×

এই জনপদ

তেঁতুলিয়ায় আচরণবিধি মানছেন না প্রার্থীরা

Icon

প্রকাশ: ০৩ মে ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

তেঁতুলিয়ায় আচরণবিধি মানছেন না প্রার্থীরা
তেঁতুলিয়া (পঞ্চগড়) প্রতিনিধি : তেঁতুলিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে জমে উঠেছে প্রচার-প্রচারণা। চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীদের পোস্টার, ব্যানার ও ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে পুরো উপজেলা। প্রার্থী এবং তাদের সমর্থকরা বিভিন্ন এলাকায় প্রচার-প্রচারণা ও ভোটারদের সমর্থন বাড়াতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। এদিকে নিয়মকানুনের তোয়াক্কা না করে চলছে প্রার্থীদের এসব প্রচার-প্রচারণা। পোস্টার দড়ি দিয়ে টানানোর কথা থাকলে তা মানা হচ্ছে না। সরজমিন ঘুরে দেখা গেছে, সরকারি-বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, অফিস, বাসা-বাড়ি, ভবনের দেয়াল, গেট, রাস্তার সড়কদ্বীপ, ঈদগাহ ময়দান, বৈদ্যুতিক খুটি ও গাছে লাগানো হয়েছে নির্বাচনী পোস্টার। আচরণবিধিতে প্রার্থীদের নির্বাচনী প্রচারণার জন্য একটি ইউনিয়নে মাত্র একটি মাইক ব্যবহার করার কথা থাকলেও এ উপজেলায় দেখা গেছে ভিন্ন চিত্র। একই ইউনিয়নে একাধিক প্রচারণা ও দুটি করে মাইক ব্যবহার করছেন প্রার্থীরা। এছাড়া প্রচারণার জন্য প্রতিদিন দুপুর ২টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত সময়সীমা বেধে দেয়া হলেও তা মানা হচ্ছে। শোডাউন করতে বিধিনিষেধ থাকলেও তা অমান্য করে মোটরসাইকেল শোডাউন করে তা প্রতিদিন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে লাইভ প্রচার করতেও দেখা গেছে বিভিন্ন প্রার্থীকে। নির্দেশনার তোয়াক্কা না করে হরহামেশাই নিজেদের খেয়ালখুশি মতো কার্যক্রম পরিচালনা করলেও নির্বাচনের দায়িত্বপ্রাপ্ত সহকারী রিটার্নিং অফিসার ও উপজেলা নির্বাচন অফিসারের পক্ষ থেকে নেয়া হচ্ছে না তেমন কোনো ব্যবস্থা। চেয়ারম্যান প্রার্থী নিজাম উদ্দিন খান বলেন, আমার পোস্টারগুলো আমার কর্মীদের লাগাতে দিয়েছিলাম। তারা লাগানোর সময় বৈদ্যুতিক খুটি ও দেয়ালে অন্য প্রার্থীদের পোস্টার লাগানো দেখে তারাও পোস্টার লাগিয়েছেন। পরে তাদের নিষেধ করলে আর লাগায়নি। এখন আমি দড়ি দিয়ে পোস্টার লাগানোর কথা বলেছি তাদের এবং তারা ওইভাবে এখন পোস্টার লাগিয়েছে। তবে তিনি অভিযোগ করে বলেন, বিভিন্ন এলাকায় আমার পোস্টার কে বা কারা ছিঁড়ে ফেলছে। চেয়ারম্যান প্রার্থী কাজী আনিছুর রহমান বলেন, দেয়ালে বা গাছে পোস্টার লাগানোর কথা নয়। কর্মীরা ভুল করে লাগাতে পারে। খোঁজ নিচ্ছি, কেউ যদি পোস্টার দেয়ালে ও গাছে লাগায় সেগুলো দ্রুত অপসারণ করা হবে। ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী আশরাফ আলী বলেন, তিনি বা তার নির্বাচনের সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে সংশ্লিষ্ট কেউ আচরণবিধি ভঙ্গ করছেন না। তিনি ও তার কর্মীরা বিধি মেনেই প্রচারণা চালাচ্ছেন। উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা শামীম হোসেন বলেন, ৮ মে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের জন্য আমি সব ধরনের প্রস্তুতি নিচ্ছি। আচরণবিধি লঙ্ঘনের বিষয়ে প্রার্থী বা অন্য কেউ এখন পর্যন্ত কোনো অভিযোগ করেনি। সামান্য যা করছে তার সমাধান করার চেষ্টা করছি। উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাহবুবুল হাসান বলেন, নির্বাচনী আচরণবিধি প্রতিপালনে প্রার্থীদের নির্বাচনী ক্যাম্পে সরজমিন আচরণ বিধিমালা সম্পর্কে সচেতন ও সতর্ক করা হয়েছে। তবে এ বিষয়ে সহকারী রিটার্নং অফিসারের কাছ থেকে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পাওয়া গেলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App