×
Icon এইমাত্র
কমপ্লিট শাটডাউন কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে কোটা আন্দোলনকারীরা বাংলাদেশ টেলিভিশনের মূল ভবনে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। বিটিভির সম্প্রচার বন্ধ। কোটা সংস্কার আন্দোলনে সারা দেশে এখন পর্যন্ত ১৯ জন নিহত কোটা ইস্যুতে আপিল বিভাগে শুনানি রবিবার: চেম্বার আদালতের আদেশ ছাত্রলীগের ওয়েবসাইট হ্যাক ‘লাশ-রক্ত মাড়িয়ে’ সংলাপে বসতে রাজি নন আন্দোলনকারীরা

প্রথম পাতা

বেরিয়ে আসছে বেনজীরের সম্পদের নতুন নতুন তথ্য

Icon

এস এম মিজান

প্রকাশ: ০৩ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

বেরিয়ে আসছে বেনজীরের সম্পদের নতুন নতুন তথ্য

বেনজীর আহমেদ

  • দুর্নীতি-ক্ষমতার  অপব্যবহার করে গড়ে তুলেছেন সম্পদের পাহাড়

পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ ও তার স্ত্রী-সন্তানের সম্পদ যেন উপচে পড়ছে। রাতারাতি আলাদিনের চেরাগ পাওয়ার মতো ঘটনা। দেশ-বিদেশে তার সম্পদের পাহাড়ের খবরে সবার চোখ যেন কপালে উঠছে। চমকের পর চমক আসছে। অথচ, পুলিশের সাবেক এই শীর্ষ কর্মকর্তা শিল্পপতি ছিলেন না, বংশ পরম্পরায় বিপুল পরিমাণ সম্পদের মালিকও ছিলেন না।

তাহলে কী করে রাতারাতি পাহাড় সমান সম্পদের মালিক বনে গেলেন? এই প্রশ্ন এখন সব জায়গায়, সব মহলে আলোচনার খোরাক। এখন পর্যন্ত যত সম্পদের তথ্য বের হয়ে এসেছে, তাতে হাজার বিঘার বেশি জমি কিনে তিনি হয়েছেন ‘ল্যান্ডলর্ড’। সংশ্লিষ্টরা বলছেন- এর আগে কোনো আইজিপি বা শীর্ষস্থানীয় কোনো আমলার এত সম্পদের নজির দেখা যায়নি। সবাই বলছেন- বেনজীরের এত সম্পত্তি নজিরবিহীন।

দুদকের অনুসন্ধান সূত্রে জানা গেছে- এ পর্যন্ত বেনজীর ও তার পরিবারের সদস্যদের নামে গোপালগঞ্জ, মাদারীপুর, সাতক্ষীরা, কক্সবাজার, সেন্টমার্টিন দ্বীপ, বান্দরবান, কিশোরগঞ্জ, নীলফামারী, ঠাকুরগাঁও, গাজীপুরসহ ঢাকার আশপাশে হাজার বিঘার বেশি জমির সন্ধান পাওয়া গেছে। রাজধানীর গুলশানে পাওয়া গেছে আলিশান চারটি ফ্ল্যাট, যেগুলোর মোট আয়তন ৯ হাজার ১৯২ বর্গফুট, যার বর্তমান বাজারদর ২৫ কোটি টাকার কম নয়। পরিবারটির নামে ১৯টি প্রতিষ্ঠানের কয়েক কোটি টাকা মূল্যমানের শেয়ার ও তিনটি বিও হিসাব, ৩৩টি ব্যাংক হিসাব পাওয়া গেছে। এসব হিসাব থেকে বেনজীর আহমেদ বিপুল পরিমাণ অর্থ সরিয়ে নিয়েছেন বলে প্রমাণ পেয়েছে দুদক।

দুর্নীতিবিরোধী এই প্রতিষ্ঠানটির একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র বলছে- সরিয়ে নেয়া এই টাকার পরিমাণ কয়েকশ কোটি হতে পারে। জানা গেছে, সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইয়ের প্লাম জুমেরা ও মেরিনা এলাকায় বেনজীরের নামে-বেনামে বেশ কয়েকটি অ্যাপার্টমেন্ট রয়েছে। যার মধ্যে জুমেরা এলাকার ৪০ তলা কনকর্ড টাওয়ারে অবস্থিত একটি অ্যাপার্টমেন্ট কয়েকদিনের মধ্যেই প্রায় ২৯ কোটি টাকায় বিক্রি করেছেন।

