×

এই জনপদ

মঠবাড়িয়া

ফের তদন্তে জাপা নেতাকে হত্যাচেষ্টা মামলা

Icon

প্রকাশ: ২৭ এপ্রিল ২০২৪, ১২:০০ এএম

প্রিন্ট সংস্করণ

মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) প্রতিনিধি : মঠবাড়িয়ায় জাপা (এরশাদ) নেতা শফিকুল ইসলামকে (৪০) কুপিয়ে বাম পা বিচ্ছিন্ন ও হত্যাচেষ্টা মামলা পুনরায় তদন্ত করছে পিবিআই। পিবিআই ইন্সপেক্টর আহসান কবির গত বৃহস্পতিবার বিকালে ঘটনাস্থল মঠবাড়িয়া-তুষখালী সড়কের মাঝেরপুল ফরাজীবাড়ীর সামনের প্রধান সড়ক ও আশপাশের এলাকা পরিদর্শন ও তথ্য সংগ্রহ করেন। জানা গেছে, ২০২২ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর সকালে একটি মামলার হাজিরা দিতে মোটরসাইকেলযোগে মঠবাড়িয়ায় আদালতে যাওয়ার পথে সাড়ে ৯টার দিকে মাঝেরপুল ফরাজীবাড়ীর সামনে পৌঁছালে শফিকুল ইসলামের গাড়িচালক বাবু ও তাদের সঙ্গে থাকা সুমন কৌশলে মোটরসাইকেল থামান। মুহূর্তেই হামলাকারীরা একটি মাহিন্দ্রযোগে কাছে এসে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে ভুড়ি বের করে ও পা বিচ্ছিন্ন করে পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন। সেখান থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। ওই হাসপাতালে দীর্ঘদিন চিকিৎসা দিয়ে পঙ্গু হাসপাতালে পাঠানো হয়। শফিকুল তুষখালী ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক ও তুষখালী গ্রামের মো. আইয়ুব আলীর ছেলে। এ হামলার ঘটনায় শফিকুল ইসলামের মা মমতাজ বেগম বাদী হয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের ভাই মো. নাছির হোসেন হাওলাদার ও সাবেক ইউপি সদস্য মো. সগির হোসেন হাওলাদার ওরফে ছগির মেম্বরসহ ৯ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত ৩ জনকে আসামি করে ওই বছরের ২৯ সেপ্টেম্বর রাতেই মঠবাড়িয়া থানায় মামলা দায়ের করেন। ঘটনার পরপরই পুলিশ প্রধান আসামি তুষখালী ইউপি চেয়ারম্যান শাহজাহান হাওলাদারের ছোট ভাই মো. নাসির হাওলাদারকে গ্রেপ্তার করেন। পরে বিভিন্ন সময় বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করে। বর্তমানে আসামিরা জামিনে রয়েছেন। পিরোজপুর জেলা পিবিআইয়ের ইন্সপেক্টর আহসান কবির বলেন, আদালতের আদেশে কর্তৃপক্ষ আমাকে মামলাটি পুনরায় তদন্তের দায়িত্ব দেন। গত বৃহস্পতিবার বিকালেই মামলার ডকেট হাতে পেয়ে ঘটনাস্থলে পরিদর্শনে যাই। মামলাটি অত্যান্ত গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করা হবে।

সাবস্ক্রাইব ও অনুসরণ করুন

সম্পাদক : শ্যামল দত্ত

প্রকাশক : সাবের হোসেন চৌধুরী

অনুসরণ করুন

BK Family App