×

ফ্যাশন

দ্রুত বাড়ছে চীনা ফাস্ট ফ্যাশন ব্র্যান্ড শি-ইন

Icon

প্রকাশ: ১৯ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

দ্রুত বাড়ছে চীনা ফাস্ট ফ্যাশন ব্র্যান্ড শি-ইন

ফাস্ট ফ্যাশন এমন আড়ম্বরপূর্ণ সস্তা পোশাক, যা হালের চাহিদা পূরণে খুব দ্রুত ভোক্তাদের কাছে পৌঁছানো হয়। এই পোশাকগুলো একের পর এক বাজারে আসতে থাকে। সরবরাহ শৃঙ্খল বা উৎপাদন থেকে শুরু করে বিপণনের স্তরে স্তরে রিটেইলার বা খুচরা বিক্রেতাদের নতুন নতুন উদ্ভাবনের ফলেই ফাস্ট ফ্যাশন সম্ভব হয়েছে। ফাস্ট ফ্যাশনের জগতে চীনের অনলাইন রিটেইলার শি-ইন বেশ এগিয়েছে। তবে, শি-ইনের আগে এই খাতে শীর্ষ দুই রিটেইলার প্রতিষ্ঠান ছিল জারা ও এইচঅ্যান্ডএম। পুরোনো এই দুই রিটেইলারকে এরই মধ্যে ছুঁয়ে ফেলেছে বাজার দখলের আগ্রাসী চেষ্টায় থাকা শি-ইন। নানা ধরনের বৈচিত্র্যময় ধাঁচের ১০ হাজার পোশাকের ছবিসহ বিবরণ প্রতিদিন ওয়েবসাইটে প্রকাশ করে এই রিটেইলার। শুরুতেই খুব বেশি সংখ্যায় পোশাক তৈরি করে না। প্রথমে কয়েকশ পোশাক তৈরি করা হয়। বেশিসংখ্যক মানুষ কেনা শুরু করলে তখন বেশি করে অর্ডার দেওয়া হয়। নকশার পর মাত্র ১০ দিনে পোশাক বাজারে আসে। গত বছরজুড়েই বিশ্বে তৈরি পোশাক খাতে আলোচনার কেন্দ্রে ছিল শি-ইন। স্বল্প সময়ের মধ্যে বিশ্বে ফাস্ট ফ্যাশনের বাজারে প্রশস্ত পথ তৈরি করে ফেলেছে এই রিটেইলার। ইনস্টাগ্রাম ও টিকটকের মতো সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে তরুণদেরকে টার্গেট করে আগ্রাসী বিক্রি কৌশল নেওয়ায় মার্কিন ভোক্তাদের পছন্দের শীর্ষে উঠেছে। দ্য ফাইন্যান্সিয়াল টাইমসের তথ্য অনুসারে, বিক্রির হিসাবে শি-ইন এখন বিশ্বের সর্ববৃহৎ ফাস্ট ফ্যাশন রিটেইলার। লন্ডনভিত্তিক পরামর্শক কোম্পানি গেøাবাল ডেটার নিল সন্ডার্সের মতে, সস্তা দাম ও দক্ষতা দিয়ে বিশ্বের সর্ববৃহৎ অনলাইনভিত্তিক রিটেইলারে পরিণত হয়েছে শি-ইন। গত মাসে প্রকাশিত শি-ইনের আর্থিক প্রতিবেদনের তথ্য অনুসারে, ২০২৩ সালে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রায় ৪ হাজার ৫০০ কোটি ডলারের পণ্য বিক্রি করেছে শি-ইন। এতে রেকর্ড ২ বিলিয়ন বা ২০০ কোটি ডলারের বেশি মুনাফা হয়েছে। এর আগে যথাক্রমে ২০২২ সালে শি-ইনের মুনাফা ছিল প্রায় ১৪০ কোটি ও ২০২১ সালে ১১০ কোটি ডলার।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App