দুবাইয়ের মস্কো নামের একটি বহুতল হোটেলে বেনজীরের যৌথ বিনিয়োগের তথ্যও আছে। আর ঢাকার ভাটারা থানাধীন একটি অভিজাত আবাসিক এলাকায় বেনজীরের একটি সাত তলা ভবন ছিল, সেটাও সম্প্রতি বিক্রি করে দিয়েছেন। আর টাকা সরানো ও সম্পদ বিক্রি করা হয়েছে আদালতের আদেশে দুদক কর্তৃক বেনজীর ও তার পরিবারের সদস্যদের স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ জব্দ ও অবরুদ্ধ করার আগে।

এদিকে, দুবাই, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর ছাড়াও কানাডা ও যুক্তরাষ্ট্রে বেনজীর আহমেদ এবং তার পরিবারের কোনো সম্পদ আছে কিনা, সে তথ্য অনুসন্ধানের অনুরোধ জানিয়ে বিএফআইইউতে চিঠি দিয়েছে দুদক। দুদকের অনুরোধ বিবেচনায় নিয়ে এসব দেশের কাছে তথ্য চেয়ে চিঠি পাঠিয়েছে বিএফআইইউ।

জানা গেছে- গোপালগঞ্জ সদর উপজেলায় বৈরাগীটোল গ্রামে জমি কিনে বেনজীর গড়ে তুলেছেন সাভানা ইকোরিসোর্ট অ্যান্ড ন্যাচারাল পার্ক। প্রায় এক হাজার ৪০০ বিঘা জমির ওপর নির্মিত এই ইকো রিসোর্টের বিভিন্ন জায়গায় মাটি ভরাট করে বানানো হয়েছে কৃত্রিম পাহাড়। সাগরের কৃত্রিম ঢেউ খেলানো সুইমিং পুলও রয়েছে এখানে। আছে হাজারের বেশি ভিয়েতনামি নারকেলগাছসহ বিভিন্ন ধরনের ফলের গাছ। রয়েছে বিশাল আকৃতির কনসার্ট হল। এছাড়া বেশ কয়েকটি পুকুর ও দৃষ্টিনন্দন ঘাট, কৃত্রিম ঝরনা ও বিলাসবহুল ডুপ্লেক্স কটেজ।

এছাড়া বেনজীর আহমেদ ও তার পরিবারের সদস্যদের নামে গোপালগঞ্জের পাশাপাশি মাদারীপুরেও কয়েকশ বিঘা জমি কেনা হয়েছে বলে জানা গেছে। শুধু স্থলভাগ নয়, সমুদ্র পাড়েও সম্পত্তি কিনেছেন বেনজীর। ‘জমিবিলাসী’ এ মানুষটি জায়গা কিনেছেন সাগরসৈকতেও।

জানা যায়- সেন্টমার্টিন্স দ্বীপে ১০ বছর আগে নিজের নামে ১ একর ৭৫ শতক জমি কেনেন সাবেক এই আইজিপি। কক্সবাজারের মেরিন ড্রাইভের ইনানী সৈকতে স্ত্রী ও তিন মেয়ের নামে কেনেন আরো ৭২ শতক জমি। সে সময় বেনজীর ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার ছিলেন।

এদিকে, গাজীপুরের ভাওয়াল রিসোর্ট অ্যান্ড স্পা-তেও রয়েছে বেনজীরের মালিকানা। বনভূমি বেষ্টিত এ রিসোর্ট এলাকার মানুষের কাছে ‘বেনজীরের রিসোর্ট’ নামে পরিচিত। পাঁচতারকা মানের এই রিসোর্টের ২৫ শতাংশের মালিক হতে এক পয়সাও লগ্নি করতে হয়নি সাবেক পুলিশপ্রধানকে। ব্যক্তি মালিকানাধীন জমি উদ্ধার করতে গিয়ে নিজেই গাজীপুরের এ রিসোর্টের মালিক বনে গেছেন সাবেক আইজিপি বেনজীর। শুরুতে ১৯ একর জমি নিয়ে এ রিসোর্টের কাজ শুরু হলেও বেনজীরের ক্ষমতার দাপটে প্রায় ৫০ একর জায়গা দখল করে নেন রিসোর্ট মালিকরা। ভাওয়াল রিসোর্ট ছাড়াও রাজধানীর পূর্বাচল উপশহর ঘেঁষে গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার নাগরী ইউনিয়নের

