×

প্রথম পাতা

রাজধানীর চিত্র

ঘণ্টা খানেকের বর্ষণে জলাবদ্ধ সড়ক

Icon

প্রকাশ: ১২ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

 ঘণ্টা খানেকের বর্ষণে জলাবদ্ধ সড়ক
কাগজ প্রতিবেদক : আকাশ ভেঙে ঝুম বৃষ্টি হয়েছে রাজধানীর বুকে। গতকাল শনিবার ভোরে দেড় ঘণ্টার মতো ধরে চলা এ বৃষ্টি নগরজীবনে স্বস্তি দিয়েছে। তবে ভারি বৃষ্টিতে ভেসে গেছে অধিকাংশ সড়ক। কোথাও কোথাও সাময়িকভাবে জলাবদ্ধতারও সৃষ্টি হয়েছে। এদিন ঢাকায় ৮৭ মিলিমিটার বৃষ্টি বেকর্ড করেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর, যা চলতি মৌসুমে সর্বোচ্চ। একইভাবে ভারি বৃষ্টিপাত হয়েছে দেশের প্রায় ৩৫টি অঞ্চলে। আগের দিন শুক্রবার বাড়লেও গতকাল তাপমাত্রা কমে গেছে। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা উঠেছিল রাজশাহীতে ৩৭ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এদিকে গত রাতে সিলেট বিভাগ ছাড়া বাকি সব বিভাগের উপর দিয়ে শক্তিশালী কালবৈশাখী বয়ে যেতে পারে বলে আভাস দেয়া হয়েছে। অভ্যন্তরীণ নদী বন্দরগুলোতে ২ নম্বর নৌ হুঁশিয়ারি সংকেত দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। গতকাল ভোরের তুমুল বৃষ্টিতে রাজধানীর কোথাও কোথাও হাঁটু সমান পানি দেখা যায়। এতে বেশি ভোগান্তিতে পড়েছেন অফিসগামী ও জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হওয়া মানুষ। হাঁটু পানি ঠেলে বিভিন্ন গন্তব্যে যেতে দেখা যায় তাদের। চলতি পথে হঠাৎ কোনো গাড়ি চলে এলে জলাবদ্ধ পানির ঢেউয়ে বিপত্তি বাড়ে আরো, ভিজে যায় পরনের কাপড়। টানা বৃষ্টিতে বারিধারা, শেওড়াপাড়া, ভাষানটেক, ধানমন্ডি, নিউমার্কেট, নয়াপল্টন, তেজগাঁও, মালিবাগসহ বিভিন্ন এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। এদিন ঢাকার সমান বৃষ্টিপাত হয়েছে টাঙ্গাইলেও। এখানেও বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে ৮৭ মিলিমিটার। এছাড়া গোপালগঞ্জ, মাদারীপুর, বগুড়া, সিলেট, রাঙ্গামাটি, মাইজদীকোর্ট, ফেনী, খুলনা, মোংলা, সাতক্ষীরা, যশোর, চুয়াডাঙ্গা, বরিশাল, ভোলা, পটুয়াখালী খেপুপাড়াসহ অন্তত ৩৫ অঞ্চলে কালবৈশাখী হয়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। গতকাল দুপুরে আবহাওয়া অধিদপ্তরের এক সতর্কবার্তায় বলা হয়, দুপুরের পর থেকে রাত ১টা পর্যন্ত ফরিদপুর, যশোর, খুলনা, বরিশাল, কুমিল্লা, পটুয়াখালী, নোয়াখালী, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার অঞ্চলের উপর দিয়ে পশ্চিম-উত্তরপশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় ৬০ থেকে ৮০ কিলোমিটার গতিবেগে কালবৈশাখীসহ অস্থায়ীভাবে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। এসব এলাকার নদীবন্দরগুলোকে ২ নম্বর নৌ হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। আবহাওয়াবিদ ওমর ফারুক জানান, আজ রবিবারও কালবৈশাখী অব্যাহত থাকবে। এতে তাপমাত্রা কমে যাবে। তবে এ সপ্তাহেই আবার তাপমাত্রা বাড়তে পারে। এদিকে গতকাল সন্ধ্যার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রাজশাহী, ঢাকা, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের অনেক জায়গা এবং রংপুর, সিলেট, চট্টগ্রাম ও ময়মনসিংহ বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ বজ্রবৃষ্টি হতে পারে। একই সঙ্গে কোথাও কোথাও শিলাবৃষ্টি হতে পারে। সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। পশ্চিমা লঘুচাপের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ থেকে উত্তরপশ্চিম বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে বলেও জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App