×

প্রথম পাতা

দেশে তাপদাহে ফের জনজীবন বিপর্যস্ত

Icon

প্রকাশ: ১৮ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কাগজ প্রতিবেদক : চলমান তাপপ্রবাহে আবার আগের মতো বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে জনজীবন। ফল পাকা জ্যৈষ্ঠের খরতাপে পুড়ছে গোটা দেশের মাঠ-ঘাট। গরমে অতিষ্ঠ প্রাণিকুল। তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছুঁইছুঁই করছে। গতকাল শুক্রবার ৩৯ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে উঠেছে পারদ। এ তাপপ্রবাহ অব্যাহত থাকবে। এদিকে আবারো দুদিনের তাপপ্রবাহের সতর্কবার্তা জারি করেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। তবে তাপপ্রবাহের মধ্যেই ঢাকাসহ ছয়টি বিভাগে বজ্রবৃষ্টির সম্ভাবনার কথাও জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। এতে তাপমাত্রা প্রশমিত হতে পারে। পশ্চিমা লঘুচাপের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ থেকে উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। এর ফলে তাপপ্রবাহ শেষে বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টির প্রবণতা রয়েছে। গতকাল শুক্রবার আবহাওয়া অধিদপ্তর দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করেছে চুয়াডাঙ্গায় ৩৯ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এছাড়া ঈশ্বরদী ৩৯ দশমিক ৫, সৈয়দপুরে ৩৯ দশমিক ২, রাজহাট ও কুমারখারীতে ৩৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা উঠেছিল। ঢাকায় তাপমাত্রা ছিল ৩৭ দশমিক ৩ ডিগ্রি। এছাড়া রাজশাহীতে তাপমাত্রা ছিল ৩৭ দশমিক ৪, রংপুর ও দিনাজপুরে ৩৮ দশমিক ৫, ময়মনসিংহে ৩৬ দশমিক ১ সিলেটে ৩৫ দশমিক ৭, চট্টগ্রামে ৩৪ দশমিক ৯, খুলনায় ৩৮, মোংলায় ৩৮ দশমিক ৫, যশোরে ৩৮ দশমিক ৩৮ দশমিক ৮ ও বরিশালে ৩৬ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গতকাল সন্ধ্যায় আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রংপুর, রাজশাহী, ঢাকা, ময়মনসিংহ, খুলনা ও বরিশাল বিভাগসহ মৌলভীবাজার, রাঙামাটি, চাঁদপুর ও ফেনী জেলাগুলোর ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে। দেশের পূর্বাংশে দিনের বেলায় তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে এবং তা অন্যত্র প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। সারাদেশের রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। জলীয়বাষ্পের আধিক্যের কারণে অস্বস্তি বিরাজ করতে পারে। আবহাওয়াবিদ ওমর ফারুক বলেন, চলমান তাপপ্রবাহ আরো দুদিন অব্যাহত থাকতে পারে। ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে ওঠানামা করবে তাপমাত্রা। সারাদেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। আবহাওয়া অধিদপ্তরের সতর্কবার্তা বলা হয়, ঢাকা বিভাগের পশ্চিমাঞ্চলসহ রাজশাহী, রংপুর ও খুলনা বিভাগের ওপর দিয়ে চলমান তাপপ্রবাহ শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে ৪৮ ঘণ্টা অব্যাহত থাকতে পারে। পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, গতকাল শুক্রবার রাজশাহী, বগুড়া, বদলগাচী, রংপুরে সামান্য বৃষ্টি হয়েছে। সর্বোচ্চ বৃষ্টি হয়েছে সিলেটে ১০ মিলিমিটার। চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রংপুর, ময়মনসিংহ, ঢাকা ও বরিশাল বিভাগের দুয়েক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ বজ্রবৃষ্টি হতে পারে। একই সঙ্গে কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে শিলাবৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া দেশের অন্যত্র অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে বলে পূর্বাভাসে বলা হয়েছে। আবহাওয়াবিদ ড. মুহাম্মদ আবুল কালাম মল্লিক বলেন, ঘূর্ণিঝড়ের বিভিন্ন মডেল পর্যবেক্ষণ করে দেখা গেছে, ২১ তারিখের পর দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে একটা ঘূর্ণাবর্ত তৈরি হতে পারে। যেটি পরবর্তীকালে লঘুচাপে পরিণত হওয়ার আশঙ্কা আছে। কিন্তু এখনো লঘুচাপ সৃষ্টি হয়নি। তাই আগে থেকেই এটির গতি প্রকৃতি বলা ঠিক হবে না। অনেক সময় সাইক্লোনে রূপান্তরিত হওয়ার পর সেটির গতি প্রকৃতি পরিবর্তন হয়। তাই এটি এখন উপকূলের কোন অঞ্চলে বা কোন দেশে আঘাত করবে তা বলা উচিত নয়।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App