পাশের চান্দখোলা মৌজার বেতুয়ারটেক গ্রামে বেনজীর বিঘার পর বিঘা জমি কিনেছেন বলেও দুদকের অনুসন্ধানে বের হয়ে এসেছে। সম্প্রতি কালীগঞ্জ সাবরেজিস্ট্রি অফিসে তল্লাশি চালিয়ে বেনজীর ও তার স্ত্রী এবং বড় মেয়ের নামে দুদক পাঁচটি দলিল পেয়েছে।

মালয়েশিয়ায় ‘সেকেন্ড হোম’ : মালয়েশিয়ায় দ্বিতীয় নিবাস গড়ার কর্মসূচি ‘মালয়েশিয়া মাই সেকেন্ড হোম’ প্রকল্পের অধীনে বেনজীর আহমেদ বিপুল বিনিয়োগ করেছেন বলে জানা গেছে। মালয়েশিয়ার হুন্ডি ব্যবসায়ীদের মধ্যে অন্যতম হুমায়ুন কবির ও রতনের মাধ্যমে বেনজীর বিপুল টাকা পাচার করেন। পাচার করা টাকায় পরিবারের থাকার জন্য একটি অত্যাধুনিক বাড়ি কিনেছেন বেনজীর। বিনিয়োগ করেছেন আবাসন খাতে।

এদিকে কম যান না বেনজীরের শাশুড়ি-শ্যালকও। বেনজীরের প্রভাব কাজে লাগিয়ে সম্পত্তি বাগিয়েছেন শ্বশুরালয়ের আত্মীয়রাও। সাতক্ষীরা সদর উপজেলার দক্ষিণ আলীপুর গ্রামে ৪৮ বিঘা জমির ওপর একটি আধুনিক ইটভাটা স্থাপন করেছিলেন আনারুল ইসলামের ছেলে আশরাফুজ্জামান হাবলু। কিন্তু পাঁচ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত ইটভাটাটি যাত্রা শুরুর কয়েকদিনের মধ্যেই দখল করে নেন বেনজীর আহমেদের শ্যালক মির্জা আনোয়ার পারভেজ। ভগ্নিপতির ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে রাতের অন্ধকারে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে ক্রসফায়ারের ভয় দেখিয়ে হাবলুর কাছ থেকে ইটভাটাটি দখল করেন পারভেজ। এছাড়া সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার ১ নম্বর শোভনালী ইউনিয়নের শরাফপুর গ্রামে বেনজীরের শাশুড়ি লুৎফুন নেসার নামে শতাধিক বিঘার ওপর চারটি মাছের ঘের আছে বলে জানা গেছে। পাশাপাশি আরকুনি মৌজায় দুটি, পশ্চিম বিল আর পাশের পুঁটিমারি বিলেও আরো কয়েকটি মাছের ঘের রয়েছে।

মাদারীপুরে বেনজীরের স্ত্রীর বিপুল জমি : মাদারীপুরে বেনজীরের স্ত্রী জীশান মির্জার নামে ২৭৩ বিঘা জমি কেনা হয়েছে বলে জানা গেছে। বেনজীর আহমেদ অবসরে যাওয়ার ঠিক আগ মুহূর্তে স্ত্রী জীশান মির্জার নামে এসব জমি কেনা হয়। এসব জমির রেজিস্ট্রি মূল্য দেখানো হয়েছে প্রায় ১০ কোটি ২১ লাখ টাকা। আদালতে উপস্থাপন করা দুদকের নথি পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, দেড় বছরেরও কম সময়ের মধ্যে বেনজীর আহমেদের স্ত্রী জীশান মির্জার নামে ১১৪টি দলিল রেজিস্ট্রি করা হয়।

