×

প্রথম পাতা

মিয়ানমার

পালিয়ে এলো বিজিপির পাঁচ সদস্য

Icon

প্রকাশ: ১০ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

শহীদ উল্লাহ, টেকনাফ (কক্সবাজার) থেকে : অভ্যন্তরীণ সংঘাতের জেরে কক্সবাজার টেকনাফ উপজেলায় নাফ নদীর সাবরাং পয়েন্ট দিয়ে পালিয়ে আশ্রয় নিয়েছে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর আরো ৫ সদস্য। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন টেকনাফের ইউএনও মো. আদনান চৌধুরী। জনপ্রতিনিধিসহ স্থানীয়দের বরাতে আদনান চৌধুরী বলেন, সকাল ১১টার দিকে টেকনাফে নাফ নদীর সাবরাং ইউনিয়নের খুরের মুখ পয়েন্ট দিয়ে ইঞ্জিনচালিত একটি নৌকায় চড়ে বিজিপির ৫ সদস্য বাংলাদেশে ঢুকে পড়ে। এ সময় তাদের হাতে ভারী আগ্নেয়াস্ত্র ও গোলাবারুদ ছিল। তারা বিজিপির পোশাকও পরা ছিলেন। বিজিপির এই নৌকাটি নাফ নদীর কিনারায় পৌঁছালে তা দেখতে পেয়ে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদস্যরা ঘিরে ফেলে। এ সময় তারা অস্ত্র জমা দিয়ে বিজিবির কাছে আত্মসমর্পণ করে আশ্রয় চান। স্থানীয় ইউএনও বলেন, পরে বিজিপির সদস্যদের নিরস্ত্রীকরণের পর বিজিবির হেফাজতে নেয়া হয়। পরে বিজিবির সদস্যরা বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানান। সাবরাং ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য রেজাউল করিম রেজু বলেন, সকালে মিয়ানমার বিজিপির ৫ পাঁচ সদস্য ইঞ্জিনচালিত নৌকায় চড়ে সাবরাংয়ের খুরের মুখ এলাকায় পৌঁছলে বিজিবির সদস্যদের কাছে আত্মসমর্পণ করে। তাদের নিরস্ত্রীকরণের পর বিজিবির হেফাজতে নেয়া হয়। বিকাল ৫টার দিকে বিজিপির এসব সদস্যদের গাড়িতে করে হ্নীলা উচ্চ বিদ্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে জানান, স্থানীয় এই ইউপি সদস্য। গত রবিবার টেকনাফে নাফ নদীর শাহপরীরদ্বীপ পয়েন্ট দিয়ে তিনটি কাঠের ট্রলারে চেপে বিজিপির ৮৮ জন সদস্য পালিয়ে এসেছিল। তাদেরকেও হ্নীলা উচ্চবিদ্যালয়ে রাখা হয়েছে। এর আগে দুই দফায় পালিয়ে আসা বিজিপি ও সেনাবাহিনীর ৬১৮ জনকে ফেরত পাঠানো হয়েছে। এর মধ্যে গত ২৫ এপ্রিল বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া ২৮৮ জন মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিজিপি) ও সেনাসদস্যকে ফেরত পাঠায় বাংলাদেশ। এর আগে আশ্রয় নেয়া ৩৩০ জন মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিজিপি), সেনা ও কাস্টমস কর্মকর্তাকে গত ১৫ ফেব্রুয়ারি স্বদেশে ফেরত পাঠায় বাংলাদেশ।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App