×

প্রথম পাতা

টানা তিন জয়ে টাইগারদের সিরিজ

Icon

প্রকাশ: ০৮ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

টানা তিন জয়ে  টাইগারদের সিরিজ
কাগজ প্রতিবেদক : আগের দুই টি-টোয়েন্টিতে হেসেখেলেই জিতেছে টাইগাররা। গতকাল সহজ জয় পায়নি স্বাগতিকরা। টাইগারদের সঙ্গে শেষ পর্যন্ত লড়াই করেছে জিম্বাবুয়ে। যদিও শেষ রক্ষা করতে পারেনি তারা। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে গতকাল টস হেরে আগে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ১৬৫ রান করে হাথুরুসিংহের শিষ্যরা। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৩৮ বলে ৫৭ রান করেন তাওহিদ হৃদয়। দুর্দান্ত ফিফটি করায় ম্যাচসেরা হয়েছেন তিনি। টাইগারদের বিপক্ষে ১৬৬ রানের জবাবে খেলতে নেমে ২০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৫৬ রানের বেশি করতে পারেনি জিম্বাবুয়ে। সফরকারীদের হয়ে সর্বোচ্চ অপরাজিত ৩৪ রান করেন ফারাজ আকরাম। গতকাল ৯ রানে ম্যাচ জেতার মধ্য দিয়ে ৫ ম্যাচের সিরিজে ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে থাকায় টি-টোয়েন্টি সিরিজ নিশ্চিত করেছে লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা। সিরিজের বাকি দুই ম্যাচ ১০ এবং ১২ মে ঢাকায় অনুষ্ঠিত হবে। বিশ্বকাপের আগে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টাইগারদের খেলার উদ্দেশ্য হচ্ছে নিজেদের উন্নতির পারদকে আরো ঊর্ধ্বমুখী করা। প্রথম ম্যাচে ৮ উইকেটে, দ্বিতীয় ম্যাচে ৬ উইকেটে এবং গতকাল ৯ রানে জিতেছে শান্ত বাহিনী। প্রথম ম্যাচের পর দ্বিতীয় এবং তৃতীয় ম্যাচে রোডেশিয়ানদের উন্নতি চোখে পড়লেও টাইগারদের উন্নতি নিয়ে চিন্তিত সমর্থকরা। প্রথম ম্যাচে ৩ উইকেট নেয়া তাসকিন আহমেদ দ্বিতীয় এবং তৃতীয় ম্যাচে নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি। টপ-অর্ডারের তিন ব্যাটার লিটন দাস, তানজিদ তামিম এবং নাজমুল হোসেন শান্ত ব্যাট হাতে নিজেদের মেলে ধরতে পারছেন না। গতকাল জিম্বাবুয়ের শেষের দিকে ব্যাটাররা টাইগার সমর্থকদের হৃদয়ে ভয় ধরিয়ে দিয়েছিলেন। অভিজ্ঞ ও জাত ব্যাটাররা যেটা করতে ব্যর্থ হয়েছেন, সেটাই করে দেখিয়েছেন জিম্বাবুয়ের সাত ও দশ নম্বরে নামা ব্যাটার। জনাথন ক্যাম্পবেল ও ফারাজ আকরামের বিধ্বংসী ইনিংসে নিশ্চিত জয়ের ম্যাচে হারের শঙ্কায় পড়েছিল টাইগাররা। শেষ ওভারে আতঙ্ক বাড়িয়েছিলেন ১১তম ব্যাটার ব্লেজিং মুজারাবানি। তবে শেষ পর্যন্ত তাদের অবিশ্বাস্য জয়ের নায়ক হতে দেননি টাইগার বোলাররা। টানা তৃতীয় জয়ে দুই ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ নিশ্চিত করেছে শান্ত বাহিনী। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ব্যর্থতার পাল্লা ভারী হচ্ছে নাজমুল হোসেন শান্ত ও লিটন দাসের। কখনো এক অঙ্কের ঘরে আউট হচ্ছেন। কখনোবা থিতু হওয়ার পর উইকেট বিলিয়ে দিয়ে আসছেন তারা। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজে এখনো পর্যন্ত তিন ম্যাচ খেললেও আশানুরূপ পারফরম্যান্স করতে পারেননি তারা। লিটন-শান্ত ব্যর্থতা হলেও ছন্দে আছেন তাওহিদ হৃদয়। প্রথম দুই টি-টোয়েন্টিতে হৃদয়ের উইকেটই ফেলতে পারেনি জিম্বাবুয়ে। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে গতকাল তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে তুলে নিয়েছেন আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের প্রথম ফিফটি। হৃদয়কে যোগ্য সঙ্গ দিয়েছেন জাকের আলী অনিকও। প্রথমে ব্যাটিং পেয়ে বাংলাদেশ ১৬৬ রানের লক্ষ্য দিয়েছে জিম্বাবুয়েকে। নতুন বলে বেশ ভুগেছেন বাংলাদেশের দুই ওপেনার লিটন দাস ও তানজিদ তামিম। বিশেষ করে মুজারাবানিকে খেলতে বেশ বেগ পেতে হয়েছে তাদের। ধীর গতির শুরুর পর বেশিক্ষণ উইকেটে থাকতে পারেননি লিটন। গতকাল ইনিংসের চতুর্থ ওভারের চতুর্থ বলে মুজারাবানিকে স্কুপ করতে গিয়ে বোল্ড হন এই ওপেনার। সাজঘরে ফেরার আগে ১৫ বলে করেছেন মাত্র ১২ রান। তিনে নেমে দ্রুত ফিরেছেন অধিনায়ক শান্তও। ৪ বলে ৬ রানের বেশি করতে পারেননি তিনি। কিছুটা থিতু হয়েও ইনিংস বড় করতে পারেননি আরেক ওপেনার তানজিদ তামিম। তার ব্যাট থেকে এসেছে ২২ বলে ২১ রান। ৬০ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর দলের হাল ধরেন তাওহিদ হৃদয় ও জাকের আলি। চতুর্থ উইকেটে এই দুইজন মিলে যোগ করেন ৮৭ রান। ৩৪ বলে টি-টোয়েন্টিতে অভিষেক ফিফটি তুলে নেন হৃদয়। ৩৮ বলে ৫৭ রান করে আউট হন তিনি। জাকের ফিফটির কাছাকাছি গিয়েও শেষ পর্যন্ত মাইলফলক ছুঁতে পারেননি। ৩৪ বলে করেছেন ৪৪ রান। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ করেছেন ৪ বলে অপরাজিত ৯ রান। রোডেশিয়ানদের হয়ে দুর্দান্ত বোলিং করেছেন মুজারাবানি। এই পেসার ৪ ওভার বোলিং করে ১৪ রানে শিকার করেছেন ৩ উইকেট। তাছাড়া ১টি করে উইকেট পেয়েছেন ফারাজ আকরাম ও সিকান্দার রাজা।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App