×

এই জনপদ

কাউনিয়ায় সার ও বিদ্যুতের সংকট নেই

বোরোর বাম্পার ফলন ও ভালো দামে কৃষকের মুখে হাসি

Icon

প্রকাশ: ১৬ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

বোরোর বাম্পার ফলন ও ভালো দামে কৃষকের মুখে হাসি
গৌতম সরকার, কাউনিয়া (রংপুর) থেকে : কাউনিয়া উপজেলায় চলতি বোরো মৌসুমে ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। একদিকে ফসলের অবস্থা ভালো। অন্যদিকে দামও মিলছে মনমতো। তাই হাসিভরা কৃষকের মুখে। সরজমিন উপজেলার পৌরসভাসহ ৬টি ইউনিয়নের ফসলের মাঠ ঘুরে দেখা যায়, অধিকাংশ জমির ধান কাটা শুরু হয়েছে। চলতি মৌসুমে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় রোগ বালাইয়ের প্রাদুর্ভাব কম। প্রাকৃতিক দুর্যোগ তেমনটা না হওয়ায় ধানের ভালো ফলন হয়েছে। সরকার চালের কেজি ৪০ টাকা ঠিক করায় ভালো দাম পওয়ার আশা করছে এলাকার কৃষক। প্রকৃতি বৈরী না হলে কয়েক দিনের মধ্যেই কৃষকের গোলায় উঠবে ধান। ইতোমধ্যে হাটবাজারে কাচি, কুলা, ডালি, গোলা বিক্রির ধুম পড়েছে। বাঁশ ও বাঁশজাত পণ্য বিক্রেতারা এই মৌসমটির অপেক্ষায় থাকে। এ সময় তাদের ব্যবসা ভালো হয়। গদাই গ্রামের কৃষক শাহাজাহান মন্ডল, নিজপাড়া গ্রামের প্রহলাদ চন্দ্র বলেন, এবার বৃষ্টি না হলেও বিদ্যুৎ থাকায় সেচ সচল ছিল। এর ইতিবাচক প্রভাব পড়েছে ধান উৎপাদনে। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, উপজেলায় ৭ হাজার ৫৯৭ হেক্টর জমিতে ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। তার মধ্যে হাইব্রিড ২ হাজার ৪৯৯ ও উপশি ৫ হাজার ৯৮, অর্জন হয়েছে ৭ হাজার ৬১০ হেক্টর জমিতে। বেশির ভাগ হাইব্রিড ও উফশি জাতের ধান চাষ করা হয়েছে। কর্মকর্তা শাহনাজ পারভিন বলেন, ইতোমধ্যে বিরি ২৮ জাতের ধানসহ প্রায় ৪০ ভাগ ধান কাটা শেষ হয়েছে। কয়েক দিনের মধ্যে অন্য সব ধানও কাটা শেষ হবে। এ বছর ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩৩ হাজার ৫০২ মেট্রিক টন। কৃষকের ফলন বাড়ানোর জন্য সরকার সব ধরনের সহায়তা করে যাচ্ছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মহিদুল হক বলেন, খাদ্য নিরাপত্তা বেষ্টনী তৈরির জন্য সরকার কৃষকদের সার্বিক সহযোগিতা করে আসছে। কৃষক যেন সেচ কাজে সঠিক সময়ে বিদ্যুৎ ও সার পায়, এ ব্যাপারে তদারকি ছিল এবং এখনো আছে। সার, বীজ, ডিজেল ও কীটনাশকের বাজারে সার্বক্ষণিক মনিটরিং করা হচ্ছে। এবার উপজেলায় সারের কোনো সংকট হয়নি। বিদ্যুতের কিছু সমস্যা থাকলেও কৃষক তা পুষিয়ে নিয়েছে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App