এদিকে, দুদকে দাখিল করা সম্পদ বিবরণীতে দেখা যায়, ২০২৩ সালের ৫ মার্চ বেনজীর আহমেদ রাজধানীর অভিজাত এলাকা গুলশানে মোট ৯ হাজার ১৯২ বর্গফুট আয়তনের চারটি ফ্ল্যাট মাত্র ২ কোটি ১৯ লাখ টাকায় কিনেছেন। তবে বাস্তবে এই ৯ হাজার বর্গফুট রিয়েল এস্টেটের মূল্য হবে কমপক্ষে ২৫ কোটি টাকা। এই চারটি ফ্ল্যাট ছাড়াও মেয়ের ‘বিশ্রামের জন্য’ সাড়ে ৩ কোটি টাকা দিয়ে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় একটি ফ্ল্যাট কেনেন বেনজীর। ২০১৭ সালে র‌্যাবের মহাপরিচালক থাকাকালে সাড়ে ৩ হাজার বর্গফুটের এ ফ্ল্যাট কেনেন তিনি। এছাড়া বেনজীরের দুই মেয়ের নামে বেস্ট হোল্ডিংস ও পাঁচতারা হোটেল ‘লা মেরিডিয়ান’-এর ২ লাখ শেয়ার রয়েছে বলে জানা যায়। ৫৫ টাকা অধিকমূল্যে ৬৫ টাকা প্রতিটি শেয়ারের দর হিসাবে এই কোম্পানিতে বেনজীরের দুই মেয়ের বিনিয়োগ ১ কোটি ৩০ লাখ টাকা।

এদিকে, দুদক অনুসন্ধান সংশ্লিষ্ট সূত্র জানা গেছে- স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন ঠিকাদারি কাজে বিতর্কিত হয়ে দেশজুড়ে আলোচিত নাম মোতাজেরুল ইসলাম মিঠুর সঙ্গে বেনজীর আহমেদের ব্যবসা রয়েছে বলে তথ্য পেয়েছে দুদক। উত্তরাঞ্চলের দুটি জেলায় কয়েকশ বিঘা জমি কিনেছেন তারা। তার মধ্যে অন্তত তিনটি জায়গায় শত বিঘার ওপর গড়ে তোলা হয়েছে ‘নর্থ পোলট্রি খামার’। মুরগির খাদ্যের ব্যবসাও আছে তাদের। এর মধ্যে ঠাকুরগাঁওয়ের জগন্নাথপুর ইউনিয়নের বড় খোজাবাড়ি এলাকায় বিশাল পোলট্রি খামার রয়েছে। নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার চাঁদপুর ইউনিয়নে ভিন্ন জগৎ পার্কসংলগ্ন এলাকায় একই নামে রয়েছে আরেকটি খামার। এছাড়া কিশোরগঞ্জ উপজেলার ধরেয়ার বাজার এলাকায় আরো একটি খামার রয়েছে। এসব খামারে নামে-বেনামে কয়েকশ বিঘা জমি কেনা হয়েছে বলে জানা গেছে। মিঠুর ভাই মানিক হাজি এই খামারগুলো দেখাশোনা করেন।

বান্দরবানেও বেনজীরের ৮০ একর জমির খোঁজ : বেনজীর আহমেদ ও তার স্ত্রী-কন্যার নামে বান্দরবানে রয়েছে কয়েক কোটি টাকার সম্পত্তি। এসব সম্পত্তি দেখাশোনা করেন বান্দরবান জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মং ওয়াইচিং মারমা। জানা যায়- বান্দরবান পৌরসভার মধ্যমপাড়া এলাকার আবুল কাশেমের ছেলে শাহজাহানের কাছ থেকে বান্দরবান সদর উপজেলার ৩১৪ নম্বর সুয়ালক মৌজায় ৬১৪ নম্বর দাগের ৩ নম্বর সিটে ২৫ একর লিজের জমি ক্রয় করেন বেনজীর আহমেদ, তার স্ত্রী জীশান মির্জা ও মেয়ে ফারহীন রিশতা বিনতে বেনজীর। যেখানে গড়ে তুলেছেন গবাদি পশুর খামার, মৎস্য প্রজেক্ট, ফলজ, সেগুন বাগান ও বিলাসবহুল খামারবাড়ি। এই খামারবাড়িতে রয়েছে অন্তত অর্ধকোটি টাকারও বেশি গবাদিপশু। এছাড়া লামা উপজেলার সরই ডলুছড়ি মৌজার টংগো ঝিরিতে রয়েছে আরো অর্ধশত একরেরও বেশি জায়গা।

আরো পড়ুন:

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App