×

প্রথম পাতা

লঘুচাপের আভাস

কমছে তাপমাত্রা বৃষ্টি থাকবে ১০ দিন

Icon

প্রকাশ: ২০ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ প্রতিবেদক : বিরতি দিয়ে শুরু হওয়া তাপপ্রবাহ আবার কমে গেছে। সারাদেশে বৃষ্টির প্রবণতা বাড়ায় কমছে তাপমাত্রা। বৃষ্টি আরো দিন দশেক থাকার আভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। গতকাল রবিবার দেশের অন্তত ২৩টি অঞ্চলে বেশ বৃষ্টিপাত হয়েছে। সর্বোচ্চ বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে তেতুলিয়ায় ১০৬ মিলিমিটার।

এদিকে বুধবার বা বৃহস্পতিবার বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপ এবং পরবর্তী সময়ে নি¤œচাপ তৈরি হওয়ার আভাস দিয়েছেন আবহাওয়াবিদরা। এছাড়া ২৫ মের মধ্যে বঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণিঝড় সৃষ্টির আশঙ্কার কথা জানিয়েছে আমেরিকা ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের আবহাওয়া পূর্বাভাস মডেল। আবহাওয়াবিদ ড. মুহাম্মদ আবুল কালাম মল্লিক বলেন, ঢাকায় দিনের তাপমাত্রা আর কমার সম্ভাবনা নেই। সোমবার যদি আবারো সূর্য তাপ ছড়ায়, তাহলে আবারো বেড়ে যাবে তাপমাত্রা।

গতকাল সন্ধ্যায় আবহাওয়ার পরবর্তী সময়ে ৭২ ঘণ্টার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রংপুর, ময়মনসিংহ, ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রাজশাহী, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের দুয়েক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে শিলাবৃষ্টির আশঙ্কা রয়েছে। গতকাল সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে তেঁতুলিয়ায় ১০৬ মিলিমিটার। এছাড়া ডিমলায় ৫৫, রাজারহাটে ২৮, সিলেটে ১৩, রংপুরে ৮, গোপালগঞ্জে ১৫, চট্টগ্রামে ১৮, স›দ্বীপে ৭১, কুমিল্লায় ১৮, ফেনীতে ১৪, সাতক্ষীরায় ২ মোংলায় ১, বরিশালে ২ পটুয়াখালীতে ২৫, ভোলায় ১০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে রবিবার।

পূর্বাভাসে আরো জানানো হয়েছে, রাজশাহী, পাবনা, দিনাজপুর ও নীলফামারী জেলাসহ খুলনা ও বরিশাল বিভাগসমূহের উপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে। সারাদেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, মোংলায় বৃষ্টি হলেও গতকাল দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৩৮ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ঢাকায় তাপমাত্রা ছিল ৩৫ দশমিক ৪, মাদারীপুর, গোপালগঞ্জ ও টাঙ্গাইলে ৩৫ দশমিক ৫, রাজশাহী ও ঈশ্বরদীতে ৩৭, রংপুরে ৩৪ দশমিক ৬, সিলেটে ৩০ দশমিক ৪, চট্টগ্রামে ৩৩ দশমিক ১, খুলনায় ৩৭ দশমিক ৫, সাতক্ষীরায় ৩৭, যশোরে ৩৭ দশমিক ২, চুয়াডাঙ্গায় ৩৮ দশমিক ২, বরিশালে ৩৬ দশমিক ৫, পটুয়াখালীতে ৩৭ ও খেপুপাড়ায় ৩৬ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

আবহাওয়াবিদ ওমর ফারুক বলেন, ২২ অথবা ২৩ মের দিকে বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপ তৈরির সম্ভাবনা আছে। এখন পর্যন্ত এটার গতিবিধি ভারতের উড়িষ্যার দিকে। লঘুচাপ তৈরি না হওয়ার আগ পর্যন্ত বলা যাচ্ছে না বাংলাদেশে আঘাত হানবে কিনা। তবে ২৭ তারিখের দিকে উপকূলে আসতে পারে। ২৮ মে পর্যন্ত দেশে বৃষ্টিপাত থাকবে, তবে লঘুচাপ তৈরির সময় তাপমাত্রা বাড়তে পারে।

এদিকে ভারতীয় আবহাওয়া অধিদপ্তর গতকাল পূর্বাভাস দিয়েছে, ২২ মে দক্ষিণ-পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে একটি লঘুচাপ সৃষ্টি হতে পারে। ২৪ মে লঘুচাপটি নি¤œচাপে পরিণত হতে পারে। আমেরিকা ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের আবহাওয়া পূর্বাভাস মডেল জানিয়েছে, গভীর নি¤œচাপ অবস্থা থেকে আরো শক্তিশালী হয়ে ২৫ মে পূর্ণাঙ্গ ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। ঘূর্ণিঝড়টি ভারতের উড়িষ্যা ও বাংলাদেশের বরিশাল বিভাগের মধ্যবর্তী উপকূলীয় এলাকার ওপর দিয়ে স্থলভাগে আঘাত হানতে পারে।

চলতি মৌসুমে ৩১ মার্চ থেকে তাপপ্রবাহ শুরু হয়, যা ৬ মে পর্যন্ত টানা ৩৭ দিন ধরে চলে। তবে এর আগে ৩ মে থেকে সামান্য বৃষ্টিপাত হয় কয়েক জায়গায়। এরপর গত সপ্তাহে ঝড়-বৃষ্টির প্রবণতায় কিছুটা স্বস্তি ফেরে গোটা দেশে।

নতুন করে তাপপ্রবাহ শুরু হয় গত ১৩ মে। সেদিন সাত জেলায় তাবপ্রবাহ ছিল; পরে তা ধীরে ধীরে সারাদেশে ছড়িয়ে পড়ে। বুধবার দেশের বেশির ভাগ এলাকাজুড়ে তাপপ্রবাহের মধ্যে দুই দিনের সতর্কবার্তা জারি করা হয়। এরপর শুক্রবারও একই সতর্ক বার্তা দেয় আবহাওয়া অধিদপ্তর। তবে তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রির উপরে ওঠার আশঙ্কা নেই বলেই জানিয়েছিলেন আবহাওয়াবিদ শাহীনুল ইসলাম। বৃহস্পতিবার সারাদেশের ওপর দিয়ে তাবপ্রবাহ বয়ে গিয়েছিল। কয়েকদিনের বৃষ্টিপাতে কমে এসেছে তার বিস্তার। এর আগে টানা তাপপ্রবাহের মধ্যে পারদ চড়তে থাকলে এপ্রিল ও মে মাসের শুরুতে কয়েক দফা সতর্কতা জারি করা হয়েছিল।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App