×
Icon এইমাত্র
কমপ্লিট শাটডাউন কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে কোটা আন্দোলনকারীরা বাংলাদেশ টেলিভিশনের মূল ভবনে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। বিটিভির সম্প্রচার বন্ধ। কোটা সংস্কার আন্দোলনে সারা দেশে এখন পর্যন্ত ১৯ জন নিহত কোটা ইস্যুতে আপিল বিভাগে শুনানি রবিবার: চেম্বার আদালতের আদেশ ছাত্রলীগের ওয়েবসাইট হ্যাক ‘লাশ-রক্ত মাড়িয়ে’ সংলাপে বসতে রাজি নন আন্দোলনকারীরা

এই জনপদ

ভেড়ামারায় ভিন্ন ধরনের গোখাদ্যে লাভবান খামারি

Icon

প্রকাশ: ২৮ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

ইসমাইল হোসেন বাবু, ভেড়ামারা (কুষ্টিয়া) থেকে : ভেড়ামারায় গরু মোটাতাজাকরণে খামারিদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে ওঠেছে ভিন্ন ধরনের গোখাদ্য। এতে কম খরচে অধিক লাভ হচ্ছে।

মোটাতাজাকরণে গরুকে সবুজ ঘাস, খড়, ভুসিসহ বিভিন্ন পুষ্টিকর খাবার দিয়ে থাকে খামারিরা। কিন্তু এবার ভেড়ামারায় গরু মোটাতাজাকরণে ব্যতিক্রমী উদ্যোগে অনেক খামারি সবুজ ঘাস ও খড়ের পাশাপাশি প্রথমবারের মতো ভুট্টা গাছের ৪-৫ ফুট উপরের অংশ কেটে খড় কাটার মেশিন দিয়ে কুচি কুচি করে রোদে শুকিয়ে গোখাদ্য হিসেবে ব্যবহার করছেন। ফলে গরু ক্রমেই মোটাতাজা হচ্ছে। এতে গোখাদ্যে খরচ অনেকটাই কমে যাওয়ায় বেশি লাভবান হচ্ছেন এলাকার খামারিরা।

এ ব্যাপারে উপজেলার জুনিয়াদহ ইউনিয়নের গরু খামারি আরজ আলী বলেন, আমার ৭টি গরু আছে। প্রতিদিন গরুগুলোর সবুজ ঘাস, ভুসিসহ বিভিন্ন খাদ্যে অনেক খরচ হয়। তাই খরচ কমাতে ভিন্ন কৌশল অবলম্বন করি। তা হলো ভুট্টা গাছের উপরের অংশ কেটে ছোট ছোট করে খাদ্য তৈরি করা। প্রথমে পরীক্ষামূলকভাবে অল্প কেটে খাওয়ানোর পর দেখি গরু ভালোই খাচ্ছে। তখন আমার জমিতে লাগানো ২ বিঘা ভুট্টা গাছের উপরে অংশ মেশিন দিয়ে কেটে সেগুলো ভালোভাবে রোদে শুকিয়ে সংরক্ষণ করি এবং সময়মতো গরুকে খাওয়াই। এই খাদ্য খাওয়ানোর ফলে অল্প দিনে গরু মোটা হচ্ছে এবং গোখাদ্যে অনেকটা খরচ কমে যাচ্ছে।

একই চিত্র দেখা যায় আরেকটি খামারে। ওই খামারি গরু পালনের পাশাপাশি ৬টি মহিষ পালন করছেন। তিনি এ বছর প্রায় ৩ বিঘা জমিতে ভুট্টা চাষ করছেন। কয়েক দিনের মধ্যে তিনি তার চাষ করা ভুট্টা ঘরে তুলবেন। তার এলাকার অনেকেই ভুট্টা গাছের উপরের অংশ থেকে গরুর খাদ্য তৈরি করছে- এটা তার জানা ছিল না। তা দেখার পর তিনি ভুট্টা গাছের উপরের অংশ থেকে গরুর খাদ্য তৈরি করেন। এতে প্রতি বিঘায় খরচ হয় মাত্র ১২০০ টাকা।

এ ব্যাপারে ভেড়ামারা উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. কানিস ফারজানা বলেন, ভুট্টা গাছের উপরের অংশও পুষ্টিকর গোখাদ্য। ভুট্টা গাছের ফেলে দেয়া উপরের অংশ খাদ্য হিসেবে গরু-মহিষকে খাওয়ালে খামারির খরচও কমে যাবে। ফলে সবুজ ঘাস ও অন্যান্য খাদ্যের ওপর চাপ কমবে। খামারি লাভবান হবে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App