×

শেষের পাতা

মতবিনিময় সভায় র‌্যাব মুখপাত্র

ফরিদপুর কাণ্ডে জড়িতদের শিগগিরই গ্রেপ্তার করা হবে

Icon

প্রকাশ: ২৯ এপ্রিল ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ প্রতিবেদক : ফরিদপুরে দুই ভাইকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় জড়িতদের শনাক্ত করেছে স্থানীয় প্রসাশন। অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি র‌্যাবও এ হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনতে কাজ করছে। অচিরেই তারা গ্রেপ্তার হবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের নতুন পরিচালক কমান্ডার আরাফাত ইসলাম। গতকাল রবিবার বেলা ১১টার দিকে রাজধানী কারওয়ান বাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত পরিচয়পর্ব ও মতবিনিময় সভায় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন তিনি। কমান্ডার আরাফাত ইসলাম গত বুধবার র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক হিসেবে দায়িত্বভার বুঝে নেন। তিনি সদ্য বিদায়ী পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈনের স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন। ফরিদপুরের মধুখালীর ডুমাইন ইউনিয়নের পঞ্চপল্লীতে মন্দিরের পাশে ২ ভাইকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার চেষ্টা হচ্ছে সাইবার জগতে। যারা অপচেষ্টা করছেন তাদের শনাক্ত করা হয়েছে কিনা- এ প্রশ্নের জবাবে আরাফাত ইসলাম বলেন, একটা অপরাধ সংঘঠনের পর তা ধামাচাপা দেবার অপচেষ্টা হতে পারে। অপরাধী গ্রেপ্তার হলেই সব বেরিয়ে আসবে। সাগর-রুনী হত্যাকাণ্ডের চার্জশিট বার বার পেছানো হচ্ছে। ফলে মামলাটি এখনো বিচারিক প্রক্রিয়াতেই যায়নি। এ ব্যাপারে তিনি বলেন, বিষয়টি চাঞ্চল্যকর ও তদন্ত প্রক্রিয়াধীন। উপজেলা নির্বাচন আসন্ন। নির্বাচন ঘিরে অস্ত্রের ঝনঝনানি হয়। এক্ষেত্রে র‌্যাব কী ধরনের তৎপরতা চালাচ্ছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, পুরো দেশে ৪ পর্বে উপজেলা নির্বাচন হতে যাচ্ছে। একটি অবাধ সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনী পরিবেশ তৈরির জন্য র‌্যাব আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় কাজ করছে। পোশাকের পাশাপাশি সাদা পোশাকেও র‌্যাব সদস্যরা কাজ করছেন। গত দুই বছর ধরে দেশে ক্রসফায়ার নেই। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি কি খুব ভালো হয়ে গেল যে কোনো ক্রসফায়ারের ঘটনা ঘটছে না। নাকি অন্য কোনো চাপে তা হচ্ছে না? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে এ পর্যায়ে কথা বলার কিছু নেই। শুধু র‌্যাব কেন আত্মরক্ষার অধিকার সবার আছে। ক্রসফায়ার শব্দটি আমি ব্যবহার করতে চাই না। আমরা সবসময় চাই বিচার বহির্ভূত কোনো হত্যাকাণ্ড না ঘটুক। যদিও বিভিন্ন সময় এটা নিয়ে ভিন্ন খাতে আলোচনা হয়। কিশোর গ্যাং ও অস্ত্র-মাদক সম্পর্কে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মাদক নিয়ে আমাদের অবস্থান শূন্য সহিষ্ণু পর্যায়ে রয়েছে। কিশোর গ্যাং নির্মূলে উচ্চ পর্যায়ে নির্দেশনা পেয়েছি। আমরা কাজ করছি। প্রচুর কিশোর গ্যাং সদস্যকে আমরা গ্রেপ্তার করেছি। এদের আশ্রয়-প্রশ্রয় ও মদদদাতাদের অবশ্যই আইনের আওতায় আনা হবে। কুকি-চিনের তৎপরতা নির্মূলে র?্যাব ও যৌথ বাহিনীর অভিযান সম্পর্কে জানতে চাইলে র?্যাবের এই মুখপাত্র বলেন, যৌথ বাহিনী কাজ করছে। র‌্যাব যৌথ বাহিনীর অংশ। অভিযানের স্বার্থে এটা নিয়ে কিছু গোপনীয়তা রক্ষার বিষয় আছে। এতটুকু বলতে পারি, র‌্যাব এক্ষেত্রে অগ্রগামী ভূমিকা পালন করছে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App