×

প্রথম পাতা

ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে বৈঠক আজ

তৃতীয় দিনেও কর্মবিরতি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের

Icon

প্রকাশ: ০৪ জুলাই ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

তৃতীয় দিনেও কর্মবিরতি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের

কাগজ প্রতিবেদক : সর্বজনীন পেনশন কর্মসূচি ‘প্রত্যয়’ চালুর প্রজ্ঞাপন প্রত্যাহারের দাবিতে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি পালন করেছেন দেশের ৩৫টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা। গতকাল বুধবার তাদের কর্মবিরতির তৃতীয় দিন অতিবাহিত হয়েছে। আন্দোলনকারীদের অভিযোগ, বৈষম্যমূলক এই পেনশন স্কিম জোর করে চাপিয়ে দেয়া হয়েছে। ‘প্রত্যয়’ স্কিম প্রত্যাহার না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন তারা। ফলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে একপ্রকার অচলাবস্থা তৈরি হয়েছে। এদিকে এই অচলাবস্থা নিরসনে কর্মবিরতি পালনকারী শিক্ষক নেতাদের সঙ্গে আজ বৃহস্পতিবার সকালে বৈঠকে বসবেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। গতকাল বিষয়টি নিশ্চিত করেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের মহাসচিব ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. নিজামুল হক ভূঁইয়া।

তিনি বলেন, বুধবার সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আমাদের সঙ্গে মিটিংয়ের সময় দিয়েছিলেন। কিন্তু পরে সেটি তিনি পরিবর্তন করে বৃহস্পতিবার সকালে সময় দিয়েছেন। আমরা শিক্ষক নেতারা তার সঙ্গে দেখা করে আমাদের দাবি তুলে ধরব। দাবি মেনে নেয়া হলে আমরা কর্মবিরতির আন্দোলন থেকে নিজেদের প্রত্যাহার করব, অন্যথায় আমাদের আন্দোলন চলবে।

প্রসঙ্গত, সর্বজনীন পেনশন স্কিম সংক্রান্ত ‘বৈষম্যমূলক প্রজ্ঞাপন’ প্রত্যাহার ও পূর্বের পেনশন স্কিম চালু রাখার দাবিতে গত ২০ মে সংবাদ সম্মেলন করে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন। তার ধারাবাহিকতায় ২৬ মে বেলা সাড়ে ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ সারাদেশের ৩৫টি বিশ্ববিদ্যালয়ে একযোগে মানববন্ধন করেন শিক্ষকরা। এরপর গত ২৮ মে দুই ঘণ্টা এবং ২৫ ও ২৭ জুন তিনদিন সারাদেশে অর্ধদিবস কর্মবিরতি পালন করা হয়। পরে গত ৩০ জুন পূর্ণ কর্মবিরতি পালন করেন শিক্ষকরা। ১ জুলাই থেকে সর্বাত্মক কর্মবিরতি শুরু করেন তারা।

আন্দোলনরত শিক্ষকদের অভিযোগ, তাদের দাবির তোয়াক্কা না করেই সরকারের নির্দেশ কার্যকর করতে যাচ্ছে জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষ। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের এই স্কিমে অন্তর্ভুক্ত করা ‘অসম্মানের’। ১ জুলাইয়ের পর থেকে যে শিক্ষকরা কাজে যোগ দেবেন; তারা এই স্কিমের আওতায় আসবেন। চাকরি শেষে দেয়ার জন্য বেতন থেকে নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা কেটে নেয়া হবে। এটাই যদি নিয়ম হয়, তবে তা প্রশাসনের কোনো বাহিনীর জন্য করা হলো না কেন- এই প্রশ্ন তাদের।

এদিকে শিক্ষকদের চলমান এই আন্দোলনের মধ্যেই গত মঙ্গলবার ‘প্রত্যয়’ স্কিম নিয়ে ব্যাখ্যা দিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়। এ নিয়ে কথা বলেছেন স্বয়ং অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীও। ‘প্রত্যয়’ স্কিম বাতিলের দাবিতে শিক্ষকরা যে আন্দোলন করছেন, তাকে অযৌক্তিক বলছেন তিনি। এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) দক্ষিণ, মধ্য ও পশ্চিম এশিয়ার ভাইস প্রেসিডেন্ট ইয়াংমিং ইয়ংয়ের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘প্রত্যয়’ স্কিম নিয়ে শিক্ষকদের আন্দোলনের কোনো যুক্তি আমি খুঁজে পাচ্ছি না। পেনশনের ‘প্রত্যয়’ স্কিম বাতিলের দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের আন্দোলন অযৌক্তিক।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App