×

এই জনপদ

ল²ীপুর

৩২ কোটি টাকার সড়ক উন্নয়ন কাজে অনিয়ম দুর্নীতি

Icon

প্রকাশ: ০৬ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

 ৩২ কোটি টাকার সড়ক উন্নয়ন কাজে অনিয়ম দুর্নীতি

মো. কামাল হোসেন, ল²ীপুর থেকে : ল²ীপুরে প্রায় সাড়ে ৩২ কোটি টাকা ব্যয়ে শহর সংযোগ সড়ক উন্নয়ন কাজে ব্যাপক, অনিয়ম, দুর্নীতি ও কারচুপির অভিযোগ উঠেছে। এলাকাবাসীর প্রতিবাদের মুখে কাজ বন্ধ করে পালিয়ে যায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ও সড়ক বিভাগের লোকজন। জেলা প্রশাসন পুনরায় কাজ শুরু করিয়ে দেন। তাৎক্ষণিকভাবে তদন্তে সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগ কাজে ত্রæটি পেয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে। গত রবিবার রাতে জেলা শহরের স্থানীয় লোকজন সড়কটির কাজ বন্ধ করে দিয়েছিল। তাদের অভিযোগ, সওজ বিভাগ ও ঠিকাদারের যোগসাজশে অনিয়ম আর দুর্নীতিতে কাজটি চলছিল।

এর আগে ল²ীপুর আদর্শ সামাদ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ডিসিসহ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এবি ছিদ্দিক, সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী জহিরুল ইসলাম ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ কে এম সালাহ উদ্দিন টিপু সড়কটির অনিয়ম নিয়ে জরুরি বৈঠক করেন। বৈঠক শেষে ডিসি ও এএসপি সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে জানিয়েছেন, সড়কটি প্রায় ৫ ইঞ্চি কার্পেটিং হবে। অনিয়মের সুযোগ নেই। সর্বোচ্চ তদারকির মাধ্যমেই কাজ সম্পন্ন হবে। কাজে জেলা প্রশাসন, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের প্রতিনিধি ও সওজের দায়িত্বরত কর্মকর্তারা তদারকি করবেন।

এদিকে অভিযোগ রয়েছে সড়কটি প্রশস্তকরণে জমি অধিগ্রহণ থেকে শুরু করে প্রতি ঘাটে ঘাটে দুর্নীতির আশ্রয় নেয়া হয়েছিল। সড়ক বিভাগে এ কাজে আবুল খায়ের নামে একজন সার্ভেয়ারকে নিয়োগ দেন। অথচ তিনি সওজের দায়িত্বপ্রাপ্ত কোনো সার্ভেয়ার নয়। তাকে ২০০৯ সালের ২৩ মার্চ মাস্টাররুলে ট্রেসার হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। পরবর্তী সময়ে চাকরি স্থায়ীকরণ চেয়ে ২০১৭ সালে তিনি নিজেকে চেইনম্যান হিসেবে দাবি করে উচ্চ আদালতে রিট পিটিশন করে। কিন্তু সে এখন সওজ বিভাগ সার্ভেয়ার হিসেবে পরিচয় দিচ্ছে। খায়েরের বিরোদ্ধে সড়ক প্রশস্তকরণে ভূমি ও দোকান-ভবন মালিকদের কাছ থেকে কয়েক কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ রয়েছে।

সওজ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলীর বক্তব্য জানতে গেলে তিনি দায়সারা বক্তব্য দেন। তার দাবি, ঠিকাদারকে অনুরোধ করে কাজ করাচ্ছেন। সড়কের দুপাশে ৬ ফুট করে ১২ ফুট ড্রেন নির্মাণ করার নিয়ম রয়েছে। অথচ তা ৩ ফুটে এসে দাঁড়িয়েছে। আবার সড়কের তমিজ মার্কেট এলাকায় পুরাতন ড্রেনের সঙ্গে নতুন ড্রেন সংযুক্ত করে দিয়েছে।

সওজ বিভাগ ও সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ৩২ কোটি ৬৩ লাখ ৬৭ হাজার টাকা ব্যয়ে ল²ীপুর শহর সংযোগ সড়কটির দক্ষিণ তেমুহনী থেকে উত্তর তেমুহনী ও ঝুমুর থেকে সওজ কার্যালয় পর্যন্ত ২০২০ সালে ১৯ ডিসেম্বর কাজ শুরু হয়। এ কাজটি পেয়েছেন এমএম বিল্ডার্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড এবং মেসার্স সালেহ আহমেদ জেবি। ২০২১ সালের ২৮ ডিসেম্বরে প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন করার কথা থাকলেও তা হয়নি। এর মধ্যে ৩ বার প্রকল্পটি সংশোধন করা হয়। এছাড়া ফুটপাতের জন্য ১৩ কোটি ৩২ লাখ ৬৮ হাজার টাকা বরাদ্দ রয়েছে।

জানা গেছে, প্রকল্পটিতে সড়কটি ৩৬ ফুট প্রশস্ত হবে। একই সঙ্গে সড়কের দুপাশে ৬ ফুট করে ড্রেন নির্মাণের বরাদ্দ দেয়া হয়। সড়কে ৮০ শতাংশ পাথর ও ২০ শতাংশ বালু দেয়ার কথা থাকলেও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান তার উল্টো কাজ করছেন। তারা ২০ শতাংশ পাথর কমিয়ে বালু দিয়ে সাবগ্রেড তৈরি করছে। এছাড়া সাবগ্রেড তৈরির পর কার্পেটিংয়ের জন্য ৪৫ দিন অপেক্ষা করতে হলেও তা করা হয়নি।

সাবগ্রেড তৈরির ২ দিন না যেতেই কার্পেটিংয়ের কাজ শুরু করা হয়। পরে স্থানীয় বাজার ব্যবসায়ী ও জনগণ বিষয়টি আমলে নিয়ে গত শুক্রবার রাতে ল²ীপুর আদর্শ সামাদ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে চলমান কাজ বন্ধের জন্য দাবি তোলে। খবর পেয়ে তাৎক্ষণিকভাবে সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সালাহ উদ্দিন টিপু ঘটনাস্থল উপস্থিত হয়ে বিস্তারিত জানার চেষ্টা করেন। তবে সওজ ও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কেউই তাকে বিস্তারিত কোনো তথ্য উপস্থাপন করেনি। পরে সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী জহিরুল ইসলাম এসে কাজ বন্ধ রাখতে নির্দেশ দেয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে। এরপর থেকে কাজ বন্ধ ছিল।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App