×

এই জনপদ

জনদুর্ভোগ চরমে

চান্দিনা পৌর এলাকার রাস্তাঘাটের বেহাল দশা

Icon

প্রকাশ: ০৫ জুলাই ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

 চান্দিনা পৌর এলাকার  রাস্তাঘাটের বেহাল দশা

চান্দিনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি : চান্দিনা পৌর এলাকায় রাস্তাঘাটের বেহাল দশায় জনদুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করেছে। সড়কে যাতায়াত করাটা রীতিমতো ভোগান্তিতে পরিণত হয়েছে।

চান্দিনা পৌরসভা প্রতিষ্ঠিত হয় ২৭ বছর আগে। এই দীর্ঘ সময়েও উন্নত হয়নি এখানকার রাস্তা-ঘাট। পৌরসভার প্রধান ৫টি সড়কের মধ্যে ৩টি সড়কই যান চলাচলের অনুপযোগী। আরো একটি সড়কের কিছু অংশ কাজ করা হলেও বাকি অংশ পড়ে আছে আগের মতোই। চান্দিনা পৌরসভায় প্রধান সড়ক রয়েছে প্রায় ১৫ কিলোমিটার। এর মধ্যে উপজেলা সদরের সঙ্গে পুরাতন গ্র্যান্ড ট্রাংক রোডে সংযুক্ত রয়েছে ৪টি প্রধান সংযোগ সড়ক। যে সড়কগুলো উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলসহ পার্শ্ববর্তী উপজেলার সঙ্গে যোগাযোগের অন্যতম পথ। এমন গুরুত্বপূর্ণ সড়কের মধ্যে ৩টি সড়ক যানবাহন ও পথচারীদের চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। প্রতিটি সড়কে বড় বড় গর্ত, কার্পেটিং উঠে গেছে ২-৩ বছর আগে। সামান্য বৃষ্টির পানি জমে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে।

এমন পরিস্থিতিতে পৌর কর্তৃপক্ষ সড়কের বিভিন্ন স্থানে পুরাতন ভবনের ভাঙা অংশ ফেলে জোড়াতালি দেয়ার চেষ্টা করে। সড়কের ভাঙা অংশগুলোতে প্রায়ই উল্টে পড়ে যানবাহন। সড়কগুলো হলো চান্দিনা-খোসবাস সড়ক, চান্দিনা-বরকইট সড়ক, চান্দিনা-বাড়েরা সড়ক। এর মধ্যে চান্দিনা-খোসবাস সড়কটির অবস্থা বেশি খারাপ। এই সড়ক হয়েই বেশির ভাগ মানুষ পৌর ভবনে যাতায়াত করে। সড়কটির পাশে রয়েছে চান্দিনা রেদোয়ান আহমেদ কলেজ, চান্দিনা ডা. ফিরোজা পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ এবং একটি এতিমখান।

এছাড়া রয়েছে পৌরসভার প্রধান গরুর হাট। এই সড়ক দিয়ে যাতায়াত করতে গিয়ে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে এলাকার হাজার হাজার বাসিন্দাদের। চান্দিনা পৌরসভার মেয়র মো. শওকত হোসেন ভূঁইয়া ভোরের কাগজকে বলেন, পৌরসভার ফান্ড ও সরকারি বরাদ্দ না থাকায় সড়কগুলো সংস্কার করা সম্ভব হয়নি। সড়কগুলোর যে অবস্থা আমি কেন, সবার কাছেই খারাপ লাগে। স্থানীয় সংসদ সদস্যের সহযোগিতায় সরকারি ফান্ডের ব্যবস্থা হয়েছে। আগামী এক-দেড় মাসের মধ্যে ৩টি সড়কই টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে বলে আশা করছি।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App