×
Icon এইমাত্র
কমপ্লিট শাটডাউন কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে কোটা আন্দোলনকারীরা বাংলাদেশ টেলিভিশনের মূল ভবনে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। বিটিভির সম্প্রচার বন্ধ। কোটা সংস্কার আন্দোলনে সারা দেশে এখন পর্যন্ত ১৯ জন নিহত কোটা ইস্যুতে আপিল বিভাগে শুনানি রবিবার: চেম্বার আদালতের আদেশ ছাত্রলীগের ওয়েবসাইট হ্যাক ‘লাশ-রক্ত মাড়িয়ে’ সংলাপে বসতে রাজি নন আন্দোলনকারীরা

এই জনপদ

১৪ ইউপি ভবন সংস্কার কাজে অনিয়মের অভিযোগ

Icon

প্রকাশ: ২৯ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

সাজ্জাদুল তুহিন, মান্দা (নওগাঁ) থেকে : মান্দা উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন পরিষদের ভবন মেরামত ও সংস্কারকাজে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অধীনে চলমান উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের মেরামত ও সংস্কার কাজে প্রায় ১ কোটি ৪০ লাখ টাকা ব্যয় ধরা হয়েছে। কিন্তু সিডিউল অনুযায়ী এসব ইউপি ভবনে সন্তোষজনক মেরামত ও সংস্কারকাজ করা হচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। জানা যায়, অধিক মুনাফা লাভের জন্য ১৪ জন ইউপি চেয়ারম্যানের মধ্যে ১১ জন চেয়ারম্যান মেরামত ও সংস্কারকাজ ২-৩ লাখ টাকার বিনিময়ে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে কাজ কিনে নিয়েছেন।

অন্য তিনটি ইউনিয়নের মধ্যে কালিকাপুর, নুরুল্যাবাদ ও কুসুম্বা ইউনিয়ন পরিষদ ভবন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজ করলেও সেটির কাজও সন্তোষজনক হয়নি বলে অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগ রয়েছে, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের যোগসাজস ও চেয়ারম্যানদের সুবিধা নেয়ায় চলছে নিম্নমানের দায়সারা মেরামত ও সংস্কারকাজ। চেয়ারম্যানের প্রত্যয়ন ছাড়া সংস্কারকাজের বিল মিলবে না এমন সুযোগ কাজে লাগিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ও চেয়ারম্যানরা ফায়দা লুটে নেয়ার পাঁয়তারা করছেন। ইতোমধ্যে গোপনে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান অধিকাংশ চেয়ারম্যানের কাছ থেকে কাজের আগেই প্রত্যয়ন নিয়েছেন।

সরজমিন উপজেলার মৈনম, কাঁশোপাড়া, ভালাইন, কসব, কালিকাপুর, পরানপুর ও নুরুল্যাবাদ ইউনিয়ন পরিষদে গেলে ইউপি সদস্য ও গ্রাম পুলিশরা জানান, ভবন মেরামত ও সংস্কারকাজ সন্তোষজনক করছেন না চেয়ারম্যান ও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। ভবনের বাইরে ওয়েদার গার্ড এবং ভিতরে ডিসটেম্পার রং করার কথা থাকলেও নিম্নমানের রং ব্যবহার করছেন, যা ব্যবহারের কয়েকদিন পর উঠে যাচ্ছে।

এছাড়া রিপিয়ারিং, বৈদ্যুতিক, স্যানিটেশন, পানির ট্যাংকি, ড্রেন, দরজা-জানালা, গ্রিল, টয়লেট, ছাঁদ মেরামত ও সংস্কারকাজ দায়সারাভাবে করেছেন। অনেক ইউনিয়ন পরিষদে পুরাতন কাজকে নতুন কাজের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার অভিযোগ এসেছে।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) শাইদুর রহমান মিঞা জানান, আপনারা এগুলোর কাজ না দেখে উন্নয়নমূলক কাজ তুলে ধরেন। আর পরিষদের মেরামত ও সংস্কারকাজ যথা নিয়মে চলছে। অনিয়মের করার কোনো সুযোগ নেই।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) লায়লা আঞ্জুমান বানু জানান, ইউনিয়ন পরিষদের কাজ কিছুটা নিম্নমানের হচ্ছে বলে অভিযোগ পেয়েছি। এজন্য কাজগুলো যাচাই-বাছাই করার জন্য তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তিনি আরো জানান, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান যতটুকু কাজ করবে ততটুকুই বিল দেয়া হবে। অভিযোগ পেয়ে আমি বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদ ভবন পরিদর্শন করছি।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App