×

প্রথম পাতা

২৩ লাখ টাকা জব্দ

চেয়ারম্যান প্রার্থী ১২ ঘণ্টা পর মুক্ত

Icon

প্রকাশ: ০৮ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

পাবনা প্রতিনিধি : বিপুল পরিমাণ টাকাসহ র‌্যাবের হাতে আটক পাবনার সুজানগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের চেয়ারম্যান প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান শাহিনুজ্জামান শাহীনসহ আটক ১১ জনকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। আটকের ১২ ঘণ্টা পর গতকাল মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে র‌্যাব-১২ পাবনা ক্যাম্প থেকে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করে র?্যাব-১২ পাবনা ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার মেজর মো. এহতেশামুল হক খান বলেন, আটকের পর আমরা তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। যে টাকা জব্দ করা হয়েছিল তা নির্বাচনী ব্যয়ের সীমার মধ্যেই ছিল। জব্দকৃত টাকা ট্রেজারিতে জমা দেয়া হবে এবং শাহীনসহ সবাইকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। তবে বিষয়টি আরও তদন্ত করে পরবর্তী সময় আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে। মুক্তি পাওয়ার পর শাহিনুজ্জামান শাহীন বলেন, নির্বাচনী সব ব্যয় পরিশোধের জন্য টাকাগুলো আনা হচ্ছিল। এটা কোনো অসৎ উপায়ের জন্য ব্যবহার হচ্ছিল না। সম্পূর্ণ বৈধ টাকা। আমি রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের শিকার। আমার বিজয় ঠেকাতে আমার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষরা শুরু থেকেই আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে আসছে। আজকের ঘটনা তারই বহিঃপ্রকাশ। এর আগে চেয়ারম্যান প্রার্থী শাহীনুজ্জামান শাহীনসহ ১১ জনকে আটক করে র‌্যাব। এ সময় শাহীনের নির্বাচনী কাজে ব্যবহৃত একটি গাড়ি ও ২২ লাখ ৮২ হাজার ৭০০ টাকা জব্দ করা হয়। গত সোমবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে সুজানগরের চর ভবানীপুরের নির্বাচনী এলাকা থেকে তাকে আটক করেন র‌্যাব-১২ পাবনা ক্যাম্পের সদস্যরা। শাহীন সুজানগর উপজেলা পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। তিনি এবার আনারস প্রতীকে উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী। আটক অন্য ১০ সহযোগীর নাম-পরিচয় তাৎক্ষণিকভাবে জানাতে পারেনি র‌্যাব। তবে এদের মধ্যে সুজানগর পৌরসভার ৪ ও ৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর রয়েছেন। র‌্যাব-১২ কমান্ডার মেজর মো. এহতেশামুল হক খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। সোমবার রাতেই র‌্যাব-১২ কার্যালয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি জানান, ৮ মে ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রথম ধাপে সুজানগর উপজেলা নির্বাচন উপলক্ষে র‌্যাবের নিয়মিত টহল দল সুজানগরের চর ভবানীপুর এলাকায় টহল দিচ্ছিল। এ সময় সন্দেহ হওয়ায় উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী শাহীনুজ্জামান শাহীন ও তার ১০ সহযোগীকে আটক করা হয়। এছাড়া তার গাড়িতে রাখা দুই ব্যাগ ভর্তি ২২ লাখ ৮২ হাজার ৭০০ টাকা ও নির্বাচনী কাজে ব্যবহৃত একটি গাড়ি জব্দ করা হয়। র‌্যাব কমান্ডার বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে জব্দ করা টাকা অসৎ উদ্দেশ্যে নির্বাচনে ভোটারদের বিভিন্নভাবে প্রভাবিত করার জন্য রাখা হয়েছিল। বিষয়টি আমরা জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তাকে জানিয়েছি। তিনি এ বিষয়ে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নিবেন। এ বিষয়ে পাবনা সিনিয়র জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান বলেন, বিষয়টি আমরা জানতে পেরেছি। বিধি মোতাবেক আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। প্রসঙ্গত, আগামীকাল ৮ মে পাবনার সুজানগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে আনারস প্রতীকের শাহিনুজ্জামান শাহীনের সঙ্গে একমাত্র প্রতিদ্ব›দ্বী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল ওহাব (মোটরসাইকেল)।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App