×

এই জনপদ

কলমাকান্দায় সেতুতে বিশাল গর্ত, আতঙ্কে চালক-যাত্রীরা

Icon

প্রকাশ: ১৩ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

কলমাকান্দায় সেতুতে বিশাল  গর্ত, আতঙ্কে চালক-যাত্রীরা
কলমাকান্দা প্রতিনিধি : সেতুর একপাশে সৃষ্টি হয়েছে বিশাল গর্ত। আবার অন্য পাশে রেলিং পুরোটাই ভেঙে গেছে। ফলে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে যানবাহন ও পথচারীরা। প্রায় এক বছর ধরে এভাবেই ধীরে ধীরে গর্ত বড় হচ্ছে। এটি কলমাকান্দা উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নের হরিপুর এলাকায় কমল বিলের উপর নির্মিত সেতুর বর্তমান অবস্থা। এরপরও সংস্কারের উদ্যোগ নেয়নি কেউ। সেতুর এমন বেহাল দশায় জনমনে দেখা দিয়েছে আতঙ্ক। সরজমিন দেখা গেছে, সেতুটির উঠানামার অংশে তৈরি হয়েছে বড় গর্তের। এছাড়া একপাশের রেলিং প্রায় পুরোটাই ভেঙে গেছে। সেতুটির এমন বেহাল দশায় ভোগান্তিতে পড়েছে পথচারীরা। সেই সঙ্গে রেলিং ও সেতু ভেঙে গিয়ে বেরিয়ে গেছে রড। এই সেতুর উপর দিয়ে প্রতিদিন শত শত যানবাহন ও হাজারো মানুষ আসা-যাওয়া করে থাকেন। এমনকি স্কুল-কলেজে পড়–য়া প্রায় দুই শতাধিক শিক্ষার্থী যাতায়াত করে। সেতুটির এমন বেহাল দশায় ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা, লরি গাড়ি, মাইক্রোবাস, সিএনজি ও মোটরসাইকেল। স্থানীয়দের অভিযোগ, প্রায় এক বছর পার হলেও সেতুটির সংস্কার কাজ করেননি কর্তৃপক্ষ। প্রতিদিন এই সেতুর উপর দিয়ে বিভিন্ন ধরনের যানবাহন চলাচল করছে। এছাড়াও অনেক সময় গর্তের কারণে দুর্ঘটনা ঘটছে। তাই দ্রুত সেতু সংস্কারের দাবি স্থানীয়দের। নাজিরপুর ইউনিয়নের হরিপুর গ্রামের নুরুল ইসলাম বলেন, এই সেতুর উপর দিয়ে লেগুরা ও নাজিরপুর ইউনিয়নের মানুষ জেলা শহরে আসা যাওয়া করে। এছাড়া কৈলাটি ইউনিয়নসহ আরো অন্তত ৫০টি গ্রামের মানুষ উপজেলা সদরে যাতায়াত করেন এ সেতুর উপর দিয়ে। প্রতিদিন বিভিন্ন ধরনের যানবাহনও চলাচল করে। এই জায়গায় অনেক সময় দুর্ঘটনাও ঘটেছে। এ বিষয়ে উপজেলা এলজিইডির উপসহকারী প্রকৌশলী মো. ইমরান হোসন বলেন, সেতুটি সংস্কারের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। অনুমোদন হলে দ্রুতই কাজ শুরু হবে। কলমাকান্দা উপজেলা প্রকৌশলী শুভ্র দেব চক্রবর্তী বিদায়জনিত কারণে তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App