এমন খবর পেয়ে বুধবার রাত পৌনে ৯টার দিকে চন্ডিপুর মোহাম্মদ আলী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সামনে যান বাদীসহ অন্য সাংবাদিকরা। তারা (সাংবাদিকরা) সেখানে গিয়ে জানতে পারেন, ওই মারামারির ঘটনায় সেলিম খান নামে একজন আহত হয়েছেন। সংবাদের জন্য ঘটনার বিস্তারিত জানতে তথ্য সংগ্রহকালে এজাহারনামীয় ১২ জন আসামিসহ অজ্ঞাত ২০-২৫ জন তাদের (সাংবাদিকদের) ওপর হামলা চালায়। হামলাকারীরা রামদা, দা, লোহার পাইপ, রড, লাঠি দিয়ে সাংবাদিকদের ওপর এলোপাতাড়ি হামলা চালায়। এ সময় সাংবাদিকদের ক্যামেরা ভাঙচুর করার পাশাপাশি মোবাইল ছিনিয়ে নিয়ে যায় হামলাকারীরা। পরে স্থানীয়দের মাধ্যমে ঘটনাস্থল থেকে মামলার বাদীসহ আহত সাংবাদিকদের উদ্ধার করে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। হামলায় গুরুতর আহত হন দৈনিক ভোরের কাগজের বরিশালের ফটো সাংবাদিক আব্দুর রহমান ও দৈনিক তারুণ্যের বার্তার রিপোর্টার এইচএম সোহেল হাসপাতালের সার্জারি ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। দৈনিক ভোরের কাগজের ফটো সাংবাদিক আব্দুর রহমান বলেন, হামলার ঘটনা শুনে আমরা বেশ কয়েকজন সাংবাদিক ঘটনাস্থলে যাই এবং প্রত্যক্ষদর্শীদের কাছ থেকে ঘটনার বর্ণনা ভিডিও করার চেষ্টা করি। এ সময় হঠাৎ করেই আনারস প্রতীকের সমর্থকরা আমার মাথায় দা দিয়ে কোপ দেয় এবং আমার অন্য সহকর্মীরা এগিয়ে আসলে তাদের ওপরও হামলা করা হয়। এদিকে গতকাল সকালে মামলার এজাহারনামীয় আসামি সুজন হাওলাদারকে চন্ডিপুর এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করেছে কোতোয়ালি মডেল থানা পুলিশ। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে সাংবাদিকদের ওপর হামলার ঘটনার সঙ্গে জড়িত, এটা স্বীকার করেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। বিষয়টি নিশ্চিত করে কোতোয়ালি মডেল থানার উপপরিদর্শক মো. রেজাউল ইসলাম বলেন, আটককে দুপুরে ওই মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে। বাকি হামলাকারীদেরও গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ টি এম আরচিলু হক জানিয়েছেন, মামলার বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। সেইসঙ্গে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের আইনের আওতায় আনার চেষ্টাও রয়েছে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App