×

প্রথম পাতা

৪ মন্ত্রণালয় টিডিপির, জেডি-ইউর

টানা ৩ মেয়াদে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির শপথ আজ

Icon

প্রকাশ: ০৯ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

টানা ৩ মেয়াদে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির শপথ আজ

কাগজ ডেস্ক : টানা তৃতীয় মেয়াদে ভারতের সরকারপ্রধান হিসেবে আজ রবিবার শপথ নেবেন নরেন্দ্র মোদি। দেশটির প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরুর পর মোদি দ্বিতীয় ভারতীয় যিনি টানা তৃতীয়বারের মতো ক্ষমতায় এসেছেন। রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মু সন্ধ্যা সোয়া ৭টায় প্রধানমন্ত্রী এবং কেন্দ্রীয় মন্ত্রিপরিষদের অন্য সদস্যদের শপথ পাঠ করাবেন। নয়াদিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবন রাইসিনা হিলস চত্বরে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ ৭ বিদেশি নেতা যোগ দেবেন। আর সব মিলিয়ে এই শপথ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথির সংখ্যা হবে ৮ হাজার।

নরেন্দ্র মোদির নতুন মন্ত্রিসভায় ২৭-৩০ জন সদস্য থাকবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে, যার প্রায় এক-তৃতীয়াংশ হবেন এনডিএ জোটের সদস্য। সঙ্গে কয়েকজন প্রতিমন্ত্রীও থাকতে পারেন।

৪ মন্ত্রণালয় টিডিপির, জেডি-ইউর ২ : নরেন্দ্র মোদির তৃতীয় সরকারে ৪টি মন্ত্রণালয় পেতে যাচ্ছে চন্দ্রবাবু নাইডুর দল তেলেগু দেশম পার্টি (টিডিপি)। নির্বাচনে তারা জিতেছে ১৬ আসনে। আর ১২ আসনে জেতা নীতিশ কুমারের জনতা দল ইউনাইটেড (জেডি-ইউ) পাচ্ছে দুটি মন্ত্রণালয়। সূত্রের বরাতে গতকাল শনিবার এ তথ্য জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি।

খবরে বলা হয়েছে, টিডিপি থেকে মোদির মন্ত্রিসভায় ঠাঁই পেতে চলা সম্ভাব্য ৪ নেতার মধ্যে তিনজন হলেন- কিনজারাপু রামমোহন নাইডু, হরিশ বালযোগী এবং যজ্ঞমালা প্রসাদ। আর নীতিশ কুমারের দল থেকে সম্ভাব্য মন্ত্রী হিসেবে দুজন জ্যেষ্ঠ নেতার নাম প্রস্তাব করা হয়েছে। তারা হলেন- লালন সিং ও রাম নাথ ঠাকুর। বিজেপির নেতৃত্বাধীন জাতীয় গণতান্ত্রিক জোটের (এনডিএ) বৈঠকে নতুন মন্ত্রিসভার বিষয়ে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

সূত্র বলছে, অন্ধ্র প্রদেশে ১৬টি লোকসভা আসনে জয়ী হওয়ার পর টিডিপি ৪টি মন্ত্রণালয় এবং সংসদীয় স্পিকারের পদ দাবি করেছিল। আর ১২ আসনে জেতা জেডি-ইউ চেয়েছিল দুটি মন্ত্রী পদ।

গত ৪ জুন ঘোষিত ফলাফলে দেখা যায়, বিজেপি সর্বাধিক আসনে জয় পেলেও প্রত্যাশার চেয়ে খারাপ ফল করেছে তারা। মোদির নেতৃত্বে আগের দুই নির্বাচনে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেলেও এবার ২৭২ আসনের ম্যাজিক ফিগার পেরোতে ব্যর্থ হয়েছে দলটি। তারা জিতেছে ২৪০ আসনে, অর্থাৎ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে আরো ৩২ আসন দরকার বিজেপির।

যদিও জোটগতভাবে ২৯৩ আসনে জয় পেয়েছে এনডিএ। এর মধ্যে বিজেপির পরে উল্লেখযোগ্য আসন রয়েছে কেবল টিডিপি এবং জেডি-ইউর। ফলে তথাকথিত ‘কিংমেকার’ হয়ে উঠেছেন চন্দ্রবাবু নাইডু ও নীতিশ কুমার। গুরুত্ব পাচ্ছেন নামমাত্র আসন পাওয়া অন্য শরিকরাও।

অষ্টাদশ লোকসভার প্রথম অধিবেশন ১৫ জুন নাগাদ শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। এর মধ্যে প্রথম দুদিন যাবে নবনির্বাচিত সদস্যদের শপথগ্রহণে। এরপরে নতুন স্পিকার নির্বাচন করা হবে এবং রাষ্ট্রপতি লোকসভা ও রাজ্যসভার একটি যৌথ অধিবেশনে ভাষণ দেবেন, অধিবেশনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন। আগামী ২২ জুন অধিবেশন শেষ হওয়ার কথা রয়েছে।

শপথ অনুষ্ঠানে ৭ দেশের নেতা : মোদির শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথিদের একটি তালিকা প্রকাশ করেছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি। তালিকায় রয়েছেন- শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট রনিল বিক্রমাসিংহে, মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুইজ্জু, সিসিলিসের ভাইস প্রেসিডেন্ট আহমেদ আফিফ, মরিশাসের প্রধানমন্ত্রী প্রবীন্দ কুমার জুগনাথ, নেপালের প্রধানমন্ত্রী পুষ্পকমল দহল প্রচন্ড, ভুটানের প্রধানমন্ত্রী শেরিং তোবগে। গতকাল শনিবার ভারতে গেছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং সিসিলিসের ভাইস প্রেসিডেন্ট। বাকি নেতাদের আজ দিল্লিতে পৌঁছার কথা রয়েছে।

দিল্লিজুড়ে কঠোর নিরাপত্তা : শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান নিñিদ্র করতে রাজধানীতে দিল্লিতে জারি করা হয়েছে সর্বোচ্চ সতকর্তা। রাষ্ট্রপতি ভবনে ৫ কোম্পানি আধাসামরিক বাহিনীর জওয়ান ছাড়াও এনএসজি কমান্ডো, ড্রোন এবং স্নাইপার নিয়ে বহুস্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গড়ে তোলা হয়েছে। শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান চলার সময় যে কোনো

অপরাধমূলক বা সন্ত্রাসী হুমকি ঠেকাতে দিল্লিতে নো-ফ্লাই জোন ঘোষণা করা হয়েছে। আজ থেকে শুরু হওয়া বিধিনিষেধ আগামীকাল পর্যন্ত কার্যকর থাকবে।

বিদেশি অতিথিদের হোটেলে বিশেষ প্রোটোকলসহ বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থাও নেয়া হয়েছে। বিশেষ নিরাপত্তার আওতায় রয়েছে লীলা, তাজ, আইটিসি মৌর্য, ক্ল্যারিজেস এবং ওবেরয়ের মতো নামি হোটেলগুলো। অতিথিরা হোটেল থেকে অনুষ্ঠানস্থলে যাবেন নির্দিষ্ট পথে। এ সময় বিভিন্ন রাস্তা বন্ধ এবং ডাইভারশন করার কথা রয়েছে। এছাড়া সীমান্তেও কড়া নজরদারি চলছে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App