×

এই জনপদ

পালানোর সময় আটক সেনাসদস্য

বগুড়ায় হোটেল কক্ষে স্ত্রী সন্তানকে গলা কেটে হত্যা

Icon

প্রকাশ: ০৩ জুন ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

গাবতলী (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ায় আবাসিক হোটেলে স্ত্রী-সন্তানকে গলা কেটে হত্যা করে মরদেহ বস্তাবন্দি করে কক্ষে রেখে পালানোর সময় এক সেনা সদস্যকে আটক করা হয়েছে। গতকাল রবিবার বেলা ১১টার দিকে বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলার বনানী এলাকায় শুভেচ্ছা আবাসিক হোটেল থেকে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে।

আটক সেনা সদস্য আজিজুল হক (২৩) বগুড়ার ধুনট উপজেলার হেউটনগর গ্রামের হামিদুল হকের ছেলে। তিনি চট্টগ্রাম সেনানিবাসে কর্মরত আছেন। তার স্ত্রী আশামনি (১৯) বগুড়া শহরের নারুলী তালপট্টি এলাকার আসাদুল ইসলামের মেয়ে। তাদের সন্তান ১১ মাস বয়সি আব্দুল্লাহ আল রাফী।

জানা গেছে, গত শনিবার রাত ৯টার দিকে আজিজুল নিজেকে মিরাজ এবং তার স্ত্রীকে তমা এবং তাদের বাড়ি রংপুরের পীরগঞ্জ বলে পরিচয় দিয়ে হোটেলের ৩০১ নম্বর কক্ষ ভাড়া নেন। গতকাল রবিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে আজিজুল হক রুম ছেড়ে দেবেন বলে ভাড়া পরিশোধ করতে চান। এ সময় হোটেলের ম্যানেজার তার স্ত্রী-সন্তান কোথায় জানতে চাইলে তিনি বলেন, তারা সকালে চলে গেছে। এ সময় ম্যানেজার কক্ষ দেখে বুঝে নেয়ার কথা বললে আজিজুল হক স্ত্রী-সন্তানকে হত্যার কথা স্বীকার করেন। এ সময় হোটেল ম্যানেজার তাকে আটক করে থানায় খবর দেন।

আশামনির বাবা আসাদুল বলেন, রাত ১০টার দিকে জামাই আমাকে ফোন করে জানান, রাত ৮টার দিকে স্ত্রী-সন্তানকে নারুলী যাওয়ার জন্য রিকশায় তুলে দেন। কিছুক্ষণ পর থেকে স্ত্রীর ফোন বন্ধ পাচ্ছে। রবিবার সকালে মেয়ের সন্ধান চেয়ে শহরে মাইকিং করার ব্যবস্থা করি। সদর থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করতে গেলে বনানীতে হোটেলে মা এবং সন্তানের লাশ উদ্ধারের খবর পাই। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী। শাজাহানপুর থানার ওসি শহিদুল ইসলাম শহিদ সাংবাদিকদের জানান, আজিজুল হক তার স্ত্রী ও সন্তানকে হত্যা করার কথা স্বীকার করেছেন এবং তার ছেলে সন্তানের কেটে ফেলা মাথা করতোয়া নদীতে ফেলে দিয়েছে বলে জানিয়েছে। শাজাহানপুর থানার ওসি আরো জানান, সার্বিক বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App