×

এই জনপদ

পৃষ্ঠপোষকতা চান পাইকগাছার জাদুশিল্পী পিসি সাহা

Icon

প্রকাশ: ০৯ জুলাই ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

তৃপ্তি রঞ্জন সেন, পাইকগাছা (খুলনা) থেকে : নানা প্রতিকূলতা আর সরকারি-বেসরকারি পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে দেশের প্রথম লাইসেন্সপ্রাপ্ত জোনাকি জাদুচক্রটি বিশ্বজয়ের পথে বাধার সম্মুখীন হচ্ছে। আধুনিকায়নে প্রয়োজন বিপুল অর্থ আর সরকারের সহযোগিতা। বয়সে তরুণ হলেও ইতোমধ্যে দেশ-বিদেশে জাদু প্রদর্শন করে হয়েছেন দর্শকনন্দিত পিসি সাহা।

তরুণ জাদুশিল্পী পিসি সাহার চমৎকার উপস্থাপনা এবং সুদর্শন চেহারার জন্য তৈরি হয়েছে হাজারো ভক্ত। তিনি তরুণ সমাজে জায়গা করে নিয়েছেন টিনেজ ক্রেজ হিসেবে। গুগলে ম্যাজিশিয়ান পিসি সাহার নাম টপ র‌্যাঙ্কিয়ে পাওয়া যায়। সোশ্যাল মিডিয়ায় রয়েছে তার হাজারো ফলোয়ার।

পিসি সাহার পৈতৃক নিবাস খুলনা জেলার পাইকগাছা উপজেলার কপিলমুনিতে। খুব ছোটবেলা থেকে বাবার কাছ থেকে তালিম নেয়া জাদুর কলাকৌশল বাস্তবে রূপ নেয় ২০০০ সালে। ওই বছর ১ মে খুলনার গড়ুইখালীর এক মঞ্চে আরপি সাহা হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন। হাজার দর্শকের চিৎকার-চেঁচামেচি উপেক্ষা করে বাবার পোশাক পরে মঞ্চে উঠেন পিসি সাহা।

ওই মঞ্চে অপূর্ব সব জাদুর কলাকৌশল প্রদর্শন করে দর্শকদের বিমোহিত করেন তিনি। মুহুর্মুহু করতালি আর অগণিত দর্শকের প্রশংসা সূচক বাণী তাকে জাদু জগতে দারুণভাবে উদ্বুদ্ধ করে। এরপর শুরু হয় জাদুর পথে বাঁক পরিবর্তন। সেই থেকে তার পথ চলা। তিনি ২০০৪ সালে বাংলাদেশ সরকার স্বীকৃত জাতীয় জাদুকরদের সমন্বয় কমিটি জাদুকর পরিষদের সদস্য লাভ করেন। ২০০৬ সালে বিশ্বের সর্ববৃহৎ জাদুর সংগঠন ইন্টারন্যাশনাল ব্রাদারহুড অব ম্যাজিশিয়ানের সদস্য পদ লাভের মাধ্যমে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতি লাভ করেন।

সম্প্রতি অনলাইন বিশ্ব জাদু প্রতিযোগিতায় ৮ দেশের ৬৫ জন প্রতিযোগীর মধ্যে প্রথম স্থান অধিকার করেছেন পিসি সাহা। এই প্রতিযোগিতায় ভারত, পাকিস্তান, বাংলাদেশ, ফিলিপাইনস, তুর্কি, মেক্সিকো এবং ঘানার ৬৫ জন জাদুশিল্পী অংশ নেন।

বাবা আরপি সাহার ‘জাদুসূর্য’ খেতাব প্রদানের অনুষ্ঠান তিনি দেখেছেন। দেখেছেন চোখ প্লাস্টার করে মোটরসাইকেল চালানো শেষে হাজার দর্শকের মাল্যবরণের দৃশ্য। তাইতো উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত হয়েও মানুষের হৃদয়ে ভালোবাসাকে ধরে রাখতে অল্প বয়সে প্রবেশ করেছেন জাদুর এই ঝলমলে জগতে।

তবে সম্ভাবনাময় এই জাদুকর আক্ষেপ করে বলেন, প্রায় ৬৫ বছর ধরে বাংলার লোকজ সংস্কৃতির অন্যতম ধারক ও বাহক জাদু প্রদর্শনীর মাধ্যমে দেশ-বিদেশে সুস্থ ধারার বিনোদনের প্রচার ও প্রসার করে এলেও শুধু প্রচার আর পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে তিনি বা তার বাবা পাননি কোনো সরকারি সম্মান। প্রতিমুহূর্তে তাকে হতে হচ্ছে দারিদ্র্যের সম্মুখীন।

পিসি সাহার বর্তমান উল্লেখযোগ্য জাদু প্রতিভার মধ্যে অ্যাপিয়ার বক্স, টুয়েস্টিং লেডি, এরিয়াল সাসপেনশন, ফ্লোটিং কার্পেট, হ্যান্ড স্ট্রাইকাট, ফ্লাইংহেড ও অরিগামি উল্লেখযোগ্য। এছাড়া চোখ প্লাস্টার করে জনবহুল রাজপথে মোটরসাইকেল চালনা এবং মানুষকে ৪ খণ্ড করা- এমন সব শিহরণ জাগানো জাদু প্রদর্শনে দর্শকদের মন্ত্রমুগ্ধ করে রাখেন পিসি সাহা। তবে বর্তমান অত্যাধুনিক বিশ্বের সঙ্গে তাল মেলাতে পিসি সাহার প্রয়োজন আরো অত্যাধুনিক জাদুর সরঞ্জাম। আর এসব সরঞ্জামের জন্য প্রয়োজন অর্ধ কোটি টাকা, যা পিসি সাহার পক্ষে বহন করা অসম্ভব।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App