×

এই জনপদ

লক্ষ্মীপুর

ছাত্রলীগ নেতা সজীব হত্যার আসামিদের গ্রেপ্তারের দাবি

Icon

প্রকাশ: ২৭ এপ্রিল ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

চন্দ্রগঞ্জ (ল²ীপুর) প্রতিনিধি : ল²ীপুরে ছাত্রলীগ নেতা এম সজীব হত্যায় জড়িত আসামিদের দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে চন্দ্রগঞ্জ থানা ছাত্রলীগ ও সজীবের পরিবার। গতকাল শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টায় চন্দ্রগঞ্জ প্রেস ক্লাবে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এ সময় সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন- নিহতের মা বুলি বেগম ও বোন সাহিদা আক্তার শিল্পী। এছাড়া আরো উপস্থিত ছিলেন- চন্দ্রগঞ্জ থানা আ.লীগের সহসভাপতি এম ছাবির আহম্মেদ, থানা কৃষক লীগের সভাপতি জাকির হোসেন জাহাঙ্গীর, ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি গিয়াস উদ্দিন লিঠন, ইউপি সদস্য শাহপরান শাকিলসহ সব সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। সজীবের মা বুলি বেগম বলেন, আমার নিরাপরাধ সন্তানকে যারা খুন করছে তাদের দ্রুত গ্রেপ্তার করা হোক। ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি আরো বলেন, মামলার প্রধান আসামি চন্দ্রগঞ্জ থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক কাজী বাবলুকে পুলিশ এখনো গ্রেপ্তার করতে পারেনি। এতে নিজেদের নিরাপত্তাসহ ন্যায়বিচার নিয়ে শঙ্কিত তিনি। এ সময় খুনি বাবলুর ফাঁসি দাবি করে কান্নায় ভেঙে পড়েন বুলি বেগম। থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এম মাসুদুর রহমান বলেন, সজীব হত্যার সঙ্গে জড়িত সবাইকে অনতিবিলম্বে গ্রেপ্তার করতে হবে এবং মূল আসামি ডাকাত বাবলুকে গ্রেপ্তার করে ফাঁসির আওতায় আনতে হবে। চন্দ্রগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ছাবির আহম্মেদ বলেন, দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের পর থেকে থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগের বিতর্কিত আহ্বায়ক ডাকাত বাবলু চাঁদাবাজি, সরকারি জায়গা দখল ও বিক্রি করে ব্যাপক বাণিজ্য করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়। এতে সজীব বাধা দেয়ার কারণে তাকে রাতের আঁধারে নৃশংসভাবে খুন করা হয়। আমি এই ডাকাত বাবলুকে দ্রুত গ্রেপ্তার করে ফাঁসি দেয়ার দাবি জানাচ্ছি। প্রসঙ্গত, গত ১২ এপ্রিল রাত দেড়টায় পাঁচপাড়া গ্রামে দুর্বৃত্তরা সজীবসহ মোট ৬ জনের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। হামলায় ৪ জন আহত হয়। সজীবসহ ৩ জনের অবস্থা সংকটাপন্ন হলে তাদের ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরে সজীবকে একটি বেসরকারি হাসপাতালে অস্ত্রোপচার করা হয়। গত মঙ্গলবার রাত ২টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় সজীব মারা যান। এ ঘটনায় সজীবের মা বুলি বেগম বাদী হয়ে চন্দ্রগঞ্জ থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক কাজী মামুনুর রশীদ বাবলু ১ নম্বর এবং সদস্যসচিব তাজুল ইসলাম ভূঁইয়াকে ২ নম্বর আসামি করে মোট ৩১ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। এখন পর্যন্ত তাজুল ভূঁইয়াসহ ৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App